মনের ভেতর মন

201 half a viagra didnt work

বার পঠিত

“Why are you talking”?

পরীক্ষার হলে ম্যাম খেঁকিয়ে উঠলেন। দুজন ছাত্র কথা বলছিল। বোধহয় পেছনের ছেলেটা কিছু পারেনা। স্কুল-কলেজের গুরুত্বহীন পরীক্ষায়ই কত দেখাদেখি হয়, আর ভার্সিটিতে তো হবেই। এত শিক্ষিতা হয়েও ম্যাম এই স্বাভাবিক ঘটনায় চিৎকার চেঁচামেচি করছেন দেখে আমি একটু হতাশই হলাম।

আমি অবশ্য আরেকটা কারণেও হতাশ। পরীক্ষার কিছুই আমি পারিনা। আমার মনে হল, কাল রাতে আমি যা যা পড়েছি তা কোর্স টিচার আড়াল থেকে লুকিয়ে লুকিয়ে দেখেছেন এবং ঠিক তার উল্টো প্রশ্নগুলো দিয়েছেন। কিন্তু আমি সহজে মন খারাপ করিনা। আমি ভাল করেই জানি, আমার যে রেজাল্ট হবে তাতে আমাকে চাকরি দেবার ভুল কোন প্রতিষ্ঠান করবে না। বেকার যখন থাকতেই হবে, অভ্যাস টা আগের থেকেই করে নেয়া ভাল।

আমি এবার খাতার থেকে চোখ সরিয়ে পুরো হলটায় একবার চোখ বোলালাম। নিজেকে Invigilator বলেই কল্পনা করলাম। Invigilator দেরদায়িত্ব পালনের সময় চা দেওয়া হয়, আমায় অবশ্য এই দায়িত্ব পালনের জন্য এক কাপ চা দেবে না। আমার খুব ইচ্ছা করছিল ম্যাম কে বলি, “আমি এক কাপ চা খাব”। সাথে একটা সিগারেট হলে তো আরও ভাল। কিন্তু এই ইচ্ছা পূরণ হবে না। পরীক্ষার হলই বোধহয় একমাত্র স্থান যেখানে ইচ্ছা থাকে অনেক, পূরণ হয় খুব অল্প। তারপরও কত আশা নিয়ে আমরা যাই পরীক্ষা দিতে। কেউ দেখাতে যায় নিজের পাণ্ডিত্য, কেউ দেখাতে যায় অন্যের খাতা দেখে Full answer দেবার ক্ষমতা। আমি আমার চেহারা দেখাতে যাই, যদিও চেহারাটা সুন্দর না। আমার এতেও খুব একটা মন খারাপ হয় না, মন খারাপ হয় তাদের যারা আমার এই চেহারাটা সকাল সকাল দেখে।

চোখ বোলাতে বোলাতেই আমার একটা দিকে চোখ আটকে গেল। একটা মেয়ের দিকে। মেয়েটা এত সুন্দর!! আহা!! আমি হাঁ করে তাকিয়ে থাকলাম না। একটু অন্যদিকে তাকিয়ে আবার মেয়েটার দিকে তাকালাম। মেয়েটা তো আসলেই খুব সুন্দর। বারবার তো আর চোখের ভুল হয়না। আমি হারিয়ে গেলাম, চা-সিগারেটের ভুত মাথার থেকে চলে গেল। মাথায় এখন খালি মেয়েটাকে নিয়ে চিন্তা চলছে। আচ্ছা চা-সিগারেট যদি ভুত হয় তাহলে মেয়েরা কি পেত্নী হবে? সুন্দরী পেত্নী…

আমার হাতে কলম আছে, পরীক্ষার কিছুই পারিনা তাই কলমের কোন কাজ হচ্ছেনা। সে বেচারাও আমার মতই অলস হয়ে আছে। আমি তাই তাকে কাজে লাগাতে লাগলাম। মেয়েটার ছবি আঁকা শুরু করে দিলাম।

আমি ছবি খুব ভাল আঁকতে পারি না। ক্লাস সিক্সে থাকতে পরীক্ষায় একবার ছাগল আঁকতে দিয়েছিল পরীক্ষায়। আমি যা এঁকেছিলাম, তা কোন জাতের প্রাণী সেটা বের করতে পারলে কোন বিজ্ঞানী নোবেল পেয়েও যেতে পারতেন। কিন্তু মেয়েটার ছবি আমি বেশ ভালই আঁকতে পেরেছিলাম। একটা খুঁত অবশ্য ছিল, তবে তা ধরতে পারিনি। যারা একটা কাজ খুব ভালভাবে পারে না, তারা খুঁতও ধরতে পারেনা।

(২) side effects of drinking alcohol on accutane

ছয় বছর পরের কথা। আমি কমলাপুর রেলস্টেশনে অপেক্ষা করছি মায়ের জন্য। মা আসবেন খালাকে সাথে নিয়ে। ট্রেন নাকি ২ ঘণ্টা লেট ছিল। একদিক দিয়ে ভালই হয়েছে, নাহলে আমাকেও ২ ঘণ্টা আগে আসতে হত। অফিস থেকে ছুটি নেবার দিনেও যদি বরাবরের মতই কাঁকডাকা ভোরে উঠতে হয়, তাহলে বুঝতে হবে জীবনে সুখ নেই।

হঠাৎ আমার চোখ আবারো আটকে গেল। ঠিক সেই মেয়েটা। তার হাতে লাগেজ, আমার দিকেই আসছে। আমি সিদ্ধান্ত নিতে পারিনি কথা বলব কিনা? নাম তো জানি না। সে যদি জানে যে একটা অপরিচিত ছেলে পরীক্ষার খাতায় তার ছবি এঁকে বসেছিল তাহলে তার কি অবস্থা হবে এটা দেখতে ইচ্ছা হচ্ছিল খুব, কিন্তু সাহস আর ইচ্ছা সবসময়ই ব্যস্তানুপাতিক আমার ক্ষেত্রে। আমার ইচ্ছা যত বেশী হয়, সাহস ততই কমতে থাকে।

কিন্তু না, আজ কথা বলতেই হবে। পরে কখনও সুযোগ হবে কিনা তা তো জানি না।

- Excuse me.

= হ্যাঁ বলুন?

আহা! কি সুন্দর গলার স্বর! কোন জড়তা নেই। আমার সমস্ত নার্ভাসনেস কেটে গেল। doctorate of pharmacy online


= হ্যাঁ, আপনিও কি?

আমি মৃদু মাথা নাড়লাম।

-আপনি কি BRAC University তে পড়তেন না?

= হ্যাঁ, আপনিও কি?

আমি মৃদু মাথা নাড়লাম।

- কিন্তু আপনাকে তো কখনও আমার কোন ক্লাসে দেখিনি।

= না, আসলে আপনার সাথে একবার একই রুমে পরীক্ষা দিয়েছিলাম।

-ও আচ্ছা।

= আপনাকে নিয়ে আমার একটা মজার স্মৃতি আছে।

-আমাকে নিয়ে? কি বলুন তো? doctus viagra

= না মানে, সেদিন পরীক্ষার খাতায় আপনার ছবি এঁকে ফেলেছিলাম। irbesartan hydrochlorothiazide 150 mg

-ওমা, তাই নাকি? বাহ! ভারি মজার তো। দেখে দেখে ছবি এঁকে ফেললেন? আপনি বুঝি খুব ভাল আঁকতে পারেন?

মেয়েদের সামনে নিজের অক্ষমতা প্রকাশ করতে ভাল লাগে না, তাই খুব একটা ভাল আঁকতে পারি না এটা বললাম না। খালি বললাম, “ছবিটাতে কোন একটা খুঁত ছিল, সেটা ধরতে পারিনি”।

সে বলল, “খুঁত? তো আজ ধরতে পেরেছেন?”

-না, আজও পারিনি। clomid over the counter

= ওঃ আমার ট্রেন এসে গেছে।

-কোথায় যাচ্ছেন?

= চট্টগ্রাম। আমার দেশের বাড়ি।

-Have a nice journey.

মেয়েটা একটা হালকা হাসি দিয়ে উঠে পড়ল ট্রেনে, আমি চেয়ে রইলাম তার চলে যাবার পথে। ছোটবেলা থেকেই আমার ট্রেন খুব ভাল লাগত, সেদিন মনে হল ট্রেন আসলে তেমন ভাল না। শব্দ করে জানিয়ে দিয়ে যায় প্রিয়জনকে দূরে সরিয়ে নিয়ে যাওয়ার কথা। acquistare viagra in internet

এই ছিল আমার গল্প।

(৩)

শুভ রেগে গিয়ে বলল, “ভাই, আপনি খুবই মেজাজ গরম করেন। ১০ মিনিট ধরে গল্পটা শুনে আমার কি লাভ হল? আপনি আপুকে কেন কিছু বললেন না? ধুর, আপনি খুব খারাপ এবং একজন অপদার্থ। আমি যাচ্ছি, এরপর থেকে আমাকে আর কখনও কোন গল্প বলবেন না”।

শুভ চলে যাচ্ছে, এই ছেলেটা কোন ব্যাপারেই আমার পরাজয় মেনে নিতে পারে না। আমি তাই তার মন খারাপ করে দেবার জন্য একটু কষ্টই পেলাম। এখন আরেক কাপ চা খেতে হবে। কাপ না বলে মগ বলাই ভাল। এই দোকানে মগে চা দেয়। সামান্য ৫ টাকার চা মগে খেলে ভাবটা অন্যরকম থাকে। মনে হয় কি না কি খাচ্ছি?

শুভ আর আমি আবারও আসব এখানে, আবারো আড্ডা বসবে। কাল শুভকে বলতে হবে যে  মেয়েটা যখন আমায় জিজ্ঞাসা করেছিল ছবির খুঁতটা আমি ধরতে পেরেছিলাম কিনা, আমি মুখে না বললেও মনে মনে ঠিকই বলেছি, “তোমার চোখে একটা চশমা থাকলে তোমায় আরও অনেক  সুন্দর লাগত”। buy kamagra oral jelly paypal uk

  viagra in india medical stores

metformin synthesis wikipedia
achat viagra cialis france
kamagra pastillas

You may also like...

  1. দুরন্ত জয় বলছেনঃ

    আহ! কিছুই করলেন না!!!!!

    গল্প ভাল ছিল, সহজ সরল বর্ণনা!

  2. সাবলীল বর্ণনার গল্পটি বেশ ভাল লাগলো। গল্প পড়ে মনি রত্নমের “দিল সে” সিনেমার ফার্স্ট দৃশ্যের কথা মনে পড়ল ,”দুনিয়ার সবচাইতে ছোট লাভ স্টোরি “।

আপনার ই-মেইল ও নাম দিয়ে মন্তব্য করুন *

metformin tablet

Question   Razz  Sad   Evil  Exclaim  Smile  Redface  Biggrin  Surprised  Eek   Confused   Cool  LOL   Mad   Twisted  Rolleyes   Wink  Idea  Arrow  Neutral  Cry   Mr. Green

para que sirve el amoxil pediatrico

You may use these HTML tags and attributes: <a href="" title=""> <abbr title=""> <acronym title=""> <b> <blockquote cite=""> <cite> <code> <del datetime=""> <em> <i> <q cite=""> <strike> <strong>

Heads up! You are attempting to upload an invalid image. If saved, this image will not display with your comment.

levitra 20mg nebenwirkungen
accutane prices