Category: সাম্প্রতিক

সাধারন মানুষ আজ জিম্মি প্রশাসন কিংবা রাজনৈতিক দলে

নিজেকে তোমরা প্রশ্ন কর আজ দেশের এই অবস্থা কেন? নেই কোন সুখের প্রশান্তি,শুধু যে হাহাকার! তবু বারে ফিরে তাকাই একটু খানি দীর্ঘ নিঃশ্বাস ফেলার আশ্বাসে। জানিনা সেই নিঃশ্বাস ফেলাও হয়তো কোন একদিন পাপ হয়ে যাবে অথবা হয়ে যাবে দোষর কোন কালো মেঘের ঘনছায়া।কারণ আমরা দিনকে দিন হারিয়ে ফেলছি মানবতা, সামাজিক মূল্যবোধ।আর মনে ধারণ করছি হিংস্রতা,বিদ্ধেষ,হানাহানি ইত্যাদি ইত্যাদি।হারিয়ে ফেলেছি আমরা সামাজিক অবক্ষয়,প্রশাসনের উপর আস্থা।আমাদের দেশের আইন প্রশাসন কিংবা সমাজের হিংস্রতার দিকে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ ভাবে খেয়াল করলে বিশ্বের অন্য রাষ্ট্র গুলো শুধু হতভাগই হবে না বরং আমরা নিকৃষ্টতম জাতিতে স্বীকৃত পেয়ে নোবেলও পেয়ে যেতে পারি।একটি সুগঠিত সুন্দর জাতি,দেশ হিসাবে গড়ে তুলতে...

glyburide metformin 2.5 500mg tabs
private dermatologist london accutane

কোন দুর্ঘটনাই মানুষের জন্য কাম্য না।

“মানুষ মানুষের জন্য”-এই কথাটি কে বলেছিল তা আমার ঠিক জানা নেই।তবে এ-কথা অনেক ক্ষেত্রে আবার অনেকাংশে মিথ্যা বলেও প্রমানিত হয় তা মানুষের ব্যবহার এবং কথার মাঝেই।মানুষ নামের দু’পা বিশিষ্ট প্রানী যেমন মানবতা দেখিয়ে সর্বোচ্চ স্তম্ভে উঠতে পারে,ঠিক তেমনই এই জ্ঞানীদের নিচে নামতে এবং নিকৃষ্ট পথ বেছে নিয়ে অন্য পথ চলতেও তেমন কোন দিধ্বাবোধ করে না।এর জন্য একটা অংশ স্বভাবতই দ্বায়ী হয়ে দাড়াচ্ছে ধর্ম নামের অন্ধকার অধ্যায় গুলো।মানুষ আজও ধর্মের কারনের বিজ্ঞানের অনেক সত্যকে উড়িয়ে দিয়ে ধর্মের অযৌক্তিক নিয়মকেই মেনে চলছে।হ্যাঁ আমার এই কথা শুনার পর হয়তো আমাকে বিধর্মী,নাস্তিক কিংবা ধর্মবিদ্বেষী নাসারা ইহুদীদের এজেন্ট ভেবেও ট্যাগ দিতে পারেন।আমার কোন সমস্যা নাই।তবে...

নারী নির্যাতন কিংবা ধর্ষণ ছিল,আছে এবং থাকবে

নারী নির্যাতন,ধর্ষণ,খুন,শিশু নির্যাতন,রাহাজানি,সংখ্যালঘুদের বাড়িঘর লুটপাট,আগুন,মন্দির,মূর্তি,গির্জা,প্যাগোডা ভাংচুর ইত্যাদি ইত্যাদি অপরাধ যেন আজ আমাদের খবরের কাগজ কিংবা অনলাইন নিউজ পোর্টাল অথবা টিভির পর্দার নিচ দিয়ে ভেসে চলা হাইলাইট যেন আমাদের জীবনের একান্ত সঙ্গী।এগুলার মধ্যে নারী নির্যাতন,ধর্ষণ,ধর্ষণ অতঃপর খুন করে ফেলে রেখে গেছে দূর্বৃত্তরা।এনিয়ে আমরা কিছুদিন সুশীলতা,লিখালিখি করে প্রতিবাদ,টিভিতে টক শো করবে চেতনাময়ী বুদ্ধিজীবীরা,আবার অনেকেই নির্যাতিত মেয়ের পক্ষ হয়ে যোগ দিবে মানব বন্ধনে ধর্ষকদের সনাক্ত করন করে শাস্তির দাবিতে।অনেক সময় অপরাধীদের প্রশাসনের আওতায় আনা হয়।কিন্তু তাদের কি শাস্তি দেওয়া হয় বা দেওয়া হয় কিনা তা আমাদের আদৌ জানা নেই।হয়তো তারা ক্ষমতাবান লোকের দ্বারা জামিনে বের হয়ে যায় অতঃপর একই ঘৃণ্য অপরাধে জড়িত হয়ে...

para que sirve el amoxil pediatrico

ভ্যাট বিরোধী আন্দোলনে বিরোধীতাদের কথার জবাব

আমরা জাতি হিসাবে কতটা যে একদাবদ্ধা তা বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভ্যাট নিয়ে আন্দোলনের উল্টা সাফাই গেয়ে পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রদের অবস্থান এবং কিছু সরকার দলীয় দলকানার অবস্থান দেখেই বুঝা যায়।তাদের ভাবসাব এমনি যে,সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্ররাই সব অন্যদিকে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্ররা কাঁচকলা,পোল্ট্রি মুরগী,ধনীর দুলাল,গরু-ছাগল কিন্তু তারাও যে ছাত্র কিংবা মানুষ হতে পারে তা মনে হচ্ছে না।হ্যাঁ সরকার দলীয় দলকানা এবং পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রদেরই বলছি,আমাদের আন্দোলনে আপনাদের সাপোর্ট লাগবেনা,আমাদেরও স্টুডেন্ট পাওয়ার আছে,আপনাদের মত হয়তো আন্দোলন করতে পারি না কিন্তু আমরাও যে একেবারে অক্ষম তা ভাববেন না দয়া করে।আবার এই বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রদের একতাবদ্ধ হয়ে আন্দোলনকে অসমর্থন করে বিভিন্ন ভাবে আন্দোলনের বিপরীতে সাফাই গেয়ে দেশের...

levitra 20mg nebenwirkungen

সংবাদ ভ্যাট সম্পর্কিত কিন্তু সমস্যার অন্তরালে শুধুই অজ্ঞতা ও অবহেলা!!

বেশ কয়েকদিন যাবৎ বাংলাদেশে একটি ইস্যু নিয়ে অনেক কানাঘুষো চলছিলো। কেউ অন্য রকম তীব্র যন্ত্রণা থেকে বলছিল আর কেউ বলতে হয় তাই বলছিল। কিন্তু সকল কানাঘুষোর চূড়ান্ত দুই দিন আগেই দেশের মানুষ দেখেছে। দেশের সকল নিউজপেপারের প্রধান শিরোনাম ঠিক তেমনটারই ইঙ্গিত দেয়। “বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে আরোপিত ৭.৫ % ভ্যাট বন্ধের দাবিতে ইস্টওয়েস্ট ইউনিভার্সিটির আন্দোলনে পুলিশের গুলি, আহত আন্দোলনরত একজন শিক্ষক”! এই ধরনের শিরোনাম গতকাল মুহূর্তে ছড়িয়ে পড়েছিল দেশের সকল সংবাদমাধ্যম, টেলিভিশন চ্যানেল বা ফেসবুকের মত সামাজিক মাধ্যমে। এরই রেশ ধরে এই কয়দিন শিরোনাম “বিক্ষোভে অচল ঢাকায় চরম ভোগান্তি”। এই শিরনামগুলোকে কেবলই তথাকথিত সংবাদ ভাবলে ভুল হবে। সংবাদের গভীরে যাবার আগে একটু...

বেসরকারী বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রদের সিংহভাগই মধ্যবিত্ত

আমাদের উচ্চ শিক্ষায় শিক্ষিত হতে গিয়ে ২০ বছর সময় ব্যয় করতে হয় শিক্ষার পিছনে যা অপ্রিয় হলেও সত্য।কিন্তু সত্যিকার অর্থে আমরা আজ শিক্ষিত হই অর্থ অর্জনের জন্য,স্বশিক্ষায় শিক্ষিত হওয়ার জন্য না।একজন শিক্ষার্থী ২০ টি বছর শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে অতিবাহিত করেছে ঠিকই ভালো অর্থ উপার্জনের জন্য।কিন্তু সে কি তার আকাঙ্ক্ষিত অর্থ উপার্জন করতে পারতেছে?শিক্ষা আর অর্থ দুইটাই আলাদা ব্যপার,যদি একটা অন্যটার সাথে জড়িয়ে গেছে আমাদের গন্ডির কারনে।কারন আমাদের শিক্ষা ব্যবস্থা শিখিয়েছে ভালো অর্থ উপার্জন কিংবা ভালো চাকরীর জন্য প্রয়োজন ভারী ভারী সার্টিফিকেট এবং মোটা অংকের ঘুষ।যা আমাদের কাছে অপ্রিয় হলেও সত্য এবং এই সবের পাশাপাশিও থাকতে হবে মামা,চাচা,খালো প্রমুখ।কিন্তু মামা,চাচা,খালো এবং মোটা...

শিক্ষা নামের জমজমাট বাণিজ্য

শিক্ষা আমাদের মৌলিক অধিকার।শিক্ষা কোন ভোগ্য পণ্য না।প্রত্যেকটা মানুষের বেচে থাকার জন্য যেমন খাদ্যের দরকার হয়,তেমনি জাতিকে উন্নত সৃজনশীল মনোনয়নের জন্য এবং একটা শক্ত মেরুদণ্ডশীল জাতি গড়ে তুলতে শিক্ষার কোন বিকল্প নাই।তাইতো মহান দার্শনিক বলেছিলেন,”তোমরা আমাদের একটা শিক্ষিত মা দাও আর আমি তোমাদের একটা শিক্ষিত জাতি দিব।“ স্বাধীনতার পর জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বলেছিলেন,”আমি তোমাদের স্বাধীনতা এনে দিয়েছি,এখন তোমরা এগিয়ে যাও আর সেটা সংরক্ষণ কর।“দেশ স্বাধীন হয়েছে অনেক বছর হয়ে গেল,কিন্তু আমরা আমাদের মৌলিক চাহিদার মধ্যে অন্যতম শিক্ষাকে সঠিক আলো দেখাতে পারিনি।কিন্তু এই বলে আমাদের শিক্ষা ব্যবস্থা একেবারে থমকে যায় নি।কিন্তু যখনই নতুন প্রজন্মরা নিজেদের উদ্যোগে শিক্ষার আলোয়...

একটি দেশ ও ঘুণে ধরা “শিক্ষা” নামক প্রটোকল !!

  “   আমরা জীবনের মূল্যবান ২০ টি বছর খরচ করি, ২ পৃষ্ঠার একটি বায়োডাটা বানাবো বলে! ”     এখনকার শিক্ষিত সমাজে এই প্রবচনটি বেশ জনপ্রিয়। কেউ হয়ত অক্ষেপ করে বলে, আবার কেউ বলে হতাশায়। কিন্তু এত দীর্ঘ সময়ের ব্যপ্তিকালে শিক্ষার্জন করে আসা একজন শিক্ষার্থীর এমন আক্ষেপ বা হতাশা সত্যিকার অর্থেই একটি ব্যক্তি জীবন, একটি পরিবার, একটি সমাজ এবং সর্বোপরি একটি দেশের জন্য অনেক বড় ধরনের হুমকি। সত্যিকার অর্থে এখনকার সমাজে শিক্ষার্জন পরিমাপ হয় অর্থের মাপকাঠিতে। একজন শিক্ষার্থী তার জীবনের মূল্যবান সেই ২০ টি বছর অতিবাহিত করছে একটি ভাল চাকুরী লাভের আশায়। কিন্তু আসলেই কি সে তার আখাংকিত চাকুরী পাচ্ছে?...

একজন ফেসবুক সেলিব্রেটির একদিন

সকালে ঘুম হইতে উঠিতে উঠিতে সচরাচর সকাল দশটা বাজিয়া যায় পথিকের। কিন্ত গত কিছুদিন ধরিয়াই তাহাকে প্রতিদিন সকাল আটটার আগেই ঘুম হইতে উঠিতে হইতেছে। রাত জাগিয়া দেশ ও জাতির জন্য মহা গুরুত্বপূর্ণ কাজ করায় এত তাড়াতাড়ি ঘুম হইতে উঠিতে সচরাচর কোন ইচ্ছাই হয় না পথিকের কিন্ত তাহার বড় বোন এই বাসায় বেড়াইতে আসিবার পর হইতে সে এই গভীর সমস্যায় পতিত। শুধু সমস্যা না , যাহাকে বলে গুরুতর সমস্যা। পথিকের বোনের ৪ বছর বয়সী ছেলে রুদ্র সকাল ৯টা হইতেই তাহার ঘরে প্রবেশ করিয়া “মামা মামা চকলেট খামু” বলিয়া চিৎকার শুরু করে। তা করুক, ইহা তাহার বাক স্বাধীনতা, মৌলিক অধিকার। কিন্তু সমস্যা...

walgreens pharmacy technician application online

ব্লগার হত্যার পিছনের মূল কারণ :নাস্তিকতা নাকি ধর্মকে ব্যবহার করে খুনের বৈধতা

সম্প্রতি কালের সব থেকে বেশী আলোচিত বিষয় ব্লগ-ব্লগার এবং নাস্তিকতা।ব্লগ হচ্ছে এমন একটা ওয়েব সাইট যা দৈন্দিন দিন লিপি হিসাবে ডাইরীর মত করেই একজন ব্যক্তি তার মতামত লিখে ব্যবহার করতে পারে শুধু মাত্র নির্দিষ্ট ব্লগ ওয়েব সাইট গুলাতে রেজিষ্ট্রেশন করে বা নিজস্ব ব্লগ ওয়েব সাইট খুলে।আর যারা মুলত ব্লগে লিখে তাদেরই ব্লগার বলার হয়।ব্লগে সাধারনত ব্যক্তিগত বিষয় অভিজ্ঞতা থেকে যে কোন কিছু লিখে তা অন্যের সাথে শেয়ার করা।এখানে আপনি ফেইসবুকের মত বরং আরো সুন্দর করে পোস্ট দেয়া তো বটেই আরো মিডিয়া ফাইল এখানে আপলোড দিতে পারবেন। এর জন্যে আপনাকে ওয়েব কোডিং যেমন – HTML, CSS, Javascript, Php জানতে হবে না।... accutane prices

লেবুর শরবত, একটি সম্পর্ক এবং নির্মম একটি রসিকতা

মালিবাগ রেল গেট থেকে খিলগাঁয়ের দিকে যেতেই রাস্তার ডানদিকেই পড়ে মিলন হেয়ার কাটিং এন্ড সেলুন। সেই দোকানের নরসুন্দর রুবেল মিয়া আজ বেশ সকালবেলায় দোকানের সামনে এসে হাজির হয়েছে। দোকানের মালিক মিলন তখনও গভীর ঘুমে। গত কিছু দিন ধরেই রুবেল সকাল ৮ টার আগেই দোকানের আশেপাশে ঘুরঘুর করে। সবাই জানে যে সে মিলন হেয়ার কাটিং এর কর্মচারী তাই সাত সকালে দোকানের সামনে ঘোরাঘুরিতে কেউ কিছু মনে করে না। অবশ্য বিনা কারনে সাত সকালে রাস্তার মোড়ে ঘোরাঘুরি করার মত মানুষ রুবেল না। সকাল বেলা রাস্তার মোড়ে উপস্থিত হবার পিছনে তার একটা উদ্দেশ্য আছে। প্রতিদিন সকালে গার্মেন্টসের মেয়েরা দল বেধে সব কাজে যায়।...

Downloads4

কোথায় গিয়ে থামবে এই লাশের মিছিল?

অনলাইন জুড়ে আজ শোক। অনন্ত বিজয় দাস কে নিয়ে কথা, আলোচনা। এর আগে অভিজিৎ রায়, বাবু ভাই আমার পরিচিত ছিলেন, তাদের লেখা আমি নিয়মিত পড়তাম। বাবু ভাইয়ের সাথে আলাপ ও হয়েছে কয়েকবার। কিন্তু অনন্ত বিজয় দাস সম্পর্কে আমি কিছুই জানতাম না বলে তার ব্লগগুলো ঘাটাঘাটি করলাম। অনেকেই হয় তো জানেন না অনন্ত সহ তার নয় সহযোদ্ধা ২০০৮ সালে মরণোত্তর চক্ষু দান করেছিলেন। অনন্ত কিন্তু তার চোখগুলো দানের ক্ষেত্রে আস্তিক নাস্তিক ভাগ করেন নি। ধর্মের দোহায় দিয়ে এমন মানবতাবাদী মানুষটিকেই কিনা খুন করল ধার্মিকেরা? আমি ভাবছিলাম, তাকে যেভাবে কুপিয়ে হত্যা করা হয়েছে, তার চোখ গুলো কি অক্ষত আছে? কোন মানুষকে তার...

খুন করব

খুন করব আমি। একটা একটা করে মারব আমি। শার্টের কলার ধরে ঘাড়ে চাপাতির একটা কোপ। কিছু বোঝার আগেই পড়ে যাবে। নিচু হয়ে আমি তার জামাতেই মুছব রক্ত। হাতে নিয়ে অস্ত্র, চোয়াল করে শক্ত আমি হেঁটে যাব। নির্বাক তাকিয়ে রবে পুলিশ। আমার কখনও বিচার হবে না। জঞ্জাল সাফ করব আমি। জৈব বর্জ্য সব। খুনের আগে আমি কইব ‘তুই মানুষ না- জড় জঞ্জাল। তোর নাই অধিকার জীবের বেশে থাকার। বিদায়।’ আফসোস, মানুষ হয়ে জঞ্জাল ঝাড়ো তবে তা দোষ। জঞ্জাল হয়ে মানুষ মারো তবে কোন ত্রুটি নাই। আসো ডুগডুগি বাজাই। -মিনহাজ উদ্দিন শিবলী। ২৮/০৪/২০১৫ (আর এভাবেই তারা খুন করে যায়। আমি সন্ত্রাসকে ভয়...

না মেলা কিছু হিসাবের গল্প…

শেরেবাংলা স্টেডিয়ামের গ্র্যান্ডস্ট্যান্ডের ছাদে বসে ছিল ওরা, পা ঝুলিয়ে। একটু আগে তামিমের হাফ সেঞ্চুরি হইছে, মর্দে মারখোর পাকিস্তানী জওয়ানদের বিধ্বংসী বোলিং লাইনআপরে ল্যাড়ল্যাড়া ধ্বজভঙ্গ বানায়া নাকের জল চোখের জল একাকার কইরা ছাড়ছে এই পোলা। নরমাল গ্যালারিতে না বসে এমন বিচিত্র জায়গায় বসার কারন হল জুয়েল আর মুশতাক ভাই। কেউ কাউরে ছাড় দিবে না। মুশতাক ভাই গম্ভীর গলায় বললেন, আমার স্ট্যান্ডের হইল স্টেডিয়ামের সেরা। শুইনা জুয়েল তেলেবেগুনে জ্বইলা উঠলো, “আমার স্ট্যান্ডে গেছেন কোনোদিন মিয়া? কইলেই হইল?” যুদ্ধ বাইধা যায় আরকি… এই দুইটা স্ট্যান্ড ভয়ংকর আবেগের জায়গা মানুষ দুইটার জন্য, স্বাধীন বাংলাদেশ যে দয়াপরাবশ হয়ে কেবল ওদের নামে স্টেডিয়ামের দুইটা গ্যালারীর নাম...

গ্লোবাল খেয়ে লোকাল ভাবনা, প্রসঙ্গঃ নারীর পর্দা প্রথা

চা, কফি সফট ড্রিংক্স, জুস, কিংবা এনার্জি ড্রিংক্স; এইসব কি বঙ্গীয় খাবার নাকি লাচ্ছি, মাঠা কিংবা লাবাং? পাশাপাশি সব কিছু খেতে কোন সমস্যা হচ্ছে আপনার? কিংবা আমার? আমাদের? হচ্ছে না একটুও খুব সহজেই আমরা সব মানায় নিয়েছি, গ্রহণ করেছি সত্যকে সহজে। আপেল, কমলা অথবা ব্ল্যাকবেরী কি আমাদের ফল কিংবা হালের স্ট্রবেরী? নাকি বরই, পেয়ারা, আতাফল আর ঢেউয়া -লটকন এইসব আমাদের ঐতিহ্যবাহী ফল? কই সবই তো নির্দ্বিধায় খাচ্ছি একসাথে! ভালকে সত্যকে গ্রহণ করতে কোন সমস্যা হয় নি বাঙালী নৃতাত্ত্বিক জনগোষ্ঠীর। ফ্রেন্স ফ্রাই আর ফ্রাইড চিকেন কিংবা চাইনিজ আর থাই ফুড এই তল্লাটের ভোজন রীতির অংশ? আমি জানতাম খিচুড়ি, তেহেরি কিংবা ভর্তা...

কামারুপুত্রের আফসোস এবং কিছু রূপকথার গল্প…

হাসান জামান শাফি নামের একজনের ওয়ালে একটা লেখা পড়লাম। কামারুরে তিনি বাপ বইলা সম্বোধন করছেন, নিষ্পাপ নিরপরাধ ইসলামী সমাজের আদর্শ তার বাপরে নাকি হাসিনা সরকার আরেকজনের অপরাধে মেরে ফেলছে। ওই যে এই কাদের সেই কাদের না টাইপের ব্যাপার আর কি, উনি বলতে চাইতেছেন এই কামারুও সেই কামারু না… বেশ আবেগঘন একটা লেখা, পাবলিকের ইমোশনে ধাক্কা দেওয়ার মত সব উপাদানই আছে। আরেক রাজাকার মীর কাশেম আলির মেয়ে সুমাইয়া রাবেয়াও তার সাথে গলা মিলায়া বলতেছেন আমার বাপ যুদ্ধাপরাধী হইতেই পারে না, সব মিডিয়ার সৃষ্টি, প্রোপাগান্ডা মাত্র। কামারুজ্জামানের ব্যাপারে উনারা বিস্ময় প্রকাশ করে বলতেছেন ১৯ বছরের একটা কিভাবে এহেন অত্যাচার আর নৃশংসতা চালাইতে...

তবু বাইতে হবে খেয়া পাড়ি দিতেই হবে যতই ঝড় উঠুক সাগরে‬…

ভাষার মাসে খুন হলেন অভিজিৎ, স্বাধীনতার মাসে খুন হলেন ওয়াশিকুর বাবু। বাংলা ভাষায় নিজ নিজ মত প্রকাশের স্বাধীনতাটুকু এদেশে নেই। বাংলাদেশ একটি ‘স্বাধীন রাষ্ট্র’। স্বাধীনতা তবে কাদের জন্য??? বিষয়টি নিয়ে ভাববার সময় এসেছে বটে। মুক্তমনা লেখক,ব্লগার অভিজিৎ রায়ের হত্যার ১মাস ৪ দিনের দিন আরেকজন ব্লগার ওয়াশিকুর বাবুকে কুপিয়ে হত্যার খবর পেলাম। ব্লগার হত্যার খবর এখন কেমন জানি স্বাভাবিক হতে শুরু করেছে, যেন এটাই নিয়ম। হবে নাই বা কেন? অভিজিৎ হত্যার এত এত প্রমান থাকা সত্ত্বেও কিছুই কি হয়েছে এই এক মাসে?? কিছুদিন গ্রেপ্তারের নাটক করে ছেড়ে দেয়া হবে। ওয়াশিকুরের খুনের পরিকল্পনা হয়েছে চট্টগ্রামের হাটাজারির একটি মাদ্রাসায় বসে। খুনীরা মাদ্রাসার ছাত্র।... venta de cialis en lima peru

ইন্ডিয়াস ডটার রিভিউঃ প্রেক্ষিত বাংলাদেশ

সম্প্রতি বিবিসির প্রযোজনায় নির্মিত “ইন্ডিয়াস ডটার” ডকুমেন্টারিটি দেখলাম। ২০১২ সালে দিল্লীর আলোচিত ধর্ষণ কান্ড নিয়ে নির্মিত ছবি এটি। ফিকশন, ডকুমেন্টারি মিলিয়ে জীবনে কম সিনেমা দেখিনি। কিন্ত বলতে বাধ্য হচ্ছি আর কোন সিনেমা এতটা “শকিং” অনুভূতি তৈরী করেনি যতটা না  তৈরী করেছে এই ছবিটি। ব্রিটিশ পরিচালক লেসলি উডউইন বেশ দক্ষতার সঙ্গেই সেদিনের ঘটনা প্রবাহ ও  ঘটনার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন ব্যক্তির বক্তব্যকে তুলে ধরেছেন। ভারতবর্ষে সংখ্যা গরিষ্ঠ পুরুষের মানসিকতা , নারী্র প্রতি দৃষ্টিভঙ্গিকে মুন্সিয়ানার  সঙ্গে তুলে ধরার জন্য পরিচালকেরও কৃতিত্ব  প্রাপ্য। এটি এমনই এক  ছবি যা প্রত্যেক ভারতীয়র  দেখা বাধ্যতামূলক করা উচিত অথচ বিস্ময়কর ভাবে ভারত  সরকার ইতমধ্যেই তাদের দেশে ছবিটির  প্রচার...

ডেইলি স্টারের পাকিস্তান ডে বা কিছু বিস্মৃত যন্ত্রণার গল্প…

এরাম রেস্টুরেন্টে বসে আড্ডা দিতেছিল ওরা, হঠাৎ কোথেক্কে কাজী কামাল উদ্দিন এসে হাজির। ক্ষেপে আছে বোঝাই যাচ্ছে, আজাদের দিকে তাকায়া বলল, ঘটনা শুনছো মিয়া? বিসিবি তো পাইক্কাগুলার প্রস্তাব মাইনা নিছে। হালাগোরে প্লেনের ভাড়া দিবো, যাওয়া আসার ভাড়া… আজাদ বললো, কন কি? ফাইজলামি নাকি? ওরা যা কইব, সেইটা মানতে হইব? বিসিবির সমস্যা কি? পাশ থেইকা রুমি বললো, হারামজাদারা নিজেদের দেশটারে বানায়া রাখছে শিটহোল, সেকেন্ডে সেকেন্ডে গ্রেনেডের উর্বর ফলন হয়, দুনিয়ার কোন দেশ খেলতে যায় না। ফকিরের মত আরব আমিরাতে খেইলা বেড়াইতেছে, ওগোর যে খেলার সুযোগ দিছি, এইটাই তো বহুত, আবার লাভ চায় কোন হিসাবে? মিসকিনের বাচ্চাগুলার সাহস দেখছো? শাহাদাত চৌধুরী থামান...

clomid over the counter
metformin synthesis wikipedia

লজ্জাগাঁথা…

দুই পায়ে আটটা অপারেশন হইছে মানুষটার, আটটা… আপনার পায়ে আটবার অপারেশন করার বহু আগেই আপনি পঙ্গু হয়ে যাইতেন। একটা অপারেশনের পরেই ঠিকভাবে হাঁটতে পারে খুব কম মানুষ…সেও যে ঠিকঠাক পারে , তা কিন্তু না। প্রতিবার রান আপের পরেই তার হাঁটুতে পানি জমে, নী ক্যাপ লাগানো হাঁটু দুটো ফুলে যায়, দেখতেই ভয় লাগে, তার যন্ত্রণা হয় কিনা সেটা কখনো ভেবে দেখার সময় হয়নি। পায়ের পানি সিরিঞ্জ দিয়ে বের করে ফেলতে হয়, অনেক সময় খেলা চলাকালীনই কাজটা করে সে, পৃথিবীর ইতিহাসে আর কোন ক্রিকেটারকে এমন কাজ করতে হয়নি… আর ১০টা মানুষের মত হইলে সেও হয়তো থাইমা যাইত। কিন্তু সে থামে নাই, থামতে...

irbesartan hydrochlorothiazide 150 mg
missed several doses of synthroid