সম্রাট অশোক এবং গণহত্যা সংক্রান্ত কিছু রূপকথা…

658

বার পঠিত

সম্রাট অশোক ছিলেন বাঙলার প্রাচীন মৌর্য বংশের ৩য় সম্রাট। মৌর্য সাম্রাজ্য দিকে দিকে বিস্তার লাভ করতে থাকে তার আমলে। রাজ্য বিস্তারের এক পর্যায়ে “কলিঙ্গ যুদ্ধে জড়িয়ে পড়েন সম্রাট। ভয়ংকর সে যুদ্ধে মৌর্য বাহিনীর হাতে এক লাখ মানুষ নিহত হয়। যুদ্ধ মানেই রক্তপাত, কিন্তু তারপরও লক্ষ মানুষের রক্তস্রোত হঠাৎ অশোককে প্রচণ্ড ধাক্কা দেয়, কৃতকর্মের অনুশোচনায় দগ্ধ অশোক বৌদ্ধ ধর্মের অহিংস শান্তির মন্ত্রে দীক্ষিত হন। যে অশোক রাজ্য জয়ের উদগ্র উন্মত্ততায় একসময় হাত রাঙিয়েছিলেন লক্ষ মানুষের রক্তে, সেই অশোক বাকি জীবন মানবকল্যাণে নিজেকে বিলিয়ে দেন, তৈরি করেন অগুনতি স্থাপনা । লালসার স্রোতে ডুবে পশু স্তরে নেমে যাওয়া অশোক এভাবেই অনুশোচনা আর আত্মশুদ্ধির আগুনে পুড়ে মহামানব হয়েছিলেন, হয়েছিলেন বৌদ্ধধর্মের কনসট্যানটাইন। viagra en uk

প্রায় ২০০০ বছর পরের কথা। বিংশ শতাব্দীর শেষ ভাগ। জ্ঞান-বিজ্ঞানে আর সভ্যতার উৎকর্ষে মৌর্য যুগের চেয়ে বহুগুনে এগিয়ে থাকা এক পৃথিবী। একদিন হঠাৎ সেই সভ্য পৃথিবীর একটি দেশের সেনাবাহিনী ঝাঁপিয়ে পড়ল সেই দেশেরই নিরীহ মানুষের উপর। দেশটির নামের অর্থ “পবিত্র ভূমি”। তো সেই পবিত্র ভূমির অধিবাসী হিসেবে নিজেদের পরিচয় দেয়া সে দেশের সেনাবাহিনী রাস্তায় নেমে এল ট্যাংক নিয়ে, ভিডিও গেমস খেলার ভঙ্গিতে নির্বিকার চিত্তে বাড়ী-ঘর, স্কুল-কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়, অফিস-আদালতে মর্টার শেল ছুড়তে লাগলো, আগুন লাগিয়ে দিতে লাগলো দাহ্যপদার্থ দিয়ে। এমনকি বস্তির নিম্মবিত্ত গরীব মানুষগুলোও রেহাই পেল না। যাকে সামনে পেল, তাকেই পিঁপড়ে মারার মতো স্বাভাবিক ভঙ্গিতে মেরে ফেলতে লাগলো। পিঁপড়ে দুভাগ করে মেরে ফেলার মতো বেয়নেট দিয়ে খোঁচাতে খোঁচাতে দুভাগ করে ফেলতে লাগলো অনেককে। কিছু সেনা যেকোনো বাড়িতে ঢুকে জিভ চাটতে চাটতে প্যান্ট নামিয়ে ঝাঁপিয়ে পড়তে লাগলো ছোট ছোট বালিকাদের উপর, কিশোরীদের উপর, তরুণীদের উপর, যুবতীদের উপর। এমনকি আশি বছরের বৃদ্ধা মা পর্যন্ত বাদ গেলেন না। সেই অদ্ভুত ধ্বংস আর মৃত্যুর রাতে কেবল সে শহরেই মারা গেল ৫০০০০ রেরও বেশী মানুষ। সেটা ছিল শুরু মাত্র…

২৪ বছরের অবর্ণনীয় নিস্পেষন আর অত্যাচার থেকে মুক্তি চেয়েছিল মানুষগুলো, এটাই ছিল তাদের অপরাধ। তাআ নয় ম্যাস ইসলাম ধর্ম কায়েমের দোহাই দিয়ে ৩০ লাখ মানুষ করা হল, সাচ্চা মুসলমানের বীজ রোপণের নামে অকল্পনীয় অমানুষিকতায় ধর্ষণ করা হল চার লাখেরও বেশি নারীকে। অথচ সেই দেশের শতকরা ৮০ ভাগ লোক ছিল মুসলমান, ভোরবেলা ফজরের নামাজ আদায়ের পর কোরআন শরীফ পাঠ করে দিন শুরু করত তারা। হাজার বছর ধরে হিন্দু-মুসলমান-বৌদ্ধ-খ্রিস্টান সবাই মিলে সুখে শান্তিতে পাশাপাশি বসবাস করে আসছিল তারা। আর সেই দেশে ইসলামের ভয়ংকর অপব্যাখ্যা দিয়ে পুত্রের সামনে মাতা, পিতার সামনে কন্যা, স্বামীর সামনে স্ত্রী, ভাইয়ের সামনে বোনকে ধর্ষণ করে গেছে ওরা একের পর এক, ধর্মের নামে এতো বড় জঘন্য পৈশাচিকতা সভ্যতার ইতিহাসে আর হয়নি কখনও…

কলিঙ্গ যুদ্ধে এক লাখ মানুষ হত্যার প্রায়শ্চিত জীবনের শেষ নিঃশ্বাস পর্যন্ত করেছিলেন সম্রাট অশোক। বিবেক তাকে অবিরাম দংশনে দংশিত করেছে বারবার। আর কলিঙ্গ যুদ্ধের চেয়ে ৩০ গুন বেশী মানুষ হত্যা করেও আজো ক্ষমা চায়নি পাকিস্তান, বিবেকের দংশন তো বহু দূরের কথা, গণহত্যা যে হয়েছিল সেটা পর্যন্ত স্বীকার করেনি তারা। আজো তারা তাদের নতুন প্রজন্মকে শেখায় ১৯৭১ সালে হিন্দুস্তানি দুষ্কৃতিকারীদের সাথে সামান্য গণ্ডগোল হইছিল। সব হিন্দুস্তানি মালাউনদের ষড়যন্ত্র, নাহলে আজকে দুই ভাই একসাথেই থাকতাম…

তারপরও আমাদের দেশের কিছু মানুষ মুসলমান ভাই বিবেচনায় পাকিস্তানীদের সাথে বুক মেলাতে চায়, রক্তাক্ত জন্ম ইতিহাস ভুলে যাওয়ার পরামর্শ দেয়। নির্বিকার চিত্তে বলে, এতো পুরান ঘটনা মনে রাখলে চলে? এইবার আসেন সামনে তাকাই…

আচ্ছা, নিজের মায়ের ধর্ষণকারীর সাথে মানুষ কীভাবে বুক মেলাতে চায়? কীভাবে zovirax vs. valtrex vs. famvir

glyburide metformin 2.5 500mg tabs

You may also like...

আপনার ই-মেইল ও নাম দিয়ে মন্তব্য করুন *

achat viagra cialis france

Question   Razz  Sad   Evil  Exclaim  Smile  Redface  Biggrin  Surprised  Eek   Confused   Cool  LOL   Mad   Twisted  Rolleyes   Wink  Idea  Arrow  Neutral  Cry   Mr. Green

You may use these HTML tags and attributes: <a href="" title=""> <abbr title=""> <acronym title=""> <b> <blockquote cite=""> <cite> <code> <del datetime=""> <em> <i> <q cite=""> <strike> <strong>

Heads up! You are attempting to upload an invalid image. If saved, this image will not display with your comment.