Category: ভ্রমণ এবং অভিযান

ছোট গল্প – স্রোতের বিপরীতে

(১)  পল্লব হালদার ফটোগ্রাফিটা শুরু থেকেই ভাল করতেন। কবি মন নিয়ে ঝোলা কাঁধে বেড়িয়ে পড়তেন এদিক সেদিক। সে ঝোলায় খাতা-কলম এর বদলে থাকতো ক্যামেরা- ডিএসএলআর। আমাদের হ্যামিলনের বাঁশিওয়ালাটা শুধু জাত চেনাতেই পারছিলেন না। পরিচিতি বাড়াতে তাকে অগত্যা পরিচিত মহলের সুন্দরী কন্যাদের দিকেই ফিরতে হলো। শাটার পড়তে লাগলো হেমন্তের শেষ বৃষ্টির পর শীতের মত হুড়মুড় করে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের বদৌলতে সে খ্যাতি ছড়ালো মাল্টি লেভেল মার্কেটিং এর মতো। ‘অসাধারণ ফটোগ্রাফার’ মন্তব্যের সংখ্যা স্বীয় ভুখন্ড অতিক্রম করতেই তার মনে হলো- এসব তো আত্মপ্রতারণা! কাব্যরসের যথেষ্ট উপাদান পেলেও কবির কাব্যগাঁথা রচনা হচ্ছিলো না। ‘এখানে গল্প কোথায়?’ ভাবলেন, হালের স্রোতে গা না ভাসিয়ে তাকে...

ঝাড়খন্ডের দিব্য, রিনকি আর আমার আমিত্ব  !

  এ মাসের প্রথম দিকে নয়াদিললি থেকে রাজধানি এক্সপ্রেসে চাপলাম হাওড়া ফিরবো ঢাকার উদ্দেশ্যে। চমৎকার দ্রুতগামি ভারতিয় ট্রেন জার্নিতে মনটা ভরে গেল অল্পতেই। ট্রেন ভ্রমণে জানালার পাশে বসে বাইরের মানুষ আর প্রকৃতি দেখা আমার জীবনের অন্যতম উপভোগ্য আনন্দ। সন্ধ্যার প্রাক্কালে দ্রুতগামি ট্রেনটি হঠাৎ থেমে গেলো ঝাড়খন্ডের দু’ফসলি জমির মাঝে। অনেকক্ষণ দাঁড়িয়ে থাকাতে লাইনের পাশে ঘাস কাটায় ব্যস্ত বৃদ্ধা নারীর দিকে তাকালাম আমি। আমাকে উদ্দেশ্য করে কি একটা অবোধ্য কথার সূত্র ধরে হাতের ব্যাগটি নিয়ে নেমে গিয়ে তার পাশে দাঁড়ালাম আমি। হিন্দি ভাষিক পঞ্চাশোর্ধ এ নারী জানালেন মহিষের জন্য ঘাস কাটছে সে, একটু দূরেই দেখালো তার মহিষের “তাবেলা” আঙুল দিয়ে। হিন্দিতে...

স্বর্গেশ্বরী সিলেট

ঘুরে এলাম বাংলাদেশের ছোট্ট ভূখন্ডের মাঝে স্বর্গরাজ্য সিলেট থেকে। সিলেট সম্পর্কে যদি বলতে হয়,  প্রথমে এক কথায় বলতে হবে – অসাধারণ শব্দটার এত সুন্দর উদাহরণ এর আগে আমি পাইনি। সত্যি অসাধারণ এখানকার নদী – প্রকৃতি আর এখানকার মানুষ। ঢাকা শহরের পরে এতটা আপন অনুভব আমি এই শহরেই পেয়েছি। বাংলাদেশকে যদি তুমি জানতে চাও, জীবনে একবার হলেও সিলেট তোমাকে যেতেই হবে। এই সুরমা – কুশিয়ারা, আদিগন্ত বিস্তৃত সবুজের সমারোহে ভরা চা বাগান আর পাহাড়ী পথ, জাফলং – মারি নদী – এসব না দেখলে তোমার বাঙালি জন্ম বৃথা। বাংলাদেশকে যদি জানতে চাও, মারি নদীর স্বচ্ছ জল একটা বার তোমাকে আস্বাদন করতেই হবে...

কোনো বেধর্মী যেন তৃতীয় পক্ষ হতে না পারে !!

চট্রগ্রামে গিয়ে প্রথম নামলাম জি.ই.সি’র মোড়ে । জীবনে প্রথমবার চট্রগ্রামে পা রাখলাম । উদ্দেশ্য ছিল চাকরীর ইন্টারভিউ । ভোর ৫.৩০ এ গিয়ে যখন নামি, তখন সেখানে মাত্র ১টা চায়ের টং খোলা ছিল আর চারপাশটা ছিল বেশ নিরব । ভোরের সূর্য কেবল উঠি উঠি করছে তখন । নাইট কোচে ভালো ঘুম হলনা বলে পরপর দুই কাপ কড়া লিকারের চা পান করে নিলাম। প্রথম সিগারেটটা ধরিয়েছি সবেমাত্র, তখন ৫.৪৫ এর মতন বাজে । সিগারেট ফুঁকছি, এর মাঝে হঠাৎ করে খেয়াল করলাম আমার অদূরেই কয়েকজন বোরকা-পরিহিত মহিলারা এসে দাঁড়ালো । এই সাত সকালেই বোরকা পড়া দেখে কিছুটা বিস্মিত হলাম । তবে কিছুক্ষন যাবার...

বঙ্গবন্ধু স্মৃতি জাদুঘরে একদিন।

“যতকাল রবে পদ্মা – মেঘনা – গৌরী- যমুনা বহমান ততকাল রবে কীর্তি তোমার শেখ মুজিবুর রহমান। “ ধানমন্ডি ৩২ নাম্বার। মেইন রোড থেকে কিছুদূর গিয়ে ডান দিকে একটা ব্রীজ। ব্রীজ পেরোলেই সাইন বোর্ড ঘোষণা করছে সামনেই বঙ্গবন্ধু স্মৃতি জাদুঘর। গেট এ চেক আপের কড়াকড়ি একটা প্রশ্নই বারবার মনে করিয়ে দেয় – সেদিন তোমরা কোথায় ছিলে? আজকের সতর্কতাটা যদি উনচল্লিশ বছর আগে দেখাতে তাহলে হয়ত বঙ্গবন্ধু আজ জীবিত থাকতেন। যাই হোক, মোবাইল জমা দিয়ে কার্ড নিয়ে আমরা ঢুকে গেলাম জাদুঘরের ভিতর। দুটো অংশ সেখানে।  একটা বঙ্গবন্ধুর বাড়ি, একটা সম্প্রসারিত জাদুঘর। বাড়িটাতে ঢোকার সময় প্রথমেই যে ঘরটা চোখে পরে তা হল রান্নাঘর।... viagra en uk

সায়েন্স ফিকশন – একদিন সত্যের ভোর…।

কম্পিউটার স্ক্রীনটার দিকে অবাক চোখে চেয়ে আছে অনামিকা। বাংলাদেশ নামক সবুজ একটা দেশের রাজধানী ঢাকার ভিকারুন্নিসা নূন স্কুলে পড়ে সে। এবার দশম শ্রেণীতে উঠল। স্বপ্ন সাংবাদিকতায় পেশা গড়ার। অনেক বড় হবে সে। প্রতিদিন স্কুল থেকে ফিরে একবার ল্যাপটপটা খুলে না বসলে অনামিকার শান্তি হয়না। প্রতিদিনের পড়াশুনার খুঁটিনাটি বিষয় যেমন সে দেখতে ভালোবাসে ইন্টারনেটে, তেমনি ফেসবুকে কাজ করতেও মন্দ লাগে না। আর ফেসবুক কি আজ আর সেই ফেসবুক আছে? শুধু আড্ডা দেয়াই নয়। অনামিকার বয়সী ছেলেমেয়েরা ফেসবুক দিয়ে এখন দেশ পাল্টে দিতে পারে। মূমুর্ষ রোগীর রক্ত যোগাড় করা থেকে শুরু করে রাজাকারবিরোধী আন্দোলন – সবই তো হয় আজকে ফেসবুকের নীল দুনিয়ায়।...

ovulate twice on clomid

বাংলাদেশের পথে..

সোনালি সবুজ বাংলার রূপ খুব কাছ থেকে দেখার সৌভাগ্য হয়েছে আমার। চিরকালের বাঁধাধরা নিয়মের গন্ডি পেরিয়ে কয়েকটা দিন মুক্ত হাওয়ায় নি: শ্বাস নেবার জন্য দরকার একটু গ্রাম থেকে ঘুরে আসা। বাংলাদেশের সৌন্দর্যকে একটু ছুঁয়ে দেখা। অনেক জীবনের দামে এই ছায়া সুনিবিড় শান্তির নীড় আজ আমাদের। প্রকৃতিরাণীর অপরূপ খেয়ালে সাজানো বাংলার পথে প্রান্তরে তাই জীবনের ছোঁয়া ঘুরে বেড়ায়। হাত বাড়ালেই সে জীবনকে ছোঁয়া যায়, ভালোবাসতে জানলেই সে জীবনকে ভালোবাসা যায়। সোনার বাংলাদেশ তার রুপের পসরা সাজিয়ে অপেক্ষা করে তার সন্তানকে বুকে জড়িয়ে নেবার। বাংলা মায়ের ভালোবাসা, এর সাথে আর কিছুর তুলনা হয়না কখনই…।   আন্ত:নগর সুন্দরবন এক্সপ্রেস ছুটে চলে বাংলার পথ...

zithromax azithromycin 250 mg
can you tan after accutane

ছয়দিনের ভ্রমণলিপিঃ রিমিনি, ইতালি (পর্ব ১)

এক মাস আগে জানানো হল, অফিস ট্যুরে ইতালি যেতে হবে। অফিসিয়াল মিটিং আর ট্রেনিং আছে । আমার অফিসের সদর দফতর আবার ক্যালিফোর্নিয়া বা জেনেভাতে নয় ; মিকেলেঞ্জেলো, বার্নিনি, বত্তিচেল্লি, রাফায়েল, লিওনার্দো কিংবা বলা যায় দলচে এন্ড গাব্বানা, ভারসাচে, গুচ্চি, প্রাদা, জর্জো আরমানি আর সাল্ভাতোরে ফেরাগামোর দেশে  |ভেটকি| । এটাই আমার প্রথম বৈদেশ ভ্রমণ । তাই দেশের বাইরে যেতে হলে কী কী নিয়ম কানুনের ভিতর দিয়ে যেতে হবে, আমি জানতাম না । যেহেতু অফিস থেকেই সমস্ত কাগজপত্র ফিল-আপ করার মহান দায়িত্ব পালন করা হয়েছে, তাই আমি এটাও জানতাম না যে ভিসার জন্য কেমন করে এপ্লিকেশন ফর্ম পূরণ করতে হয় । ফলাফলঃ...

পরনিন্দা বা ভ্রমণের খেরোখাতা

হুট করে পাখি দেখতে আর তার ছবি তুলতে যাবার প্রস্তাব এলো জনৈক শিক্ষকের কাছে থেকে। আমরা দুইজন প্রায় রাজি হয়ে গেলাম। প্রায় কথাটা বলার কারণ এই শিক্ষকের স্বার্থপরতার জন্য প্রায় প্রতিবারই আমরা কানে ধরি- ‘আর না! স্যারের সাথে আর যদি কোনদিন বাইর হইসি তো নাম পাল্টায়া ফেলবো!’ আমরাও মানুষ- তাই স্যারের সাথে আবারো বের হই, আবারো কান ধরি! আমাদের নাম কিন্তু বদলায় না! এখানে আমরা মানে আমি- নিতান্তই বেকার মানুষ- পত্রিকার জন্য ফরমায়েশি কলম ঘষা ছাড়া আর একটা কাজই পারি- সেটা পাখির ছবি তোলার জন্য ঘুরে বেড়ানো। আর আরেকজন সজীব নজরুল হৃদয়- নাহ, এখানে তিনজন নয়, তিনজন মিলিয়ে একজন (আকৃতিতেও...

সাবধানের মার নাই

অনেকে না সবাই হয়তো  ‘কঠিন প্রশিক্ষণ সহজ যুদ্ধ’  টাইপ  কোন উক্তি যেকোন সেনানিবাসের পাশ দিয়ে হেঁটে যাওয়ার সময় দেখেছেন। আসলেই তাই প্রশিক্ষণ যত মজবুত হবে যুদ্ধ ততই সহজ মনে হবে। বাস্তব জীবনের সকল প্রকার যুদ্ধের ক্ষেত্রেই এই উক্তিটি যথার্থরূপে খাটবে তাই বাস্তব সম্মত। সম্প্রতি আমরা সকলই আহসানউল্লাহ ভার্সিটির ৬ জন ছাত্র সেন্টঃ মারটিনের উত্তাল সমুদ্রে প্রান হারানোর কথা জেনেছি। অনেক অনেক ধরণের কাদা ছুঁড়াছুঁড়ি ইতিমধ্যেই করে ফেলেছেন। মৃত্যু সাধারণত আমাকে অতটা বিচলিত করে না, কখনই করে নি। মানব সভ্যতার ইতিহাস সর্বত্রই রক্তিম লাল।  তবে খুব নিকটাত্মীয় বা আপন কেউ মারা গেলে একটু খারাপ আর সবার মতো আমারও লাগে এইটা স্বাভাবিকই বটে। কিন্তু যদি রানা প্লাজার মত হত্যাযজ্ঞ হয়...

“WHAT A WONDERFUL WORLD!!”

সূর্য মামা উকি দেয়ার আগেই ট্রেন এ চেপে বসলাম। গন্তব্য ইতালির চিঙ্কুয়ে ট্যাঁররের করনেলিয়া বিচ। জানালার সাইডের সিটে বসে ইতালির কান্ট্রিসাইড উপভোগ করছিলাম। রাতে না ঘুমানোর কারণে হালকা ঝিমুনি পাচ্ছিল। কিন্তু প্রকৃতির সেই অপুরুপ শোভা আমাকে ঘুমানোর অনুমতি দিল না। এদিকে ট্রেন চলছে ১৩০ থেকে ১৫০। হয়তবা তার থেকেও বেশী। আর অপরদিকে পূর্ব দিগন্তে সূর্য ও মেঘ ব্যস্ত যার যার আদিপত্ত বিস্তারে। কেন জানি আমি মুগ্ধ হয়ে গেলাম তাদের এই অদ্ভুত খেলা দেখে। একদিকে মেঘ ও সূর্যের আদিপত্ত বিস্তারের খেলা, সাথে ট্রেন ইতালিয়ার দ্রুত ছুটে চলা আর কানে আইপডে বাজছে লুইস আর্মস্ট্রঙের “WHAT A WONDERFUL WORLD”। সবকিছু মিলিয়ে মুহূর্তে প্রকৃতির এক...

cialis new c 100