জনসংখ্যা সমস্যা ও সরকারের করনীয়

1208

বার পঠিত

কেইস স্টাডি-১

নাম: জসিম, বয়স : ২৮, (সাক্ষাৎকারের সময় ৪ অক্টোবর ২০১৪)। বিয়ে করছে ১১ বছর আগে, এক ছেলে এক মেয়ে! ছেলের বয়স ১০ মেয়ের ৫ বছর, দুই বাচ্চাকেই সে স্কুলে পড়ায়!  পেশায় রিকশা চালক, দৈনিক আয় ৩০০-৫০০ টাকা। স্বপ্ন দুবেলা দুমুঠো খেয়ে বেঁচে থাকা। পারলে সন্তান দুটাকে মানুষ করা না হয় বাকিটা আল্লাহর হাতে, কপালে যা লিখা আছে। অর্থাৎ তকদীরের উপর ছেড়ে দেয়া। পরিবার পরিকল্পনার কোন চিন্তা নেই আল্লাহ যে কয়টা দেয় সন্তান তাই হবে। prednisolone injection spc

কেইস স্টাডি-২

নাম: শফিক, বয়স; ১৭, (সাক্ষাৎকারের সময় ২০১৩ এর মাঝামাঝি), বিয়ে করেছে বছর খানেক আগে। এখনো সন্তান নেয় নি। পেশায় নির্মাণ শ্রমিক। গড় দৈনিক আয় ৩০০ থেকে ৩৫০ টাকা।  স্বপ্ন দুবেলা দুমুঠো খেয়ে বেঁচে থাকা। আপাতত নির্মাণ কাজের ফোরম্যান হওয়া। পারলে ছেলে মেয়েকে মানুষ করা। না হয় জীবন যেভাবে যাচ্ছে চলে তো যাবেই, সবারই তো যাচ্ছে। সপ্তাহে তার বউকে নিয়ে আপাতত একটা বাংলা ছবি দেখতে পারলেই সে সুখী এবং খুশি। পরিবার পরিকল্পনা নিয়ে কোন ভাবনা নেই আপাতত।

কেইস স্টাডি -৩

নাম: ফরিদ, বয়স ২২ বছর, (সাক্ষাৎকারের সময় মে ২০১৪), বিয়ে করেছে দুই বছর হতে চলল। এক মেয়ের বাবা। পেশায় পোশাক শিল্পের শ্রমিক। মাসে তার আয় সব মিলিয়ে ১২,০০০ টাকা। ২/৩ জনের বেশি সন্তান নেয়ার ইচ্ছা নেই। ছেলে মেয়েদের পড়াশুনা করানোর ইচ্ছা আছে। বাকিটা উপরওয়ালার মর্জি।

বিশেষ কেইস স্টাডি

নাম: ক্লেইরা, বয়স ৩৯ বছর, (সাক্ষাৎকারের সময় ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৪, সাংহাই, গণচীন! ), বিয়ে করেছেন ৯ বছর আগে। এখনও কোন সন্তান নেন নাই, সরকারের বাধ্যবাধকতা শিঘ্রই একমাত্র সন্তান নেয়ার প্ল্যান করবেন। কাজ করেন একটি বহুজাতিক এলিভেটর কোম্পানিতে। উক্ত এলিভেটর কোম্পানির সকল কর্মচারীরাও (নারী-পুরুষ সবাই) কেউ ২৫ বছরের আগে বিয়েই করে না এবং সকলের সন্তান সংখ্যা ১। খুব কম পরিবারেই একের অধিক সন্তান আছে। pastilla generica del viagra

এইবার এই জনসংখ্যা নিয়ে গোটা দুনিয়ার কিছু তথ্য বিশ্লেষণ করি। পৃথিবীর জনসংখ্যা কত? ৭০০ কোটিরও বেশি। ওয়ার্ল্ড মিটার ইনফো এর মতে আজকের জনসংখ্যা ৭২৬ কোটি!! যাহোক এইবার একটা মজার ব্যাপার লক্ষ্য করুন এই ৭২৬ কোটি মানুষের ৭৫% মানুষ বসবাস করে ৪৬% স্থলভাগে অর্থাৎ এশিয়া ও আফ্রিকায় বাকি ২৫% মানুষ বসবাস করে বাকি ৫৪% স্থলভাগে।

একটু লক্ষ্য করুণ স্থলভাগের % এ বিভিন্ন মহাদেশের অবস্থান আর জনসংখ্যার তালিকা: aborto cytotec 9 semanas

Region 2013 Population % of World Pop. Area (km²) prednisone 10mg dose pack poison ivy Density (p/km²) Change/Yr (curr.) 2050 Pop. (proj.) % of World Pop. Change 2013-2050
1 Asia 4,298,723,288 sildenafil 50 mg dosage 60.0% 31,915,446 135 1.03% metformin er max daily dose 5,164,061,493 54.1% 20% cialis 20 mg prix pharmacie
2 Africa 1,110,635,062 15.5% prednisone side effects menopause 30,955,880 36 2.46% 2,393,174,892 25.1% 115%
3 Europe 742,452,170 lasix dosage pulmonary edema 10.4% 23,048,931 acquistare viagra online consigli 32 0.08% clomid dosage for low testosterone 709,067,211 7.4% pastillas cytotec en valencia venezuela -4%
4 Latin America and Caribbean 616,644,503 8.6% 20,546,598 30 1.11% bird antibiotics doxycycline 781,566,037 cialis 10 mg costo 8.2% 27%
5 Northern America 355,360,791 5.0% 21,775,893 16 0.83% 446,200,868 4.7% 26%
6 Oceania buy viagra alternatives uk 38,303,620 0.5% 8,563,295 4 1.42% 56,874,390 0.6% 48%
7 does propranolol cause high cholesterol WORLD 7,162,119,434 100.00% 136,806,988 52 1.15% 9,550,944,891 prednisone side effects moon face 100% 33%

এশিয়া ও আফ্রিকা মহাদেশের মোট স্থলভাগ গোটা দুনিয়ার ৪৬% অথচ এই ভূখণ্ডে বসবাস করে ৭৫.৫% বা ৫৩৫ কোটি মানুষ। বলা হয়ে থাকে গোটা দুনিয়ায় এযাবৎ কালে যত মানুষ মারা গেছে তার প্রায় সমপরিমাণ মানুষ এখন দুনিয়াতে জীবিত আছে। তাহলে আমাদের আসলে অবস্থার ভয়াবহতা বুঝতে কষ্ট হওয়ার কথা না। ভেবে দেখুন ১৯০০ সালে পৃথিবীর জনসংখ্যা ছিল ১৬০ কোটি আর ১৮০০ সালে ১০০ কোটিরও কম। মাত্র ৫০০ বছর আগেও অর্থাৎ ১৫০০ সালে দুনিয়ার মানুষ ছিল সর্বসাকুল্যে ৪৫ কোটি!! আর শুনে আঁতকে উঠবেন ২০৫০ সালে এই সংখ্যা ৯২০ কোটি!!

এইবার বাংলাদেশের দিকে নজর দেই! কেইস স্টাডিগুলোও মাথায় রাখি। জনসংখ্যার শতাংশে বাংলাদেশ পৃথিবীর বুকে ৮ম বা ৭ম যেখানে আমরা চীন, ভারত, আমেরিকা, ইন্দোনেশিয়া, ব্রাজিল, পাকিস্তান ও নাইজেরিয়ার ঠিক পরে। এইবার একটা তথ্য দেই যা জানলে আমরা আঁতকে উঠবো! স্থলভাগের আয়তনে বাংলাদেশের অবস্থান বিশ্বে ৯৪ তম হলেও আমরা জনসংখ্যায় ৮ম বা ৭ম! অর্থাৎ মাত্র ০.০৯৯% বা ০.১% স্থলভাগে ২.৩৫% মানুষের জনবসতি। একটু অন্যভাবে বললে সমভাবে বণ্টন করলে মানুষের যে হারে থাকার কথা তার থেকে ২৪ গুন খারাপ অবস্থায় এই বাংলার মানুষ বসবাস করে। আবার অন্যভাবে বললে বাংলাদেশের ঘনত্বে যদি আমেরিকায় মানুষ বসবাস করে তবে আমেরিকায় প্রায় ১০০০ কোটি মানুষ রাখা সম্ভব অথচ বর্তমান বিশ্বের জনসংখ্যা ৭২৫ কোটি +। অবস্থা আরও কতটা খারাপ হবে তা আমাদের সরকার সমূহের এই ব্যাপারে উদাসীনতা দেখলেই বুঝা যায়।

আমাদের দেশের বিগত সরকার গুলো কখনও এব্যাপারে আশানুরূপ কোন কার্যকরী পদক্ষেপ নেয় নাই। যা করেছে তা সবই এনজিও এবং বিদেশী বড়কর্তাদের চাপে। দেশের এমন সংকটময় সময়ে আজই যদি সরকার কোন সুদূরপ্রসারী জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণের পদক্ষেপ গ্রহণ না করে তবে বাংলাদেশ একদিন অবধারিতভাবেই মানবিক বিপর্যয়ে পরবে। গতানুগতিক জনসংখ্যা বৃদ্ধির কারণ নয় আজ আমি এমন একটা কারণের কথা বলব যা আমরা এতদিন এড়িয়ে গেছি! কারণ-

বাংলাদেশের মানুষের নারী ও পুরুষের গড় বিয়ের বয়স কত? ১৯ বা ২০ বছর বা আরও কম হতে পারে, গড়ে আমি ২০ বছরই ধরে নিলাম। আর দুনিয়ার উন্নত বিশ্বে বসবাসকারী মানুষের নারী ও পুরুষের বিয়ের গড় বয়স প্রায় ৩০ বছর এর কাছাকাছি বা আরও বেশী অর্থাৎ ১০০ পরে বাংলাদেশে যে দম্পতি ৬ষ্ঠ প্রজন্ম পৃথিবীর মুখ দেখবে আর পশ্চিমা বিশ্বে ৪র্থ প্রজন্ম। অন্যকথায় বলতে গেলে ১০০ বছর পর বাংলাদেশে ২ জনের সংসারের জনসংখ্যা হবে ৬*২-৪ (গড় আয়ু ৬৫ বছর ধরলে)= ৮ জন বা ৪ গুন! আর উন্নত বিশ্বে হবে ৪*২-৪ (গড় আয়ু ৭০ বছর ধরলে)= ৪ জন বা দিগুণ! খুব সহজ হিসেব আমেরিকার জনসংখ্যা ২০০০ সালে ৩৫ কোটি থাকলে তা ২১০০ সালে হবে ৬০-৭০ কোটি বা আরও কম আর বর্তমান পরিস্থিতি চলতে থাকলে বাংলাদেশের ২০০০ এর ১৪ কোটির জনগণ ২১০০ সালে হবে ৫৬-৬০ কোটি বা আরও বেশী! এইখানে আমি প্রতি দম্পতির দুজন করে সন্তান ধরে হিসেব করেছি অথচ আজও আমাদের দেশের অধিকাংশ মানুষের সন্তানাদি ২ এর অধিক, আর অন্যদিকে উন্নত বিশ্বে এই সংখ্যা ২ এরও কম। এমনকি বাংলাদেশের দম্পতিদের গড় সন্তান ৩ এর অধিক!! এর অর্থ বাংলাদেশের জনসংখ্যা পরিস্থিতি আরও ভয়ংকর থেকে ভয়ঙ্করতম হবে। অন্যদিকে পশ্চিমা বিশ্বের দম্পতিরা পৃথিবীর জনসংখ্যা কমানোর জন্যে নিজেদের একজন সন্তানের সাথে অবহেলিত জনগোষ্ঠীর এক বা একাধিক শিশুকে দত্তক নেয়।

তাহলে আমাদের করনীয় কি?  জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণে আজই তাই সরকারকে সুদূরপ্রসারী পরিকল্পনা করতে হবে। যেহেতু বর্তমান সরকার বা বিরোধীদলের সাথে কোন উগ্র ধর্মীয় দল জোটবদ্ধ না আর সংসদে ২/৩ অংশের মেজরিটি আছে তাই একমাত্র এই সরকারিই এখন পারে বিবাহের বয়সের নীতিমালা ও সন্তানের সংখ্যা নির্ধারণ করে স্থায়ী আইন করতে। ধর্মীয় মৌলবাদী দল সমূহ এই ব্যাপারে কেমন বাধা দিবে বা দিতে পারে তার আলোচনায় আর গেলাম না। এই ব্যাপারে আরও দীর্ঘ ও জোরাল গবেষণা পারে একটা সুনির্দিষ্ট নীতিমালা তৈরি করতে। বাংলাদেশের পুরুষের বিবাহের বৈধ বয়স হওয়া উচিৎ ২৫ বছর যা ২০২৫ সালে ৩০ বছরে উন্নতি করা যেতে পারে আর নারীর বিবাহের বৈধ বয়স হওয়া উচিৎ ২২ বছর যা ২০২৫ সালে ২৫ বছরে উন্নতি করা যেতে পারে। আর সন্তানের সংখ্যা হতে হবে ২ এর ভিতরে যেখানে প্রথম বাচ্চা সরকারের বর্তমান সকল সুবিধা পাবে আর ২য় বাচ্চাকে টিকা দান- চিকিৎসা-পড়াশুনা সহ সকল ক্ষেত্রে অর্থ ব্যয় করতে হবে।

একটি আধুনিক সফল জাতি হিসেবে নিজেকে প্রমাণ করতে তাই আজই দেশের জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণে সুদূরপ্রসারী আইন করে তার কঠোরতম প্রয়োগ করতে হবে। পরিস্থিতি আরও ভয়াবহ হওয়ার আগেই লাগাম টেনে ধরতে হবে। অন্যথায় এত স্বল্প আয়তনের দেশের এত বিপুল পরিমানের মানুষের জীবনে অর্থনৈতিক মুক্তি নিশ্চিত করা অসম্ভব।

You may also like...

  1. শঙ্খনীল কারাগার বলছেনঃ cialis new c 100

    খুব ভাল লাগলো লিংকন ভাই। বেশ তথ্যবহুল, দুশ্চিন্তা গ্রস্থ, এবং আতংকিত একটা পোস্ট। আপনার করণীয়ার সাথে আমিও একমত। তবে ঐযে বললেন বর্ত্মান সরকারের সাথে কোনো মৌল্বাদী সংগঠনের সাথে কপ্ন সম্প্ররক নেই ফলে সরকার তা খুব সহজেই করতে পার। লিংকন ভাই বোধ হয় জানেন না সরকার ইতিমধ্যেই নারী পুরুষের বিয়ের বয়স কমিয়ে কোথায় নিয়ে এসেছে। মৌল্বাদীদের ইচ্ছা পুরনের জন্য কোনো বর্ত্মান সরকারের কোনো জোতের প্র্যোজন নাই য্বখানে ক্ষমতাবান দলের ভেতরেই ধর্মীয় মোল্বাদ ঘাপ্টি মেরে আছে।

  2. দারুন তথ্য ও তত্ত্ব সমৃদ্ধ পোষ্ট। পরিশ্রমের জন্য ধন্যবাদ লিংকন ভাই।

    জন্যসংখ্যা বাংলাদেশের প্রধান এবং অদ্বিতীয় একটি সমস্যা। জনসংখ্যা যদি বোঝা না হয়ে সম্পদ হয় তবে মোটামুটি অতিরিক্ত জনসংখ্যা যে কোন দেশের জন্য সমস্যা হয়ে দাড়ায় না। কিন্তু বাংলাদেশের মত মাত্র ৩০% সুশিক্ষিত হারের দেশে ১লক্ষ ৪৭হাজার ৫৭০বর্গকিঃমিঃ এলাকায় ১৭কোটি মানুষ অবশ্যই একটি বোঝা এবং সমস্যাও বটে। প্রজনন নিয়ন্ত্রণ করতে না পারলে এই জন্যসংখ্যা ভবিষ্যতে বোঝা থেকে ক্রমশঃ আপদে পরিণত হবে। use metolazone before lasix

  3. ইলেকট্রন রিটার্নস বলছেনঃ

    চমৎকার গবেষনা। দুবাই আরবে শ্রমিক হয়ে গিয়ে দেশের রেমিট্যান্স বাড়ানোর মূলা না ঝুলিয়ে জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রনের প্রতি মনযোগী হওয়া দরকার। আমাদের প্রডাকশনের চেয়ে রিডাকশনের দিকটা নিয়েও ভাবতে হবে। তার উপর হয়েছে উল্টা! মেয়েদের বিয়ের বয়স ১৬ বছর করে বালিকা ধর্ষনের বৈধতা সরকার আরো দুই বছর এগিয়ে আনলো কিনা ভেবে দেখা উচিত। আগে বিটিভির “সুখী পরিবার অনুষ্ঠানে দেখা যেত এস এস সি দেয়ার আগে মেয়ের বিয়ে ঠিক হইয়ে গেলে ডাক্তার আপা বিয়ে ভেঙে দিয়ে বলতেন ১৮ বছরের আগে নয়। কিন্তু এখন? আমি যখন ক্লাশ টেনে তখন কালের কণ্ঠে একটা নিউজ দেখছিলাম প্রতিটা সন্তানের জন্য সিঙ্গাপুর সরকার একটি করে গাড়ি উপহার দিচ্ছে। কিন্তু তাও সবাই অনিচ্ছুক!! আর আমাদের দেশে হচ্ছে সেটার উল্টা। ঠিক কোন যুক্তিতে বিয়ের বয়স ১৬ বছর হল সেটার ব্যাখ্যাটা কি? ১৬ বছর বয়সে সন্তান নেয়া একটা মেয়ের জন্য কতটা রিস্ক? মেয়েটার বেডরুমের দায়িত্ব সরকার নিবে? ১৬ বছরে একটা মেয়ের ফিজিক্যাল স্ট্রেংথ কেমন থাকে? তার প্রজেস্টেরণ হরমোনের গ্রোথ কেমন? কোনো কিছু না জেনে না বুঝে এসব কান্ডজ্ঞানহীন সিদ্ধান্ত কতটুকু সমীচীন কে জানে। :/

  4. দুরন্ত জয় বলছেনঃ

    দারুণ পোস্ট!! তবে কি শক্ত আইন করে লাভ কতটুকু হবে যদি মানুষের মাঝে সচেতনতা না আসে??

    আমার মতে প্রথমে প্রয়োজন সচেতনতা বৃদ্ধি।

    আমাদের সরকার উল্টো কাজ করলো, বিয়ের বয়স না বাড়িয়ে কমালো!!!

  5. সভ্যতা ব্লগ যাত্রা শুরু করার পর থেকে আজ এই পাঁচ মাস পরে এই প্রথম তারিক লিংকন কোন পাণ্ডুলিপিতে তার নামের প্রতি সম্মান দেখালেন। অজস্র ধন্যবাদ।

    বেশ যৌক্তিক এবং তথ্যবহুল পাণ্ডুলিপি। তবে আমার কাছে এই দেশের কেবল এবং একমাত্র সমস্যা হচ্ছে নিরক্ষরতা। আমার জানা মতে (জানায় ভুল থাকতে পারে) আম্রিকার কয়েকটা রাজ্যেও ১৬ বছর বয়সে বিয়ে অনুমোদিত। সেখানে কিন্তু সমস্যা হয় না। কারণ, বিয়ের পরই তারা ইউজ্যুয়ালি নতুন বাসায় ওঠে বা আগের বাসায় থাকলেও শাশুড়ির রূঢ় আচরণের শিকার হয় না। সন্তানও এত তাড়াতাড়ি নেয়া হয় না। কারন, তারা সচেতন। আমরা অসচেনতন। সচেতনতা ক্রিয়েট করতে না পারলে পঁচিশ বছরে বিয়ে করেও এক ডজনের বাপ হওয়া অসম্ভব কিছু না।

    আর এশিয়ার এদিকে জনসংখ্যা বৃদ্ধির হার বেশি থাকবেই। এদিককার মেয়েদের প্রজনন ক্ষমতা আবহাওয়ার কারণেই বেশি হয়। সমতল এবং উর্বর ভূমির কারণে সন্তান টিকে থাকার হারও বেশি। এটাকে আকটানো একটু কঠিন বৈ কি। সেই কঠিন কাজটা আরও কঠিন হয়ে পড়ে সরকারের উদাসীনতায়। কারণ, শিশু/মাতৃমৃত্যু হার কমানোর জন্য গৃহিত পদক্ষেপ চোখে পড়ে সহজে। আপনি প্রান্তিক এলাকায় থাকেন। আপনার এলাকায় একটা সরকার হাসপাতাল করে দিলে আপনি তার প্রতি কৃতজ্ঞ হবেন। স্বাভাবিক! কিন্তু, কেউ আপনার কাছে এসে জন্মনিয়ন্ত্রণ নিয়ে ঘ্যানর ঘ্যানর করলে বিরক্ত হবেন। কারণ, আপনার কাছে সন্তানই সব। আর রাজনীতিবিদদের কাছে ভোটই সব। doxycycline monohydrate mechanism of action

    cd 17 clomid no ovulation
  6. মামুন বলছেনঃ

    উন্নত অনেক দেশের জনসংখ্যা ‘-’ এর দিকে। রাশিয়ার জনসংখ্যা আশংকাজনকভাবে কমছে। ঐ সকল দেশ বাধ্য হয়ে আমাদের জনশক্তি নেবে। হয়তো আমাদের খুব বেশী দুঃচিন্তা করতে হবে না। এ ব্যাপারে আপনারা কি বলেন?

প্রতিমন্তব্যতারিক লিংকন বাতিল

আপনার ই-মেইল ও নাম দিয়ে মন্তব্য করুন *

You may use these HTML tags and attributes: <a href="" title=""> <abbr title=""> <acronym title=""> <b> <blockquote cite=""> <cite> <code> <del datetime=""> <em> <i> <q cite=""> <strike> <strong>

Heads up! You are attempting to upload an invalid image. If saved, this image will not display with your comment.

viagra lowest price
lasix tabletten