এদের অপরাধের দায় আমরা সমগ্র জাতি নিতে রাজি নই।

387

বার পঠিত

যে যাই বলুক না কেনো, আমি কখনোই বিহারীদের উপর এই আগ্রাসনকে সমর্থন করতে পারছি না, পারবোও না।
যে বিহারীরা অপরাধী ছিলো এবং এখনো আছে তাদের চূড়ান্ত শাস্তি আমি কামনা করি; এমন কি একাত্তরে বিহারীদের ভূমিকার কারণে আমি কোন বিহারির প্রতিই সহানুভূতিশীল হতে পারবো না এটাও ঠিক। ওদের ঘৃণা করি এবং চরমভাবেই ঘৃণা করি, এই ব্যাপারে কোন সন্দেহ নাই।কিন্তু, তারপরেও আমি এমন নৃশংসতার প্রতি সমর্থন দিতে পারি না।কারণ, ওরা হিংস্র ছিলো এবং আছে বলে কি আমাকেও কারণে-অকারণে সেই একই ধরনের হিংস্রতা প্রদর্শন করতে হবে নাকি???
আমার এই স্বপ্ন-স্বাধীন বাংলা নৃশংসভাবে নিহত হওয়া মানুষের রক্তে কেনো রঞ্জিত হবে?? একাত্তরে লক্ষ লক্ষ নিরপরাধ বাঙ্গালীর রক্তের বিনিময়ে আমরা এই বাংলা পেয়েছি~এখানে কোন বর্বর জাতির উথান হয়নি যে, বিনা বিচারে অসভ্য-বর্বরের মতন আমরা অন্যদের প্রতি আচরণ করবো, তা সে যতই আমাদের প্রতিপক্ষ হোক না কেনো !পুরো বিষয়টারই রাজনৈতিক এবং আইনী সমাধান রয়েছে, আমরা সে পথে না গিয়ে কেনো এমন নৃশংস পথে গিয়েছি বা যেতে উৎসাহিত বোধ করছি???এখন কি কোন রকম যুদ্ধাবস্থা বিরাজ করছে যে আমরা এমন হিংস্রতা প্রদর্শন করলাম !!!

আবার কাউকে বলতে দেখছি~যারা বিহারী হত্যাকে সমর্থন করছে না তারা নাকি দেশাত্ববোধের ধার ধারে না !!! তাদেরকে বলি~মানুষের মতন হাত-পা থাকলেই মানুষ হওয়া যায় না। এতোই যখন দেশাত্ববোধে আপনারা উদ্বেলিত তাহলে জবাব দেন~ কেনো পাকিস্তানের সাথে আমাদের রাজনৈতিক যোগাযোগ রাষ্ট্রীয়ভাবে রয়েছে???রাষ্ট্র কেনো এতো বছরেও এই অবৈধ অভিবাসীদের বিষয়ে এখনো কোন সুষ্ঠ সমাধানে আসতে পারেনি???কারণ হাজারটা পাওয়া যাবে আমি জানি, যেমন আপনি জানেন; সেই সাথে এটাও জানেন যে রাষ্ট্র কিন্তু এই এতোগুলো বছর যাবৎ ওদের প্রতিপালন করে আসছে। আর তা ইচ্ছাকৃতই হোক আর অনিচ্ছাকৃতই হোক।কেনো???

কারণ, একটা রাষ্ট্র কখনো সন্ত্রাসী হতে পারে না, রাষ্ট্রের একটা নিয়ন আছে, তার নিজস্ব আইন-কানুন আছে, বিচার ব্যবস্থা আছে। আর সেই ব্যবস্থার আওতাধীন আপনি আমি সবাই।কোন কিছু করতে হলে রাষ্টীয়ভাবে, তার আইন-কানুন মেনে করতে হবে।এর অন্যথা করার কোন সুযোগ নেই।যারা এটা মানেন না, তারা আইনভঙ্গকারী এবং নিঃসন্দেহে অপরাধী!
গতকালকে মিরপুরের কালশীতে বিহারী পল্লীতে যা হয়ে গেলো~ তা নৃশংসতা ছাড়া আর কিছুই না, যারা এর সাথে জড়িত তারা অপরাধী। এটা শাস্তিযোগ্য অপরাধ।বাঙ্গালী হয়েছিতো কি হয়েছে, বাঙ্গালী মানে কি বর্বরতা নাকি যে আমি পাকিস্তানীদের মতন বর্বর অসভ্য হবো ???আর হ্যাঁ, আরেকটা বিষয় ঃ
যারা ধর্মের নামে হত্যার মতন জঘণ্য অপরাধে নিজেকে জড়িয়েছেন, তাদের বলছি~শান্তিমতন নামাজ পড়তে পারেননি বলে, মানুষ হত্যা করে সেই শান্তির কাজ করেছেন !ভালো, বেশ ভালো !এই নাহলে ধার্মিক !!!আজকে আবারো প্রমানিত হলো~
“মসজিদ ভাঙ্গে ধার্মিকেরা, মন্দির ভাঙ্গে ধার্মিকেরা !
আর দোষ দেয়ার বেলায় সব একজোট হয়ে পিছে লাগে অধার্মিকের !”
আমি আমার শিক্ষার্থীদের দাঙ্গা পড়াতে গিয়ে, বিশেষ করে ধর্মীয় দাঙ্গা পড়াতে গিয়ে বলেছিলাম~”মানুষ( বিশেষ করে ধর্মীয় দাঙ্গাবাজেরা) এমনই এক দাঙ্গাবাজ প্রাণী যে, এরা নিজের প্রয়োজনে কারণে-অকারণে দাঙ্গা বাঁধায়!
এর মধ্যে ধর্মীয় দাঙ্গাবাজেরা প্রথমে অন্য ধর্মের প্রতি আগ্রাসী ভূমিকা নিয়ে এই দাঙ্গা লাগায়, যখন আর অন্য ধর্মের কারো অস্তিত্ব থাকে না; তখন আর কাউকে না পেয়ে নিজ ধর্মের বিশ্বাসীদের মধ্যেই দাঙ্গা লাগায় !”

মিরপুরের কালশীতে ঘটা বিহারি হত্যার এই প্রসঙ্গে এই কথাগুলোই সত্য হয়ে উঠেছে! এই যে আগ্রাসন, তা যদি ধর্মীয় কারনেই হয়ে থাকে তবে বলতেই হচ্ছে~এই পটকা, আতশবাজি কি অন্য ধর্মের কেউ ফুটিয়েছিলো??? যারা এর উপর বিরক্ত হয়ে পটকা ফুটানোর জন্য দায়ীদের উপর আক্রমন চালিয়ে এমন নৃশংসতা করলো, তারা কি পরস্পর একই ধর্মের অনুসারী ছিলেন না???কিন্তু, কি আশ্চর্যের বিষয়~ একই ধর্মের অনুসারী হয়েও নাকি এরা একে অপরের ধর্মীয় আচার-অনুষ্ঠান পালনের ভিন্নতাকে এমন হিংস্র বিদ্বেষী মনোভাব নিয়ে বিবেচনা করে !!!
তাহলে অন্য ধর্ম বিশ্বাসী কিংবা অধার্মিকদের প্রতি এদের মনোভাব কেমন হতে পারে ! ভাবতেই আমার ভয় লাগে, আমি বিশ্বাস করতে পারি না~ এই বর্বরগুলোর হাতে শান্তির ধর্ম বলে প্রচারিত ইসলাম কীভাবে সম্মান নিয়ে মানুষের কাছে গ্রহণযোগ্য অবস্থান ধরে রাখতে পারে ! এদের এই রকম বর্বরতাই যথেষ্ট ইসলাম ধ্বংসের গোড়াপত্তন করতে !
আমি সত্যি আতংকিত, বিচলিত এবং সমপরিমানে ক্ষুদ্ধ !!! আমিতো এখানে রাষ্ট্র কিংবা সৃষ্টিকর্তাকে নিগৃহীতদের প্রতি রুষ্ট হতে দেখছি না~যতটা দেখছি রাষ্ট্রের নাগরিক নামের কিছু বর্বর অমানুষদের এবং সৃষ্টিকর্তার সৃষ্ট কিছু ধার্মিক নামের ধর্মব্যবসায়ীদের রুষ্টতা !!! এরা দেশের নামে, ধর্মের নামে আদতে নিজেদের স্বার্থের পূজায় নিয়োজিত একেকটা বিদ্বেষী প্রাণ, এছাড়া আমি এদের আর কিছুই মনে করতে পারছি না !!!
আমি রাষ্ট্রের কাছে আবেদন জানাচ্ছি~এই অমানবিক ঘটনার সুষ্ঠ তদন্ত করে দোষীদের শাস্তির আওতায় আনা হোক। এদের অপরাধের দায় আমরা সমগ্র জাতি নিতে রাজি নই।
আর সৃষ্টিকর্তার কাছে এই ধর্মব্যবসায়ীদের হেদায়েতের জন্য প্রার্থনা করছি ! buy viagra blue pill

viagra para mujeres costa rica

You may also like...

  1. অনুস্বার বলছেনঃ

    আপু, আপনার নৈতিক মূল্যবোধ থেকে দেয়া পোস্টের সাথে একমত। যেকোনো হত্যাই দুঃখজনক, মানুষের মৃত্যু কোনোভাবেই কাম্য নয়… কিন্তু অবস্থাদৃষ্টে মনে হচ্ছে, এটা খুব সুক্ষ এবং গভীর ষড়যন্ত্রের একটা কার্যকরী চালমাত্র। বাঙ্গালীদের উপর আক্রমণ ছাড়াও নিজেদের মধ্যেই মারামারি করে ,আগুন লাগায়ে , বোমা ফাটায়ে নরক বানায়ে ফেলছিল গতকাল রাত থেকে আজ পর্যন্ত… এইটার ফলশ্রুতিতে কীভাবে যেন ওদের ক্যাম্পের একটা ঘরে আগুন ধরে যায়। ওরা বলতেছে বাঙ্গালীরা নাকি ক্যাম্পের মধ্যে ঢুকে আগুন লাগায়ে দিছে। এখন আমি বলি কি, বাংলাদেশের যে কোন বিহারী ক্যাম্পে নরমাল অনুসন্ধানে যাইতে হইলেও আর্মির একটা ব্রিগেড লাগব। কেননা যেই পরিমান অস্ত্র আর প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত জঙ্গি অইগুলার মধ্যে আছে, তা দিয়া একটা যুদ্ধ বাধায়া দেয়া যাইব। আর সেই বিহারী ক্যাম্পে এইরকম ঝামেলার মধ্যে একদল বাঙালি প্রবেশ করে আগুন ধরায়ে দিয়ে নির্দ্বিধায় চলে আসবে, এর চেয়ে বড় রসিকতা আর হইতে পারে না। আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী কোন খুন বা ধর্ষণ মামলায় ক্যাম্পে তদন্ত চালাতে গেলে বাকোন অপরাধী ধরতে গেলে ওরা প্রথমে নারী আর বাচ্চাদের সামনে আগায়ে দেয় যেন পুলিশ সামনে আগাইতে না পারে…

    • সোমেশ্বরী বলছেনঃ

      কিন্তু অবস্থাদৃষ্টে মনে হচ্ছে, এটা খুব সুক্ষ এবং গভীর ষড়যন্ত্রের একটা কার্যকরী চালমাত্র।
      অবশ্যই, গভীর ষড়যন্ত্রের অংশই হয়ে থাকবে হয়তো!
      কারণ, যেকোন সংখ্যালঘুদের প্রতি আগ্রাসনের একটা সরল সমীকরণ আছে, আর তা হলো তাদের বসত-বাড়ির মালিকানা দখন!!!
      অন্তত আমি তাই মনে করছি।
      কিভাবে যেনো মানে কি???
      নিজেরাই বলছে, তিতিবিরক্ত হয়ে বিহারীদের উপর বাঙ্গালীরা হামলা চালিয়েছিলো, আবার বলছে বিহারীরা নিজেদের ঘরে নিজেরাই আগুন দিয়ে মানুষ মেরেছে !!!
      আশ্চর্য কথা বলছেন, ভাইয়া!
      তবে যেটা যাই হোক না কেনো~
      আমি মনে করি না যে, ধর্মীয় উগ্রতার কোন কারণ যেখানে দেখানো যুক্তিযুক্ত হয়েছে, কারণ সারা রাত সেদিন আম্রাও ইবাদত করতে পারিনি এই বোমা, পকা ফাটানোর জ্বালায়; সেগুলো কিন্তু কোন বিহারীরা ফুটায়নি…বাঙ্গালীরাই ফুটিয়েছিলো!
      আমরা কিন্তু কিছুই বলতে পারিনি সেক্ষেত্রে।
      পাশাপাশি দু’টো সম্প্রদায় থাকলে স্বাভাবিক ভাবেই তাদের মাঝে ঝামেলা হয়, এটা খুবই স্বাভাবিক। আর এর মাঝে যদি একটি সম্প্রদায় এর অতীত অনেক কলংকিত থাকে এবং তারা যদি বর্তমানে ক্ষমতাহীন থাকে তবে ক্ষমতাবা সম্প্রদায়টি কিছুটা উগ্র হতেই পারে!
      এই আশংকা উড়িয়ে দেয়া যায় না!
      আমি আসলে সেই আশংকার জায়গা থেকেই বলেছি~
      বিহারীদের প্রতি কোন সহানুভূতি আমার নেই, কিন্তু তাই বলে ওদের মতন কুকুর হওয়ারও আমার কোন ইচ্ছা নেই।
      আমার একান্ত ইচ্ছা তাদের দেশে তাদের পাঠানোর ব্যবস্থা করা। কিন্তু সেটা কোনভাবেই নৃশংস কোন উপায়ে করতে রাজি নই আমি।

  2. ডিয়ার সোমেস্বোরি ঐ যে খেলার সাথে রাজনীতি মিশাবেন না , ফাঁসি হইলে মানবাধিকার লঙ্ঘন এইটাইপ কথা বলার অভ্যাস আছে মনে হচ্ছে!

    কুকুড় কামড়া কামড়ি কইরা মরে এতে আমাদের দোষ কি!! ঐ বিহারি নামক প্রানী গুলা কুকুরের চেয়ে উন্নত কিছু না।

    • সোমেশ্বরী বলছেনঃ

      অবশ্যই আছে, তবে তা কোন যৌক্তিক অবস্থান থেকেই; অযৌক্তিক অবস্থান থেকে নয়।
      একটা শিশুর কি কোন পরিচয় আছে, জয় ভাই???
      সে বিহারী না বাঙ্গালী???
      তার পুর্বপুরুষের দায় মোচন করতে তাকে বিনা অপরাধে জীবন্ত পুড়ে মারতে হবে এটা আপনি সমর্থন করেন কীভাবে???
      একমাত্র মানসিকভাবে বিকৃত রুচির হলেই এমন কথা বলা সম্ভব!!!
      আপনার এমন বিচারে আমরা সবাই-ই সবাইকে খুন করতে পারি; কারণে এই ভূখন্ডে এক সময় ছিলো যখন সনাতন ধর্মীরা বৌদ্ধধর্মের লোকেদের নির্বিচারে হত্যা করেছে~ সেই হিসেবে যেকোন সনাতন ধর্মের লোক মাত্র-ই বৌদ্ধ ধর্মালম্বীদের কাছে আপনার কথা মতন কুকুর!
      ইসলাম্পন্থীরা এসে এই ভূখন্ডে কখনো কখনো রাজত্বের নামে আগ্রাসন চালিয়েছে, সেই হিসেবে ইসলামপন্থী জনগণ মাত্রই সনাতন, বৌদ্ধ বা অন্য ধর্মালম্বী জনগণের কাছে আপনার ভাষ্য অনুযায়ী কুকুর!
      তারপর পর্তুগীজ জলদস্যুরা এসে এই ভূখন্ডের জনগণকে নির্যাতন করেছে, তারা আমাদের সবার চোখে কুকুর!
      তারও পরে ব্রিটিশ্রা শাসন এবং শোষণ দু’টোই করেছে, তারা আমাদের চোখে কুকুর!
      ব্রিটিশ ছরছায়ায় সনাতন্ধর্মীরা আবারও ইসলামপন্থীদের উপর রুষ্টতা দেখিয়েছে, সে হিসেবে সনাতন্দর্মীরা ইস্লাম্পন্থীদের কাছে কুকুর!
      এরপর পাকিস্তানীরা এই ভূখন্ডে আগ্রাসন চালিয়েছে, তারা আমাদের কাছে কুকুর!
      একটার পর একটা আসছেই!!!
      কিন্তু, একবারও কি ভেবে দেখেছেন ক্ষমতাবান্রা এবং তাদের দোসররা ছাড়া উপরিউক্ত কুকুরের সঙ্গার আওতায় সবাই পড়ে কিনা???
      সাধারণ জনগণ এর মাঝে পড়ে না, তারা ভুক্তভোগী, জয় ভাই।
      কথাটা বোঝার চেষ্টা করেন।
      যদি তারা অপরাধী হয়ে থাকে, তবে আইনের আওতায় তাদের বিচার হবে; কিন্তু কোনভাবেই নির্বিচারে নয়!!!

      pregnant 4th cycle clomid
      clomid and metformin success stories 2011
  3. ইলেকট্রন রিটার্নস বলছেনঃ

    একমত। অনেকে বিহারী হত্যাকে মুক্তিযুদ্ধের সাথেও তুলনা করে ফেলছেন! ওদের দেশপ্রেম ফিফথ গিয়ারে আছে দেখে ঘাঁটাতে সাহস পাইনা, পাছে যদি সুশীল ট্যাগ খেয়ে বসি! বিহারীদের ঘরে আগুন দেয়ার সাথে মুক্তিযুদ্ধের চেতনার সম্পর্ক কি? কি হতে পারে? যোদ্ধা আর খুনীর মাঝে পার্থক্য আছে। হিটলার যুদ্ধ করেও খুনী আর প্রীতিলতা খুন করেও যোদ্ধা। এইটুকুও যদি কেউ না বুঝে তাকে আর বুঝিয়ে খুব একটা লাভ হবে বলে মনে হয়না!

    হতেও পারে এটা বিহারীদেরই একটা ষড়যন্ত্রের অংশ! আবার নাও হতে পারে! তাই আমি মনে করি, সুষ্ঠু তদন্ত হওয়া দরকার। এবং দোষীদের উপযুক্ত শাস্তি নিশ্চিত করা সরকারের দায়িত্ব। এটা একটা দেশের ভাবমূর্তির ব্যাপার যেহেতু বিহারীরা জেনেভা কনভেনশানের অধীন। আরেকটা দাবী তোলা উচিত বিহারী রিফিউজিদের নিয়ে সরকারের চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত গ্রহন করা উচিত। নয়তো এমন ঘটনা আরো ঘটাও অবান্তর বলে মনে হচ্ছে না।

  4. স্পীকার বলছেনঃ

    কারণ, ওরা হিংস্র ছিলো এবং আছে বলে কি আমাকেও কারণে-অকারণে সেই একই ধরনের হিংস্রতা প্রদর্শন করতে হবে নাকি???

    গান্ধীগিরি দিয়ে কখনো কিছু হয়নি।একজন ভগত সিং,প্রীতিলতা বা সূর্যসেন এর সবসময় দরকার হয়েছে। price comparison cialis levitra viagra

    কারণ, একটা রাষ্ট্র কখনো সন্ত্রাসী হতে পারে না,

    পাকিস্তান সন্ত্রাসী রাষ্ট্র ছিল বলেই আজকে আমরা বাংলাদেশ propranolol clorhidrato 10 mg para que sirve

    • সোমেশ্বরী বলছেনঃ

      যদি ভালো কিছু হয়ে থাকে তবে গান্ধীগিরি দিয়েই হয়েছে, স্পীকার সাহেব!!!
      ইতিহাস পড়ে জেনে নিবেন।
      আর নৃশংসভাবে বিহারীদের হত্যা করার সাথে অযৌক্তিকভাবে প্রীতিলতা বা সুররসেন্দের মতন মহান চরিত্রদের ভূমিকার তুলনা করে তাদের অপমান করবেন না!!!
      ওনারা নিরপরাধ কাউকে হত্যার উদ্দেশ্যে কোন যুদ্ধ পরিচালনা করেননি, যদিও ওনাদের হামলায় কিছু নিরপরাধ জনগণও মারা গিয়েছিলো।
      তারপরেরো সেটা মেনে নেয়া যায় এই ভেবে যে , তখন দেশ পরাধীন ছিলো, স্বাধীনতার জন্য জনগণ নানানভাবে সংগ্রাম করছিল।
      কিন্তু, একটা স্বাধীন সার্ভভৌম সুস্থ রাষ্ট্রের অধীনে কোনভাবেই এমন আচরণকে বেমালুম হজম করে নেয়াওটা শোভনীয় হয় না!
      আর হ্যাঁ, পাকিস্তানকে আমি কোন স্বাভাবিক রাষ্ট্র হিসেবে গণ্য করি না; ওটাতো একটা দুর্গন্ধ ছড়ানো ব্যররথ রাষ্ট্র !!!
      ওর সাথে আমাদের তুলনা করার কোন মানেই হয় না!!!

প্রতিমন্তব্যদুরন্ত জয় বাতিল

আপনার ই-মেইল ও নাম দিয়ে মন্তব্য করুন *

Question   Razz  Sad   Evil  Exclaim  Smile  Redface  Biggrin  Surprised  Eek   Confused   Cool  LOL   Mad   Twisted  Rolleyes   Wink  Idea  Arrow  Neutral  Cry   Mr. Green

You may use these HTML tags and attributes: <a href="" title=""> <abbr title=""> <acronym title=""> <b> <blockquote cite=""> <cite> <code> <del datetime=""> <em> <i> <q cite=""> <strike> <strong> ampicillin susceptible enterococcus

Heads up! You are attempting to upload an invalid image. If saved, this image will not display with your comment.