আহ অস্কার! বাহ অস্কার! (৮৬ বছর পূর্তি উপলক্ষ্যে পোস্ট)

711

বার পঠিত

The Academy Awards নামক খটমটে অনুষ্ঠানটি হল একটি বার্ষিক পুরষ্কার বিতরণী অনুষ্ঠান, যাকে সাধারণভাবে আমরা অস্কার অনুষ্ঠান হিসেবে চিনি। এখানে এক ন্যাংটো ব্যাটার মূর্তি পুরষ্কার হিসেবে দেওয়া হয় (আস্তাগফিরুল্লাহ! তবে নগ্নতাই অশ্লীলতা নয়…) আর এই মূর্তি জেতার জন্য হাঁ করে বসে থাকেন দুনিয়ার তাবৎ চলচ্চিত্র সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিবর্গ।

২০১৪ সাল পর্যন্ত মোট ৮৬ বার অস্কার অনুষ্ঠান সম্পন্ন হয়েছে যার গোরাপত্তন ঘটেছিলো ১৯২৯ সালের ১৬ মে। আগামীকালও ১৬ মে। অর্থাৎ অস্কারের সূচনার ৮৬তম বার্ষিকী। রৌপ্য, স্বর্ণ, হীরক এবং প্ল্যাটিনাম জয়ন্তী শেষে এবার কোন জয়ন্তীতে পা দিলো এই মহোৎসব, বুঝতে পারছি না। তবে এটা যে বিনোদন জগতের সবচেয়ে পুরানা অ্যাওয়ার্ড অনুষ্ঠান তাতে কোন সন্দেহ নাই। টেলিভিশনের জন্য এমি অ্যাওয়ার্ড, মঞ্চের জন্য টনি অ্যাওয়ার্ড কিংবা গানের জন্য গ্র্যামি অ্যাওয়ার্ড এসেছে এই পূর্বসূরির অনুকরণেই।

1stOscars_1929 lasix tabletten

প্রথম অস্কার অনুষ্ঠান আয়োজিত হয়েছিলো লস এঞ্জেলেসের ক্যালিফোর্নিয়ায় অবস্থিত হলিউড রুজভেল্ট হোটেলের “Blossom Room” এ, একটি প্রাইভেট ডিনার অনুষ্ঠানের মাধ্যমে। আয়োজন করেছিলো Academy of Motion Picture Arts and Sciences (AMPAS)। উপস্থাপক ছিলেন AMPAS এর প্রেসিডেন্ট Douglas Fairbanks এবং হোস্ট ছিলেন Louis B. Mayer। ৩৬টি ব্যাংকুয়েট টেবিলকে ঘিরে মোট ২৭০ জন দর্শক উপস্থিত ছিলেন প্রাগৈতিহাসিক এই অনুষ্ঠানে। টিকেটের মূল্য ছিল সে আমলের হিসেবে ৫ ডলার (যা কিনা ২০১৪ সালে এসে দাঁড়িয়েছে ৬৯ ডলারে)। এখানে ১৯২৭ এবং ১৯২৮ সালের শ্রেষ্ঠ চলচ্চিত্রের জন্য অ্যাওয়ার্ড দেওয়া হয়েছিলো। ১২টি ক্যাটাগরিতে মোট ১৫টি মূর্তি দেওয়ার জন্য খরচ করা হয়েছিলো মাত্র ১৫ মিনিট। সময়ের কি নিদারুণ সাশ্রয়! পুরো প্রক্রিয়াটি ছিল খুবই সরল। বিজয়ীর নাম ঘোষণার সাথে সাথে পুরষ্কার নিতে চলে এসেছিলেন নির্দিষ্ট ব্যক্তিরা এবং গ্রহণ শেষে ব্যাংকুয়েট টেবিলে নিজ নিজ আসনে ফেরত গিয়েছিলেন। কারো বক্তৃতা দেওয়ার কোন সুযোগ ছিল না। আফসুস!

অ্যাওয়ার্ড পরবর্তী পার্টি অনুষ্ঠিত হয়েছিলো মে-ফেয়ার হোটেলে।

আসুন এক নজরে দেখে নিই প্রধান প্রধান ক্যাটাগরিতে প্রথম অস্কার বিজয়ীদেরঃ

  • প্রথম অস্কার অনুষ্ঠানের প্রথম মূর্তি গ্রহণ করার বিরল সুখ লাভ করেন Emil Jannings (The Way of All Flesh)। ইনি মোট দুটি ছবিতে অসামান্য অভিনয়ের জন্য জিতে নিয়েছিলেন অস্কার
  • অস্কার ইতিহাসের প্রথম শ্রেষ্ঠ অভিনেত্রী হওয়ার বিরল সম্মানটা দখল করে রেখেছেন Janet Gaynor (Sunrise: A Song of Two Humans)। অতীব কিউট এই মহিলাটি অস্কার জিতেছিলেন তিনটি মুভিতে অসামান্য অভিনয়ের সুবাদে buy viagra alternatives uk
  • ড্রামা মুভির (Seventh Heaven) জন্য শ্রেষ্ঠ পরিচালকের পুরষ্কার বগলদাবা করে ঘরে ফেরেন Frank Borzage accutane price in lebanon
  • কমেডি মুভির (Two Arabian Knights) জন্য শ্রেষ্ঠ পরিচালকের পুরষ্কার বাগিয়ে নেন Lewis Milestone
  • শ্রেষ্ঠ চলচ্চিত্র হয় Wings (যেটা ছিল ঐ সময় পর্যন্ত সবচেয়ে ব্যয়বহুল মুভি!)
  • শ্রেষ্ঠ সিনেমাটোগ্রাফির জন্য অস্কার পায় Sunrise: A Song of Two Humans
  • শ্রেষ্ঠ শিল্প নির্দেশক হিসেবে শিকে ছেড়ে William Cameron Menzies এর ভাগ্যের
  • শ্রেষ্ঠ ইঞ্জিনিয়ারিং ইফেক্টের জন্য পুরষ্কার জেতে Wings lasix dosage pulmonary edema
  • শ্রেষ্ঠ চিত্রনাট্য (মৌলিক বিভাগ): Underworld
  • শ্রেষ্ঠ চিত্রনাট্য (অ্যাডাপ্টেড বিভাগ): Seventh Heaven
  • শ্রেষ্ঠ চিত্রনাট্য (টাইটেল রাইটিং): The Red Mill
শ্রেষ্ঠ অভিনেতাঃ এমিল জ্যানিংস

শ্রেষ্ঠ অভিনেতাঃ এমিল জ্যানিংস

শ্রেষ্ঠ অভিনেত্রীঃ জ্যানেট গেনার

শ্রেষ্ঠ অভিনেত্রীঃ জ্যানেট গেনার

শ্রেষ্ঠ পরিচালক (ড্রামা): ফ্র্যাঙ্ক বোরজেগ

শ্রেষ্ঠ পরিচালক (ড্রামা): ফ্র্যাঙ্ক বোরজেগ

শ্রেষ্ঠ পরিচালক (কমেডি): লুইস মাইলস্টোন

শ্রেষ্ঠ পরিচালক (কমেডি): লুইস মাইলস্টোন

bird antibiotics doxycycline
শ্রেষ্ঠ চলচ্চিত্রঃ উইংস

শ্রেষ্ঠ চলচ্চিত্রঃ উইংস

Wings মুভিটি মোট দুটি বিভাগে অস্কার জেতে এবং ৩টি করে ক্যাটাগরিতে অস্কার ছিনিয়ে নেয় Sunrise: A Song of Two Humans এবং Seventh Heaven মুভি দুটো। এগুলোই তিনমাত্র মুভি যারা একাধিক অস্কারের ছোঁয়া পেয়েছিলো।

  • বিশেষ সম্মাননা অস্কার জুটেছিলো চার্লস ওরফে চার্লি চ্যাপলিনের ঘাড়ে। তাঁর The Circus মুভির জন্য তিনি মোট তিনটি ক্যাটাগরিতে অস্কারের জন্য মনোনীত হনঃ শ্রেষ্ঠ পরিচালক (কমেডি মুভি), শ্রেষ্ঠ অভিনেতা এবং শ্রেষ্ঠ চিত্রনাট্যকার।
  • আরেকটি সম্মানসূচক অস্কারের মালিক হয়েছিলো প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান Warner Brothers তাঁদের The Jazz Singer (ইতিহাসের প্রথম পূর্ণদৈর্ঘ্য সবাক চলচ্চিত্র)-এর জন্য।
১৯২৯ সালের চার্লি চ্যাপলিন :)

১৯২৯ সালের চার্লি চ্যাপলিন :)

অ্যাকাডেমি অ্যাওয়ার্ডসের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের একমাত্র বক্তাটি ছিলেন Darryl F. Zanuck। তিনি ছিলেন The Jazz Singer এর প্রযোজক। অনুষ্ঠানটি শেষ হয় Al Jolson এর গাওয়া The Jazz Singer মুভির একটি গানের মাধ্যমে।

কিছু স্মরণীয় ঘটনাঃ

প্রথম অস্কার অনুষ্ঠানকে ঘিরে আছে মজার কিছু ঘটনা। যেমন -

  • এক্ষেত্রে তিন মাস আগেই বিজয়ীদের নাম ঘোষণা করা হয়ে গিয়েছিলো। ফলে বিশেষ ঐ রাতে ছিল না কোন চমক, যেটার জন্য এ জমানার অনেকের হার্টবিট মিস হয়ে যায়। অবশ্য এই রীতি খেটেছিল মাত্র এক বছরের জন্যেই। ১৯৩০ সাল থেকে পরবর্তী এক যুগ ধরে ফলাফল সংবাদপত্রের কাছে হস্তান্তর করা হত অনুষ্ঠানের দিন রাত ১১ টায়। কিন্তু একবার “লস এঞ্জেলেস টাইম” মাতব্বরি করে অনুষ্ঠানের আগেই বিজয়ীদের নাম ঘোষণা করে ফেলায় ১৯৪১ সাল থেকে বিজয়ীর নাম ঘোষণা করার জন্য অ্যাকাডেমি সিল মারা খাম ব্যবহার শুরু করে।
  • প্রথম অস্কার জেতা অভিনেতা এমিল জ্যানিংস একজন জার্মান। অনুষ্ঠানের আগেই উনাকে জার্মান ফিরতে হবে বলে অ্যাকাডেমি উনাকে অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হওয়ার আগেই পুরষ্কার দিয়ে দেয়। ফলে উনার যদি খায়েশ নাও থাকত, তাও ভাগ্যের বিড়ম্বনায় উনাকে হতেই হত প্রথম অস্কার বিজয়ী :-)
  • এই অস্কারসহ পরবর্তী দুটো অস্কার অনুষ্ঠানে একাধিক মুভিতে কাজের উপর ভিত্তি করে অস্কার দেওয়া হত। চতুর্থ অস্কার হতে এই নিয়ম পাল্টে শুধু একটি মুভিতে পারফর্মেন্সের উপর ভিত্তি করে পুরষ্কার দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয় যা আজও বহাল তবিয়তে আছে। যদি আগের নিয়ম থাকতো তাহলে অনেক আগেই লিওনার্দো ডি’ক্যাপ্রিও অস্কার বাগাতে পারতেন।
  • এখন বেস্ট পিকচার বলা হলেও শ্রেষ্ঠ চলচ্চিত্রকে তখন বলা হত আউটস্ট্যান্ডিং পিকচার।
  • এই অস্কারেই শুধুমাত্র Unique and Artistic Production ক্যাটাগরিতে পুরষ্কার দেওয়া হয়। sildenafil 50 mg dosage
  • এই অস্কার ছিল একমাত্র অস্কার অনুষ্ঠান যেটা রেডিও বা টেলিভিশন – কোথাও সম্প্রচারিত হয় নি।
  • মোট ১৫ টি পুরষ্কার দেওয়া হয় ঐদিন এবং প্রতিটি ক্যাটাগরির রানার্স আপদের মধ্যে মোট ২০টি সম্মাননা সার্টিফিকেট প্রদান করা হয়।
  • এই প্রথম এবং শেষবারের মত দুটো আলাদা ক্যাটাগরিতে পরিচালনার পুরষ্কার দেওয়া হয় (ড্রামা এবং কমেডি মুভি পরিচালনা)।
image_menu01

প্রথম অস্কার অনুষ্ঠানের মেনুঃ প্রথম পৃষ্ঠা

প্রথম অস্কার অনুষ্ঠানের মেনুঃ দ্বিতীয় পৃষ্ঠা

প্রথম অস্কার অনুষ্ঠানের মেনুঃ দ্বিতীয় পৃষ্ঠা

প্রথম অস্কার অনুষ্ঠানের মেনুঃ তৃতীয় পৃষ্ঠা

প্রথম অস্কার অনুষ্ঠানের মেনুঃ তৃতীয় পৃষ্ঠা domperidona motilium prospecto

প্রথম অস্কার অনুষ্ঠানের মেনুঃ চতুর্থ এবং শেষ পৃষ্ঠা

প্রথম অস্কার অনুষ্ঠানের মেনুঃ চতুর্থ এবং শেষ পৃষ্ঠা

এবার জেনে নিই অস্কারে পুরষ্কার হিসেবে দেওয়া ঐ চকচকে মূর্তিখানির কথাঃ

“তোরা যে যা বলিস ভাই, আমার সোনার মূর্তি চাই…” গান ধরলেই শুধু হবে না, জব্বর পারফর্মেন্স দেখালে তবেই ধরা দেবে এই মরীচিকা। তবে কিনা আর সব পুরষ্কার প্রদান অনুষ্ঠানের মত অস্কারের গায়েও লেগেছে কলঙ্কের ছোঁয়া। কানাঘুষা শোনা যায়, তদবিরের মাধ্যমেও অনেকে ছিনিয়ে নেন এই বস্তু। ফলে অনেকেরই এই পুরষ্কারের উপর থেকে মন উঠে গেছে। তারপরও ব্র্যান্ড ভ্যালু বলে যে কথা আছে, তারই জোরে এখনো সবার গায়ে জ্বর এনে দেয় এই অনুষ্ঠান।

এই মূর্তির মূল নাম “Academy Award of Merit” যাকে সংক্ষেপে Oscar Statuette বলা হয়। ১৯৩৯ সালে AMPAS অফিসিয়ালভাবে মূর্তিটির অস্কার নামটি মেনে নেয়। ১৯২৮ সালে MGM এর শিল্প নির্দেশক সেড্রিক গিবন্স কাগজে এই মূর্তির নকশা ছাপান। কিন্তু নকশাকে বাস্তবরূপ দেওয়ার জন্য প্রয়োজন পড়ে একজন মডেলের। মেক্সিকান চলচ্চিত্র পরিচালক Emilio “El Indio” Fernandez প্রথমে নগ্ন মডেল হতে রাজী না হলেও পরবর্তীতে সম্মতি দেন। ফলে তাঁর নগ্ন শরীরকেই আজ অস্কারপ্রাপ্তরা হাতিয়ে বেড়ান।

CurtizOscarStatue1

এই মূর্তির কারিগর ছিলেন George Stanley যিনি গিবন্সের ডিজাইনের আদলে কাদামাটির ছাঁচ তৈরী করেন (এজন্য তিনি নিয়েছিলেন ৫০০ ডলার) এবং সেই ছাঁচ থেকে Sachin Smith তৈরী করেন মূর্তিটি। এটি ছিল ৯২.৫% টিন এবং ৭.৫% তামার সমন্বয়। এর উপর সোনার প্রলেপ (গোল্ড প্লেটেড) দেওয়া হয়। সেই থেকে এখন পর্যন্ত যে একটা মাত্র পরিবর্তন এই মূর্তিতে আনা হয়েছে তা হল, গোড়ায় একটি ছোটো streamline তৈরী করা হয়েছে।

প্রথম মূর্তিটি তৈরি হয়েছিলো C.W. Shumway & Sons নামক ঢালাইখানায়। এখনো পর্যন্ত প্রতিটির ওজন ৩.৯ কেজি, উচ্চতা ৩৪ সেন্টিমিটার এবং একেকটি বানাতে সময় লাগে তিন থেকে চার সপ্তাহ! মূর্তিটি নির্দেশ করে মূলত একজন নাইটকে যিনি সটান দাঁড়িয়ে দুই হাতে ধরে আছেন ধর্মযোদ্ধাদের ব্যবহৃত একটি তলোয়ার। নাইটটি দাঁড়িয়ে আছেন পাঁচ স্পোক বিশিষ্ট একটি ফিল্ম রীলের উপর যার পাঁচটি স্পোক নির্দেশ করছে অ্যাকাডেমির পাঁচটি মৌলিক শাখাকে – অভিনয়শিল্পী, চিত্রনাট্যকার, পরিচালক, প্রযোজক এবং টেকনিশিয়ানকে।

পূর্ব ইতিহাসঃ

১৯২০ সালের শেষের দিকে প্রতি বছর প্রায় ৫০০টির মত ফিচার লেংথ ফিল্ম তৈরি হচ্ছিলো হলিউডে যা চলচ্চিত্রকে পরিণত করেছিল আমেরিকার চার নম্বর ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে। সে সময়ে সান্তা মনিকায় নিজ বাসভবনে এক নৈশভোজের সময় MGM (Metro-Goldwin-Mayer) এর প্রধান মিঃ Louis B. Mayer এর উর্বর মস্তিষ্ক থেকে উদয় হয়েছিলো চলচ্চিত্রের জন্য পুরষ্কার প্রদানের চিন্তাটি। এর ইতিহাস বলতে গিয়ে তাঁর সরস বক্তব্য, “I found that the best way to handle [filmmakers] was to hang medals all over them … If I got them cups and awards they’d kill them to produce what I wanted. That’s why the Academy Award was created”। নৈশভোজে উপস্থিত আরো তিনজন বিখ্যাত ব্যক্তি – পরিচালক Fred Niblo, প্রযোজক Fred Beetson এবং অভিনেতা Conrad Nagel এই চিন্তাকে সমর্থন করেন। চারজন মিলে একটি প্রতিষ্ঠান গঠনের সিদ্ধান্ত নেন যেটা ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রির কাজকর্ম তদারকি করতে সক্ষম হবে। এরই প্রেক্ষিতে ১৯২৭ সালের ৪ মে “The International Academy of Motion Picture Arts and Sciences” জন্মলাভ করে। পরবর্তীতে International শব্দটি ছেঁটে ফেলে প্রতিষ্ঠানটি The Academy of Motion Picture Arts and Sciences ওরফে AMPAS নামধারণ করে। এই অ্যাকাডেমিই আয়োজন করে থাকে বার্ষিক অস্কার অনুষ্ঠান।

লুইস মেয়ার MGM এর শিল্প নির্দেশক সেড্রিক গিবন্সকে অনুরোধ করেন অনুষ্ঠানে প্রদানের জন্য একটি ট্রফি নকশা করতে এবং গিবন্স সেই অনুরোধের ঢেঁকি গিলে উপহার দিলেন অসম্ভব শৈল্পিক সৌন্দর্যমণ্ডিত এক পুরুষ মূর্তি। নমিনিদের ১৯২৮ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে নমিনেশনের ব্যাপারে জানিয়ে দেওয়া হয়েছিলো। আগস্টে মেয়ার Academy Central Board of Judges-দের সাথে যোগাযোগ করেন বিজয়ী নির্বাচনের জন্য। তবে আরেমিকান পরিচালক King Vidor-এর দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, শ্রেষ্ঠ চলচ্চিত্রের জন্য ভোটাধিকার ছিল শুধু AMPAS এর প্রতিষ্ঠাতা – ডগলাস ফেয়ারব্যাংক্স, সিড গ্রুম্যান, মেয়ার, ম্যারি পিকফরড এবং জোসেফ শ্নেকের হাতে।

তথ্য সূত্রঃ

Oscar legacy, Liberty voice, Wikipedia

acheter cialis 20mg pas cher

You may also like...

  1. আপনার লিখাটি থেকে শুধু এবারকার অস্কার পুরস্কার নয়, পুরো অস্কার সম্পর্কেই অনেক কিছু জানতে পারলাম । এরকম একটি চমৎকার তথ্যপূর্ণ পোস্ট লিখার জন্য আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ ।

  2. অংকুর বলছেনঃ

    তবে নগ্নতাই অশ্লীলতা নয়

    চরম একটা কথা বলেছেন । মজা লাগল ।

    এখনো পর্যন্ত প্রতিটির ওজন ৩.৯ কেজি, উচ্চতা ৩৪ সেন্টিমিটার এবং একেকটি বানাতে সময় লাগে তিন থেকে চার সপ্তাহ! cialis online australia

    এই জিনিস বানাইতে তিন থেকে চার সপ্তাহ লাগে ? ক্যামনে কী ?

    পুরো লেখাটা পড়ে অনেক ভালো লাগল । ধন্যবাদ আপনাকে আপু :-bd :-bd :-bd :-bd

    cialis 10 mg costo
  3. শঙ্খনীল কারাগার বলছেনঃ

    তথ্যবহুল পোস্ট। নতুন অনেক কিছু জানতে পারলাম।

  4. তারিক লিংকন বলছেনঃ

    এই পরিমাণ তথ্য বাংলায় কোন সাইটে পেলাম না। অসাধারণ কাজ করেছেন। :-bd :-bd :-bd m/ m/ m/ m/ m/

  5. জন কার্টার বলছেনঃ

    চমৎকার তথ্যপূর্ণ পোস্ট…… ধন্যবাদ আপ্নাকে…..

  6. চাতক বলছেনঃ

    কবে যে আমরা অস্কার পাব। এইসব বলে খালি কষ্ট বাড়িয়ে দেন। ভাল লাগলো , এটা কি আপনার প্রথম পোস্ট? সভ্যতায় স্বাগতম।।
    :-bd :-bd =D> =D> =D> =D>

  7. আমি এখন একজন অস্কার স্পেশালিষ্ট… ;-) ;;) :D:D @};- @};- @};- @};-
    ~O) পান করিবার আমন্ত্রন গ্রহন করিবেন কি? :-SS

  8. অসাধারন এক লেখা দিয়ে সভ্যতার এ অগ্রযাত্রায় সামিল হবার জন্য তোমাকে অশেষ অভিবাদন আপু… %%- @};- @};- >:D<

  9. অনুস্বার বলছেনঃ

    প্রথম প্যারা পড়ে ভেবেছিলাম, ইহা একটি লুলিয় বিনুদুনযুক্ত পোস্ট হইবে, পরবর্তীতে লেখিকা আমাকে ভুল প্রমান করলেন… ^:)^ ^:)^ ^:)^

    শেষ কবে এতটা ইনফরমেটিভ অসাধারন লেখা পড়েছি, মনে পড়ছে না। শুধু গোলাপের @};- @};- @};- @};- @};- @};- @};- বন্যাও কম মনে হচ্ছে এই পোস্টের জন্য… m/ m/ m/

  10. তথ্যবহুল সুন্দর একটি পোস্টের জন্য লেখিকাকে এত্তগুলা ধইন্না %%- %%- %%- %%- %%- :D

  11. অসাধারণ তথ্যবহুল পোস্ট। অস্কারের গোড়াপত্তন এবং তৎসংশ্লিষ্ট অনেক কিছুই জানতে পারলাম। রুথাপুকে এত্তগুলা ধৈন্যা। %%- %%-

প্রতিমন্তব্যক্লান্ত কালবৈশাখি বাতিল

আপনার ই-মেইল ও নাম দিয়ে মন্তব্য করুন *

You may use these HTML tags and attributes: <a href="" title=""> <abbr title=""> <acronym title=""> <b> <blockquote cite=""> <cite> <code> <del datetime=""> <em> <i> <q cite=""> <strike> <strong>

Heads up! You are attempting to upload an invalid image. If saved, this image will not display with your comment.

2nd course of accutane side effects
silnejsie ako viagra