ডেইলি স্টারের পাকিস্তান ডে বা কিছু বিস্মৃত যন্ত্রণার গল্প…

289

বার পঠিত

এরাম রেস্টুরেন্টে বসে আড্ডা দিতেছিল ওরা, হঠাৎ কোথেক্কে কাজী কামাল উদ্দিন এসে হাজির। ক্ষেপে আছে বোঝাই যাচ্ছে, আজাদের দিকে তাকায়া বলল, ঘটনা শুনছো মিয়া? বিসিবি তো পাইক্কাগুলার প্রস্তাব মাইনা নিছে। হালাগোরে প্লেনের ভাড়া দিবো, যাওয়া আসার ভাড়া…
আজাদ বললো, কন কি? ফাইজলামি নাকি? ওরা যা কইব, সেইটা মানতে হইব? বিসিবির সমস্যা কি?

পাশ থেইকা রুমি বললো, হারামজাদারা নিজেদের দেশটারে বানায়া রাখছে শিটহোল, সেকেন্ডে সেকেন্ডে গ্রেনেডের উর্বর ফলন হয়, দুনিয়ার কোন দেশ খেলতে যায় না। ফকিরের মত আরব আমিরাতে খেইলা বেড়াইতেছে, ওগোর যে খেলার সুযোগ দিছি, এইটাই তো বহুত, আবার লাভ চায় কোন হিসাবে? মিসকিনের বাচ্চাগুলার সাহস দেখছো?

শাহাদাত চৌধুরী থামান ওদের, আরে থামো থামো, ঘরের দরজায় ফকির আইসা “দুইডা ট্যাকা দ্যান” বইলা কান্নাকাটি লাগাইলে কি তুমি মুখের উপ্রে দরজা লাগায়া দিতে পারবা? শুয়োরের বাচ্চাগুলা একাত্তরে যেই দেশটারে বুটের নিচে পিষা নিশ্চিহ্ন কইরা দিতে চাইছিল, আজকে সেই দেশের পায়ের কাছে পইড়া ফকিরের মত বলতেছে, “যাওয়া-আসার ভাড়াটা পর্যন্ত নাই, আল্লাহর ওয়াস্তে ভিক্ষা দেও ভাইয়েরা,” বিষয়টা বুঝো… দিলাম ভিক্ষা পাইক্কা ফকিরগুলারে, লজ্জা-শরম তো আর নাই ওগোর… অবশ্য মারখোর ছাগলের আবার মানসম্মান কি?

হঠাৎ পাশ থেকে আলতাফ মাহমুদ বলে উঠলেন, আচ্ছা, আমারে আগে এইটা বুঝাও তো, বাংলাদেশের পত্রিকাগুলায় পাকিস্তানের ক্রিকেট আর ক্রিকেটার নিয়া এতো মাতামাতি ক্যান? ওইদিন বদলে যাওয়ার শ্লোগান দেওয়া প্রথম আলো পত্রিকারে দেখি পাইক্কা ইমরান খানেরে নিয়া আকিব জাভেদের তিন কলামের বিশাল এক সাক্ষাৎকার ছাপছে,অনুবাদের ভাষা পইড়া যে কেউ মনে করতে পারে, এই পত্রিকা লাহোর থেইকা প্রকাশিত হয়…

সাংবাদিক শাহাদাৎ চৌধুরী ঠাণ্ডা গলায় বলেন, আর বইলেন না ভাই, মাথায় আগুন ধইরা গেছিল সেইদিন। এই পাইক্কা হারামজাদা রাজাকার কাদের মোল্লার ফাঁসিতে নিন্দা জানায়া শোক প্রস্তাব আনতে চাইছিল, আর এরে কিনা সেই কলামে পরিচয় করায়া দেওয়া হইল গ্রেট লিডার হিসেবে, তারে লিডার বলতে চাইলে নাকি এলটা বড় হাতের লিখতে হবে। অনুবাদকারী লিডার খুঁজতে শেষমেস পাকিস্তান নামের শিটহোলে গিয়া মুখ ডুবাইল?

এতক্ষণে মুখ খোলে বদি, এইটা আর নতুন কি? গ্রুপ পর্বের শেষে একদিন বিশ্বকাপে পাকিস্তানের সম্ভাবনা নিয়া শিরোনাম লিখছিল, ফিরবে কি কোণঠাসা বাঘ? বুঝেন অবস্থা, মারখোর ছাগলরে এরা বাঘ বানায়া দিছে…

পিছন থেইকা জুয়েল বললো, আর আফ্রিদির লাস্ট ম্যাচের রিপোর্ট করতে গিয়া রিপোর্টারের মনে হয় অর্গাজম হয়ে গেছিল। লাইনে লাইনে সে কি আবেগ… চামেচিকনে উপাধি দিয়া দিছে বিনোদনের ফেরিওয়ালা বইলা, কেন রে ভাই, দুনিয়ায় বিনোদনদায়ী আর কোন ব্যাটসম্যান নাই? চারশ ম্যাচ খেইলা যেই ব্যাটসম্যান কুইতা কুইতা আট হাজার রান করে, সেই পিস অফ শিটরে নিয়া এতো ফালাফালি ক্যান?

পাশ থেকে ফোড়ন কাটে রুমি, আরে বুঝলেন না? সে তো আসলেই বিনোদনের ফেরিওয়ালা। ডাক মারার অসাধারন সৃজনশীল সব উপায় সে বাইর করছে, ক্রিজে নাইমাই চোখ বন্ধ কইরা হাত-পা ঘুরায়া মাইর, দর্শক তো তব্দা, বলটা মনে হয় এইবার দেশের বাইরে গিয়া পড়লো, শেষমেস কি হইল? ক্লিন বোল্ড… তিনটা স্ট্যাম্পই উপড়ায়া গেছে, মাটিতে গড়াগড়ি খাইতেছে… এইরাম পিউর ক্লাসিক বিনুদুন আপনি আর কই পাইবেন?

আজাদ কষ্টমাখ স্বরে বললো, মাঝে মাঝে খুব কষ্ট লাগে,বুঝলা? এতো মানুষ মারা গেল, এই জমিনটারে পুড়ায়া কয়লা বানায়া দিল ওরা, তারপরও কিভাবে মানুষ একাত্তর ভুইলা যায়? কিভাবে পাকিস্তানের কথা উঠলেই বলে, পুরান ঘটনা এখনো মনে রাখার দরকার কি? ক্যামনে খেলার সাথে রাজনীতি মিশাইতে মানা করে? ক্যামনে পাকিস্তানের জন্য সফট কর্নার বোধ করে?ক্যামনে পাকিস্তান সমর্থন করে? এর লাইগাই কি এতো মানুষ জীবন দিল? অনেকে শুষিল সাজে, বলে, মুক্তিযুদ্ধ একসময় হইছে মানলাম, কিন্তু অতীত নিয়ে সবসময় খোঁচাখুঁচি করার দরকার কি? মুক্তিযুদ্ধ ক্যামনে অতীত হয়? ক্যামনে? হিসাব মিলে না বুঝলা, হিসাব মিলে না…

এক অস্বস্তিকর নীরবতা নেমে আসে আড্ডায়, ঠিক তখনই পাশের টেবিলে এক মধ্যবয়সী ভদ্রলোক বেশ গম্ভীর গলায় পাশের জনকে বলেন, মুক্তিযুদ্ধকে তো কেউ অস্বীকার করছে না, কিন্তু সেটা নিয়ে এতো কথা বলার কি আছে? আমরা খেলার মধ্যে রাজনীতি মেশাচ্ছি কেন? যেখানে সেখানে হুট করে আজাইরা মুক্তিযুদ্ধ, পাক-ভারত প্রসঙ্গ টেনে আনার দরকার কী?

ভদ্রলোকের সামনে তখন দেশের অন্যতম প্রধান দৈনিক ডেইলি স্টার খোলা, ঠিক মাঝে দুই পৃষ্ঠায় পাকিস্তানের প্রজাতন্ত্র দিবস উপলক্ষে ক্রোড়পত্র, পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরীফ আর প্রেসিডেন্টের সহাস্য ছবির মাঝে বড় করে লেখা, পাকিস্তান ডে…

কেন যেন জুয়েলের মনে হল, ডেইলি স্টারের সেই পাতাটা পরিহাস করছে ওদের, দেশের জন্য হাসতে হাসতে অমূল্য জীবন বিলিয়ে দিয়েছিল যে ক্র্যাক পিপলেরা…

missed several doses of synthroid

You may also like...

  1. সেই জুয়েল আর শা চৌ’দের সহযোদ্ধা আর ক্র্যাক প্লাটুনের অন্যতম এক সদস্য নাকি এই ডেইলি স্টার পত্রিকার প্রধান সম্পাদক মাহফুজ আনামের স্ত্রী!

    চেষ্টা করছি পুঁজিবাদী সমাজের ক্ষমতা নিয়ে। ভাল একটা পর্যবেক্ষণ তুলেছেন। কেবলই দীর্ঘশ্বাস

  2. অংকুর বলছেনঃ

    না ভাই, তাদের ঋন কোনদিন শোধ করা যাবেনা। সেইসব কথা তো ভুলেই আছি,উল্টা অপমান করতেছি উনাদের। কিছু আর বলার নাই। সবাই কর্পোরেট। টাকার কাছে আবেগ কিছুই না :sad: amiloride hydrochlorothiazide effets secondaires

  3. জন কার্টার বলছেনঃ

    সবাই পরিণত হয়েছে কর্পোরেট দাসে! একবুক দীর্ঘশ্বাস …

    irbesartan hydrochlorothiazide 150 mg

আপনার ই-মেইল ও নাম দিয়ে মন্তব্য করুন *

Question   Razz  Sad   Evil  Exclaim  Smile  Redface  Biggrin  Surprised  Eek   Confused   Cool  LOL   Mad   Twisted  Rolleyes   Wink  Idea  Arrow  Neutral  Cry   Mr. Green

You may use these HTML tags and attributes: <a href="" title=""> <abbr title=""> <acronym title=""> <b> <blockquote cite=""> <cite> <code> <del datetime=""> <em> <i> <q cite=""> <strike> <strong>

Heads up! You are attempting to upload an invalid image. If saved, this image will not display with your comment.

tome cytotec y solo sangro cuando orino
zovirax vs. valtrex vs. famvir
clomid over the counter
ovulate twice on clomid cialis new c 100