ভার্চুয়াল , যৌন নির্যাতন

459

বার পঠিত

phone sex, পুরষের যৌন আবেদন লাঘব করতে এই ভার্চূয়াল
সঙ্গমের আর্বিভাব । ভাল কথা , সেই সাথে রয়েছে video
sex , sexting , আর ও ভাল কথা। কিন্তু পুরুষেরা এটা কেন
বুঝে না পর্নোগ্রাফি আর এইসব ভার্চুয়াল sex দিয়ে ওদের
যৌন তৃষ্ঞা যতই মিটে যাক একজন নারীর এতে কোন কিছু
হয় না ।নারীর কাছে তো sex হচ্ছে ভালবাসার চরম প্রকাশ
সেই সৃষ্টির শুরু থেকে । boyfriend-girlfriend , husband-wife,
boyfriend-boyfriend, girlfriend-girlfriend কি ভাবে যৌন
আবেদন মিটাবেন এটা উনাদের ব্যাপার
এমনকি এটা উনাদের একান্ত ব্যাক্তিগত ব্যাপার , তাই
এখানে কারো নাক গলাবার কিছু নেই ।
কিন্তু যখন এইসব ভার্চূয়াল সঙ্গমের way এর
কারনে একটা মেয়ে প্রতিদিন সেক্সুয়ালি হ্যারাসড
বা যৌন হয়রানির শিকার হয় তখন শুধু নাক
না পুরো মাথা গলানোর মত বিষয় হয়ে দাড়ায় । তখন
সেটা ব্যাক্তিগত বিষয় এর মাঝে আটকে থাকে না ।It’s
like rape .
আমি প্রথম ভার্চুয়ালি হ্যারাসড হই যখন আমি ক্লাস 7 এ
পড়ি । একজন আঙ্কেল গোছের লোক আমাদের
টিএনটি তে call দিয়ে আমাকে বলেছিল আমার বুকের
সাইজ কত,
আমি তখন কোন কিছু বলতে পারি নি । আমার মা কে যখন
আমি এইসব বলি তখন মা আমাকে বলেছেন চুপ
করে থাকতে , আমি ও চুপ করে থেকেছি । কিন্তু চুপ
করে থেকে আদৌ কিছু কি বন্ধ হয়েছে ? এই
ভাবে হ্যারাসড হওয়া তো বন্ধ হয়ে যায় নি আমার।
তাহলে আমি কেন চুপ থাকব ? ? ? ?
প্রশ্নটা আমার পুরুষদের কাছে , why ? নিজেদেরকে control
করার মত ক্ষমতা নেই এ কেমন পৌরুষত্ব ? আমার
চেয়ে দ্বিগুন বয়সের লোকেরা যখন এভাবে হ্যারাসড
করে তখন কি তাদের মধ্যে কোন দয়ামায়া ,
মানবতা থাকে না ? সৃষ্টির শুরুতে পুরুষেরা বলপূর্বক
নারীদের ধর্ষণ করত ,জোর পূর্বক নিজেদের
শয্যাসঙ্গিনী হতে বাধ্য করত ।
নারীরা শারীরিকভাবে দুর্বল থাকায় বাধা দেওয়ার
প্রশ্ন ছিল না তখন । কিন্তু এখন যুগ পাল্টেছে তাহলে এখন
ও কেন এরকম হচ্ছে ? rape তো হচ্ছে অহরহ physically , সেই
সাথে ভার্চুয়াল rape । ধিক্কার দেই আমি । এত যৌন
আবেদন পুরুষদের আবার এরাই বুঝি সভ্য পূরুষ। ওয়াক থ

You may also like...

  1. আপনি যেমন উত্তর দেন নি, ঠিক তেমনি যদি প্রতিটা নারী উত্তর না দিত এবং দৃঢ় ভাবে প্রতিবাদ করত তাহলে, সমাজ এ অবস্থায় আসত না। যখন দেখি একটি মেয়ে শুধু মাত্র “কয়েকটি চুম্বন এবং অন্যান্য কিছুর ” জন্য একটি বিবাহিত ছেলের পিছনে পিছনে থাকে, তখন সত্যি খারাপ লাগে। আর এ সমাজ কোন কিছু প্রতিষ্ঠা করতে গিয়ে তার পূর্বের অবস্থার ভুল ধরিয়েছে। prednisolone dosing chart

    আমার মাঝে মাঝে ইচ্ছে হয় রবীন্দ্রনাথ – নজরুলের সময় পর্দা ছিল কি? তখন কয়জন নারী নির্যাতিত হত? get viagra now

    আপনার সুচিন্তিত মত এই বিষয়ে আরো দীর্ঘ হোক এই কামনা করি……খুবই ভাল লিখেছেন যদিও অল্প মনে হলো।

    • পৃথিবী তে নারী হয়ে জন্মানোটা পাপ, সেই আদিকাল থেকে, পর্দা প্রথার মধ্যে থেকেও নারী যৌন নির্যাতনের শিকার , তাইপুরুষদের, সম অধিকারে বিশ্বাস করতে হবে। তার পূর্ব পর্যন্ত ঢাল, তলোয়ার, মুষ্টি, কম্ফু, ব্যাট, হকি স্টিক যা আছে তা নিয়ে লড়াই করতে হবে নারীদের পুরুষতন্ত্রের বিরুদ্ধে।

      আপনি বলেছেন যে, কিছু নারীরা চুমুর জন্য আর যৌন আবেগ মিটানোর জন্য বিবাহিত পুরুষদের দৃষ্টিআর্কষন করে,, কিন্তু এখানে কথা হল কেন একজন নারী এমন করছেন, বিশ্বাস করেন নারীর যৌন আবেগ ভালবাসাহীন যৌন সঙ্গমের মধ্যে আটকে থাকে না, প্রচন্ড ভালবাসার আলতো চুমু নারীর সব আবেদনের জন্য যথেষ্ট।
      তাই এতটুকু আমাদের জানা দরকার এর পেছনের কারন টা কি, যদি নারী নিজের কুমতলবের জন্য, অন্য আরেকজন নারীকে আঘাত করে তাহলে সেটা নিন্দনীয়।
      আর আপনাকে ধন্যবাদ। :) cara menggugurkan kandungan 2 bulan dengan cytotec

      ramipril and hydrochlorothiazide capsules
  2. অপার্থিব বলছেনঃ

    যুগ যুগ ধরে গড়ে উঠা আমাদের এই পুরুষতান্ত্রিক সভ্যতার কারনে পুরুষেরা তাদের যৌন আবেদন খোলাখুলি প্রকাশ করতে পারে। তারই নোংরা রূপ ধর্ষণ হোক না সেটা রিয়েল কিংবা ভার্চুয়াল। নারীর আর্থ সামাজিক অবস্থান পরিবর্তন হলে তথা সমাজে আর্থিক ও সামাজিক উভয় দিক দিয়ে নারীর অধিকার পূর্ণ ভাবে পপ্রতিষ্ঠা হলে তবেই এই জাতীয় পুরুষতান্ত্রিক মনভাবের পরিবর্তন সম্ভব। সত্যি বলতে কি এটি একটি দীর্ঘ মেয়াদি মনস্তাত্বিক বিবর্তন প্রক্রিয়া, রাতারাতি এই পরিবর্তন সম্ভব নয়।

  3. দুরন্ত জয় বলছেনঃ

    সেই সব পুরুষদের থু যারা নিজেকে কন্ট্রোল করতে পারে না।

  4. লেখাটা ভালো হয়েছে। নারীরা যদি সোচ্চার হয় এবং নিজেদেরকে শুধুমাত্র একজন নারী না ভেবে মানুষ ভাবতে শেখে তাহলে এইসব লম্পটদের উচিৎ শিক্ষা দেয়া সম্ভব।
    চালিয়ে যান মুক্ত চিন্তার বিকাশ, হ্যাপি ব্লগিং… :grin:

    acheter viagra pharmacie en france
  5. তারিক লিংকন বলছেনঃ

    আপনি হয়তো জানেন না কিংবা সর‍্যি হয়তো জানেন!! কিন্তু কৃষি সভ্যতার আগে অর্থাৎ প্রায় ২৫,০০০ বছর আগে মানব সভ্যতা নারী শাসিত ছিল। তখন আজকের পুরুষেরা যা করত তার থেকে বেশী নির্যাতন করত নারীরা! তারপর সমাজ যখন কৃষিনির্ভর হয়ে পড়ল অর্থাৎ নারীরা বাইরের বদলে বাসায় মনোনিবেশ করতে লাগলো তখন কর্তৃত্ব পুরুষের হাতে চলে গেলো! তার মানে এই না যে সমাজের এই দ্বন্দ্বকে উসকিয়ে দিয়ে আমরা শান্তি আনতে পারবো! আমি মনে করি মানব সভ্যতা এখনো এই নারী-পুরুষের সম-অধিকার স্থাপনের সংযোগস্থলে চলে এসেছে। পশ্চিমা বিশ্ব এরইমধ্যে অনেকটুকু কাটিয়ে উঠেছে। বর্তমানে আমাদের নারীদের বেগম রোকেয়াকে আদর্শ মেনে তাঁদের বন্দীদশার আসল কারণগুলো চিহ্নিত করে নিজেদের কাটিয়ে উঠতে হবে। একচোখা হয়ে দেখে কোন সমস্যা সমাধান হয় না…
    উত্তরণের পথে নিজ থেকে তাড়না এবং সমাজের উৎসাহ উভয়ই দরকার!
    আপনার প্রতীবাদ আরও স্পেচিফিক এবং পরিশীলিত হোক। লিখতে থাকুন…

প্রতিমন্তব্যদুরন্ত জয় বাতিল

আপনার ই-মেইল ও নাম দিয়ে মন্তব্য করুন *

You may use these HTML tags and attributes: <a href="" title=""> <abbr title=""> <acronym title=""> <b> <blockquote cite=""> <cite> <code> <del datetime=""> <em> <i> <q cite=""> <strike> <strong>

Heads up! You are attempting to upload an invalid image. If saved, this image will not display with your comment. malaria doxycycline 100mg

can you die if you take too much metformin
sildenafil basics 100 mg filmtabletten