স্বপ্নতে মিথ্যে বাস্তব!

513

বার পঠিত

হোঁচট খেতে খেতে ছেলেটা যখন তীরে এসে উপস্থিত তখন দেখে কোন বোট কিংবা নৌকা কিছুই নেই। মিথ্যা জীবনের মিথ্যা বাঁচার লড়াই। তাকে যেতে হবে সমুদ্র পারি দিয়ে কাঙ্ক্ষিত গন্তব্যে। ওকে খুঁজে পেতেই হবে। কিন্তু কিভাবে?

হঠাৎ একটা কলা গাছ দেখে ভেলা বানায় সে, কোন কিছু না ভেবেই চড়ে বসে ভেলায়।ভাসতে থাকে সমুদ্রে।দীর্ঘ্য সমুদ্র পথ পারি দিতে দিতে ক্লান্ত হয়ে ঘুমিয়ে পড়ে।হঠাৎ জেগে দেখে তার কলা গাছের ভেলায় পচন ধরেছে,কলা গাছের খোল গুলি খসে যাচ্ছে।আর একটু পরেই ডুবে যাবে সে।ছেলেটা সাতার জানেনা।দিসেহারা হয়ে এদিক সেদিক কিছু একটা খুজে,যা আকরে ধরে বাঁচা নয়, অন্তত ভেসে থাকা যায়।কিন্তু কিছুই খুজে পায়না।চারিদিকে শুধুই শান্ত ঢেও।ভেলাটা একেবারেই অকেজো।ধীরে ধীরে তলিয়ে যাচ্ছে ছেলেটা।হাত পা ছুড়াছুড়ি করছে…

হঠাৎ ঘুম ভেঙ্গে যায় রফিকের।জেগে দেখে বিস্তির্ন ধান ক্ষেতের মাঝে গোল করা এক ফাঁকা জায়গায় পাটির মতন কিছু একটায় শুয়ে আছে।একটু খেয়াল করে দেখে ঠিক পাটি নয়, ধান শুকানোর জন্য গরুর গোবর দিয়ে লেপ দিয়ে শুকিয়ে বানানো এক ধরনের খলা।
রফিক কিছুটা অস্বস্তিতে পড়ে যায়।সে এখানে কিভাবে আসল,কেন আসলো তার মনে এমন কোন প্রশ্ন নেই।রফিক শুধু ভাবছে তার স্বপ্নের কথা।এ কেমন ভয়নক স্বপ্ন?চোখ দুটি দেখে মনে হচ্ছে ঘুম না ভাঙলে বুঝি সত্যি সত্যি ও মাঝ সমুদ্রে মারা যেতো।স্বপ্নগুলি এতো বাস্তব হয়ে উঠে কিভাবে?

রফিক আকাশের দিকে তাকায়।এক নিচ্ছিদ্র কালো মেঘে ঢাকা আকাশ।নিশ্চুপ অন্ধকারে শুষে নিয়েছে জোছনার গৌরবর্ন।বাতাসে দুল খাচ্ছে সবুজ শিষে,ভরা যৌবনের ধান।জোনাক পোকারা ধীরে ধীরে নিভে যাচ্ছে,ওদের ভালবাসার হাটবাজারে আর নেই কোলাহল ঝিঝি পোকার।চারিদিক থমথমে নিস্তব্দতা।

এমন ভৌতিক পরিবেশে খুব ভয় পেয়ে যায় রফিক।রাতের প্রহরী হুতুম পেঁচার ক্ষনে ক্ষনে করে উঠা রহস্যময়ী শব্দে ভীষণ ভাবে মুছরে পড়ে।ঠিক তখনি তার জানতে ইচ্ছে হয়, আমি এখানে কেন?

ভীষণ কালো ঝড় ধেয়ে আসছে।ভয়ে তার পা অবশ হয়ে যাচ্ছে।ধান ক্ষেতের মাঝখান দিয়ে হেটে যাচ্ছে।দৌড় দিতে চাচ্ছে কিন্তু পারছে না।খেয়াল করে দেখে সে সামনের দিকে যাচ্ছে না।তার গতি যেন ঝড়ের দিকে।সময় তাকে সময় দিচ্ছে না।অথবা সময় থেমে গেছে।কি হচ্ছে রফিক বুঝতে পাড়ছে না।হঠাৎ এক খাদে পড়ে কেঁদে উঠে।কেউ নেই জেনেও হাত বাড়িয়ে দেয়।হাতের আঙুলের ডগায় প্রথম বৃষ্টির ফুঁটা।

হঠাৎ চোখে মুখে পানির ছটকায় ঘুম ভেঙ্গে যায় রফিকের।চোখ খুলতেই নীতুর চিন্তিত মুখটা চোখের সামনে ভেসে উঠতেই হেসে দেয়,আর বলে আমি কি আজও চিৎকার করে কাঁদছিলাম? না। তুমি চিৎকার করে কাঁদছিলে না। তুমি মরার মত পরে পরে ঘুমচ্ছিলে। তুমি কি জানোনা আজ আমার জন্মদিন, নাকি ভুলে গেছো? তুমি বলেছিলে আমার জন্মদিনে আমাকে সমুদ্রে নিয়ে যাবে। তুমি জানতো, সমুদ্রের গর্জন আমার কত ভালো লাগে! আজ সন্ধ্যা রাতে সমুদ্রের বুকের উপর নেমে আসা আকাশের বুকে জ্বলে উঠা নক্ষত্রের মেলায় দুইজন হারিয়ে যাবো। যলদি উঠো দেরি হয়ে যাচ্ছে তো।

জোয়ার এসেছে। ঢেউ গুলি বিশালাকার ধারন করে পাথরের বুকে আছড়ে পরছে। আবারো চোখে মুখে জলের ছটা! রফিক চোখ মেলে দেখে এক বিশাল আকাশ। হাজার হাজার নক্ষত্রের ভিতর হারিয়ে যাওয়া নিতুকে খুঁজার অহেতুক চেষ্টায় ক্লান্তু চোখ দুটি অবশ হয়ে আসে। এটা কি স্বপ্ন নাকি বাস্তব? নিতু কোথায়? এটা স্বপ্ন, এটা অবশ্যই স্বপ্ন! খুব শীঘ্রই আমি ঘুম ভেঙ্গে দেখবো আমি বাসায়। নীতু আমার জন্য অপেক্ষা করছে। ওকে সমুদ্র দেখাতে নিয়ে যেতে হবে!

You may also like...

  1. ণ

    বলছেনঃ

    Inception দেখে এই স্বপ্নের লেয়ার নামক ধারনাটা প্রথম মাথায় আসে। লেখাটা ভাল লেগেছে। লিখতে থাকুন। can you die if you take too much metformin

  2. খুবই ভালো লেগেছে লেখাটা। এরকম আরও লেখা পড়বার অপেক্ষায় রইলাম :)

  3. acheter viagra pharmacie en france
  4. তারিক লিংকন বলছেনঃ

    dream within dream…
    দুর্দান্ত ব্যবহারও! ভাল লাগলো!!
    আরেকটু বড় হলে আরও জমত মনে হচ্ছে

    side effects of doxycycline in kittens
  5. কনসেপ্টটা সুন্দর। কিন্তু, মাত্রাতিরিক্ত বানান ভুল খুব বেশি চোখে লেগেছে।

  6. turisanda cataloghi cipro

প্রতিমন্তব্যকৃষ্ণ গহ্বর বাতিল

আপনার ই-মেইল ও নাম দিয়ে মন্তব্য করুন *

Question   Razz  Sad   Evil  Exclaim  Smile  Redface  Biggrin  Surprised  Eek   Confused   Cool  LOL   Mad   Twisted  Rolleyes   Wink  Idea  Arrow  Neutral  Cry   Mr. Green

You may use these HTML tags and attributes: <a href="" title=""> <abbr title=""> <acronym title=""> <b> <blockquote cite=""> <cite> <code> <del datetime=""> <em> <i> <q cite=""> <strike> <strong>

viagra type medicine in india

Heads up! You are attempting to upload an invalid image. If saved, this image will not display with your comment.