Category: উদ্যোগ

সভ্যতার বর্ষপূর্তিতে লিখুন আপনার স্বপ্ন নিয়ে ‘বিনির্মাণে আগামীর পথে’

সকল সভ্যকে প্রাণঢালা অভিনন্দন। পথচলার শুরুতে এই কঠিন একটি বছর আমাদের এই ছাউনিতে অবস্থান করার জন্য। আমাদের পথ চলার শুরু ১ মে ২০১৪। ‘বিনির্মাণে আগামীর পথে’ স্লোগান নিয়ে ব্লগটির জন্মহয় একদল স্বপ্নালু তরুণদের হাত ধরে। ২৬ মার্চ ২০১৪ তারিখে একদল তরুণ স্বপ্ন দেখে ফেলে হঠাৎ করে। তড়িঘড়ি করে মাত্র ৩৫ দিনেই সেই স্বপ্নের যাত্রা শুরু। এই মহাস্বপ্নীল রথযাত্রায় অংশ নিতে থাকে এক ঝাঁক সমৃদ্ধ ব্লগার যারা আস্থা রাখে সৃজনে, পরিবর্তনে, সমৃদ্ধির পরিবর্ধনে। পথ চলার শুরুতে আমাদের কারিগরি অনেক জটিলতার মাঝে দিয়ে যেতে হয়েছে আজও হচ্ছে। আস্থা রাখি, সকল দুর্বলতা এবং ভুলত্রুটি কাটিয়ে উঠে অতিসত্তর চমৎকার একটি ব্লগে পরিণত হব আমরা।... doctus viagra

সভ্যতার বিনির্মাণে আগামীর সভ্য- মার্চ ২০১৫

“Life comes from physical survival; but the good life comes from what we care about.” – Rollo May ( Americal psychologist) সভ্যতার পথচলায় আমাদের প্রায় এক বছর হতে চলল। এই এক বছরে সভ্যতার উঠান আলোকিত হয়েছে আপনার পরিশ্রম করে লেখা পোস্ট দিয়ে। সভ্যতা পেয়েছে অনেক নতুন মুখ,যারা সভ্যতার পরিবর্তনে ভুমিকা রাখতে দৃঢ়প্রত্যয়ী, বদ্ধপরিকর। সভ্যতা ব্লগ সেইসব ব্লগারদের সুযোগ দানে,সভ্যতার উঠানকে আলোকিত করতে, পরিপূর্ন করতে সাহায্য করে,অনুপ্রেরণা যোগায়। আমরা আশা করি, আমাদের এই পথচলায় আমরা আরো নতুন মুখ দেখব,যারা সভ্যতার উঠানকে রাঙিয়ে তুলবেন নতুন রঙে,নতুন সাজে। পাশাপাশি পুরাতন ব্লগাররা লেখার মানোন্নয়ন এর মাধ্যমে সভ্যতার বিনির্মানে তাদের অবদান আরো সুপ্রসারিত করবেন। প্রিয়...

স্বাধীনতা – এক উপলব্ধি

“The great revolution in the history of man, past, present and future, is the revolution of those determined to be free.” – John F. Kennedy বাঙালীর শোষিত হওয়ার ইতিহাস বহুদিনের। দিনের বললে ভুল হবে,বহু শতাব্দীর। শুধু বৃটিশ না,আফগান, মোঘল আরো অনেক জাতির কাছে শোষিত হয়েছে বাঙালী। শোষিত হতে হতে নিজের যে আলাদা একটা স্বত্ত্বা আছে, সংস্কৃতি আছে,ঐতিহ্য আছে তা কারো মনেই ছিল না। ১৯৪৭ এ বৃটিশদের শোষণ থেকে মুক্তি পেলেও বাঙালীর জন্য সেই মুক্তি ছিল নামেমাত্র। শোষণের বিন্দুমাত্রও কমেনি। বরং বেড়েছে। বাঙালীর টনক নড়ল যখন প্রথমবারের মত মুখের ভাষার উপর আঘাত হানা হলো। বাঙালীর ইতিহাসে সবচেয়ে বড় বিপ্লব বায়ান্নোর “ভাষা...

নকলের ভিড়ে…

আধুনিক পৃথিবীতে আসল থেকে নকল জিনিসের পরিমানই বেশি। খাবার,পোশাক,যন্ত্রপাতি তো ছিলই, যেই জিনিসটা বর্তমান সময়ে বেশি দেখা যায় তা হলো চেহারার নকল। প্রসাধনী, নানা ধরনের দেশি বিদেশি প্রসাধন সামগ্রী ব্যবহার করে নিজেকে আলাদা রূপ দেয়াটা যেন প্রতিনিয়তই ঘটে। শুধু দেখাবার জন্যই না, প্রয়োজনের খাতিরেও বিভিন্ন ধরনের প্রসাধনী ব্যবহার এর কোন বিকল্প নেই। টুথপেস্ট,শেভিং ক্রিম,শ্যাম্পু,কন্ডিশনার,ফেসওয়াস ইত্যাদিকে বিলাসিতা থেকে প্রয়োজন বলাই বোধহয় যুতসই হবে। কিন্তু নিত্যপ্রয়োজনীয় এইসব প্রসাধনী ব্যবহারের আগে তার বিষয়ে একটু ভালোভাবে জেনে নিচ্ছেন কি? অনেক গরম, রাস্তা থেকে একটা পানির বোতল কিনে খাচ্ছেন। পানিটা কি বিশুদ্ধ? যেসব প্রসাধনী ব্যবহার করছেন,সেসব কি আসল? রাজধানীর নামিদামি শপিং মল থেকে শুরু করে...

side effects of drinking alcohol on accutane

বিনির্মাণে আগামীর পথে আগামীর সভ্য নির্বাচন

সভ্যতা ব্লগের যাত্রা শুরু হয়েছিল বাংলা ব্লগের জগতে এক নতুন মাত্রা যোগ করার প্রত্যয় নিয়ে। প্রচলিত কাঠামো ভেঙ্গে সমাজ, সংস্কৃতি, সাহিত্য, সভ্যতা আর মূল্যবোধের জগতে নতুন মাত্রা যোগ করতে সভ্যতা ব্লগ দৃঢ় প্রত্যয়ী ছিল এবং আছে। সমাজের ঘুণেধরা কাঠামোকে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে উন্নত মানস এবং মূল্যবোধ নিজস্বতার মাঝে সৃষ্টি, লালন এবং অন্যের মাঝের ছড়িয়ে দেয়াকে সভ্যতা ব্লগ চিরকালই উৎসাহিত করে চলেছে। সভ্যতা ব্লগ প্রত্যাশা করে সভ্যতার উঠানে পাদচারণা করা সকল সভ্য তাদের পাণ্ডুলিপি এবং মন্তব্যে সমসাময়িক জ্ঞান-বিজ্ঞান, মূল্যবোধ এবং মুক্তমনের পরিচয় দেবেন। একই সাথে, তাদের পাণ্ডুলিপি যেন অন্যদের মানসিক উন্নতিতে ভূমিকা রাখে, সে ব্যাপারেও সম্যক প্রচেষ্টা রাখবেন।  J.D. Salinger তাঁর  The Catcher in...

সত্য কথা সহজভাবে!

২০০৯ এর নির্বাচনে বড় ব্যবধানে জয়লাভ এবং যুদ্ধাপরাধ বিচারের অঙ্গিকার করার পর এই সরকারের সাথে দল সমর্থকের বাইরেও বিপুল সংখ্যক প্রগতিশীল, দেশপ্রেমী শিক্ষিত তরুণ-যুবক ইনভল্ভ হয়ে যায়। স্বাধীনতার শত্রুমুক্ত একটি সুন্দর, সমৃদ্ধশালী বাংলাদেশ দেখার আশায় এরা আন্তরিকতার সাথে সরকারের পাশে দাড়ায়। পরবর্তীতে উৎসাহিত হয়ে এদের সাথে সর্বক্ষেত্রে যোগ দেয় স্বাধীনতায় বিশ্বাসী প্রগতিশীল লক্ষ সাধারণ মানুষ। শাহবাগ মুভমেন্ট ছিল তারই একটি আনুষ্ঠানিক বহিঃপ্রকাশ। এরপর আমরা দেখেছি, এই মানুষেরা দেশ বিরোধীদের মিথ্যে অপপ্রচার রোধ, নানামুখী ষড়যন্ত্রের তথ্য প্রকাশ, রাষ্ট্রের বিভিন্ন জনকল্যানমুখী কাজে অংশগ্রহণ এবং দুর্যোগ মোকাবেলায় আপনা থেকেই সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিয়েছে। আমরা দেখেছি, রানা প্লাজা ধ্বসের পর এরা উদ্ধার কাজে সরাসরি...

“নিউক্লিয়াস”; একদল তারছেঁড়া বাঙলা মায়ের দামাল ছেলের মুক্তির অকথিত গল্প সংগ্রহের স্বপ্ন

নিউক্লিয়াস। কি নিউক্লিয়াস, কে নিউক্লিয়াস, কেনো নিউক্লিয়াস এমন অসংখ্য প্রশ্ন ইতোমধ্যে শুরু হয়ে গেছে। অনলাইনে আরো অসংখ্য গ্রুপ থাকা সত্ত্বেও কেনো নতুন করে আরেকটা গ্রুপ খোলা হল এমন জিজ্ঞাসা অবশ্যই যুক্তিযুক্ত। নিউক্লিয়াস এর কাজ কি, কিভাবে কাজ করবে এমন অনেক প্রশ্নের উত্তর দেয়ার চেষ্টা করছি। ১। নিউক্লিয়াস একটি অনলাইনভিত্তিক সংগঠন হলেও এর কাজ মুলতঃ বাস্তবে অর্থাৎ অফলাইনে।  ২। নিউক্লিয়াস নামক এই গ্রুপটি নির্দিষ্ট কিছু প্রোজেক্ট বেছে নিয়ে কাজ করবে। একটি প্রোজেক্ট চলাকালীন অন্য কোনো কাজে এই গ্রুপ সরাসরি সম্পৃক্ত থাকবে না। তবে বাংলা মায়ের সন্তানেদের যেকোনো কাজে নিউক্লিয়াস নিঃশর্ত সমর্থন দিবে। ৩। নিউক্লিয়াস নামক এই গ্রুপটি তৈরির পেছনে যে কারণটা...

capital coast resort and spa hotel cipro

নিউক্লিয়াস- ক্র্যাক পিপল নিডেড…

মাঝে মাঝে নতুন প্রজন্মের ছেলে-মেয়েদের জন্য খুব আফসোস হয়। ডিসি কমিক্স কিংবা মারভেল কমিক্সের থর, আয়রনম্যান, সুপারম্যান কিংবা ব্যাটমানের মতো সুপারহিরোরা তাদের ছোটবেলার নায়ক, বড় হয়ে তারা জেমস বণ্ড হতে চায়, ভিনদেশের বীরদের নিয়ে কি উচ্ছ্বাস তাদের… মজার ব্যাপার হচ্ছে ভিনদেশের সেই বীরেরা নিতান্তই কাল্পনিক চরিত্র ,তাদের এতসব বীরত্ব কিছু উর্বর মস্তিকের কল্পনা মাত্র। অথচ যে জন্মভূমির আলো হাওয়ায় নতুন প্রজন্মের এই সন্তানেরা বেড়ে উঠেছে, সেই জন্মভূমি স্বাধীন করতে ১৯৭১ সালে অসংখ্য বীর হাসতে হাসতে নিজের প্রানটা উৎসর্গ করেছিলেন, তাদের বীরত্বগাঁথা ছিল রূপকথার গল্পের মতই অবিশ্বাস্য কিন্তু সন্দেহাতীত বাস্তব, সাধারন মানুষ হয়েও কেবলমাত্র মায়ের জন্য, মাতৃভূমির জন্য তারা পরিনত হয়েছিলেন...

দাম দিয়ে কিনেছি বাংলা – ১

মনে আছে তারাকোভস্কির ১২ বছরের সেই ইভানকে? যাকে পূর্ব দিগন্তে গুপ্তচরবৃত্তি করতে দেয়া হয়েছিলো? খুব মনে পরছে সবার। কি মহাকাব্য তাই না? যুদ্ধের ইতিহাস বলতে গেলেই এমন আবেগস্পর্শী চূড়ান্ত দৃষ্টান্ত আমরা হাজির করি। তিন সোভিয়েত অফিসার তার দেখাশোনা করতো। ঠিক ধরেছেন তারাকোভস্কির বিখ্যাত চলচ্চিত্র ‘ইভানস চাইল্ডহুড’ (১৯৬২) এর কেন্দ্রীয় চরিত্রের ইভানের কথা বলছি। আবার এরিক মারিয়া রেমারক এর পশ্চিম দিগন্ত শান্ত কিংবা ‘ওল কোয়ায়েট অন দ্যা ওয়েস্টার্ন ফ্রন্ট’ এর একদল স্কুল ছাত্রের কথা। হুম মনে পরেছে তাই না? খুব প্রশংসার ফুলঝুরি ঝরবে এখন বোদ্ধা মহলে। এই লিখকের ‘যুদ্ধ শান্তি ভালোবাসা’ উপন্যাসটিও একই রকমও। যুদ্ধের শিশুদের বীরত্বগাঁথা কিংবা তাঁদের অমানবিক জীবনের গল্পে...

জনসংখ্যা সমস্যা ও সরকারের করনীয়

কেইস স্টাডি-১ নাম: জসিম, বয়স : ২৮, (সাক্ষাৎকারের সময় ৪ অক্টোবর ২০১৪)। বিয়ে করছে ১১ বছর আগে, এক ছেলে এক মেয়ে! ছেলের বয়স ১০ মেয়ের ৫ বছর, দুই বাচ্চাকেই সে স্কুলে পড়ায়!  পেশায় রিকশা চালক, দৈনিক আয় ৩০০-৫০০ টাকা। স্বপ্ন দুবেলা দুমুঠো খেয়ে বেঁচে থাকা। পারলে সন্তান দুটাকে মানুষ করা না হয় বাকিটা আল্লাহর হাতে, কপালে যা লিখা আছে। অর্থাৎ তকদীরের উপর ছেড়ে দেয়া। পরিবার পরিকল্পনার কোন চিন্তা নেই আল্লাহ যে কয়টা দেয় সন্তান তাই হবে। কেইস স্টাডি-২ নাম: শফিক, বয়স; ১৭, (সাক্ষাৎকারের সময় ২০১৩ এর মাঝামাঝি), বিয়ে করেছে বছর খানেক আগে। এখনো সন্তান নেয় নি। পেশায় নির্মাণ শ্রমিক। গড় দৈনিক আয়...

clomid over the counter
levitra 20mg nebenwirkungen

বঙ্গবন্ধু স্মৃতি জাদুঘরে একদিন।

“যতকাল রবে পদ্মা – মেঘনা – গৌরী- যমুনা বহমান ততকাল রবে কীর্তি তোমার শেখ মুজিবুর রহমান। “ ধানমন্ডি ৩২ নাম্বার। মেইন রোড থেকে কিছুদূর গিয়ে ডান দিকে একটা ব্রীজ। ব্রীজ পেরোলেই সাইন বোর্ড ঘোষণা করছে সামনেই বঙ্গবন্ধু স্মৃতি জাদুঘর। গেট এ চেক আপের কড়াকড়ি একটা প্রশ্নই বারবার মনে করিয়ে দেয় – সেদিন তোমরা কোথায় ছিলে? আজকের সতর্কতাটা যদি উনচল্লিশ বছর আগে দেখাতে তাহলে হয়ত বঙ্গবন্ধু আজ জীবিত থাকতেন। যাই হোক, মোবাইল জমা দিয়ে কার্ড নিয়ে আমরা ঢুকে গেলাম জাদুঘরের ভিতর। দুটো অংশ সেখানে।  একটা বঙ্গবন্ধুর বাড়ি, একটা সম্প্রসারিত জাদুঘর। বাড়িটাতে ঢোকার সময় প্রথমেই যে ঘরটা চোখে পরে তা হল রান্নাঘর।...

renal scan mag3 with lasix

একাত্তরের অক্ষয় ইতিহাস: বীর মুক্তিযোদ্ধা সাইফুল ইসলাম রঞ্জুর স্মৃতিতে একাত্তর: (১)

মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতি  বিয়াল্লিশ তেতাল্লিশ বছর ধরে মেমোরীতে অনেকটা আছে, অনেকটা  নষ্ট হয়ে গেছে। Evidence তো বলতে গেলে নেই ই। গেরিলা যুদ্ধের ছবি অনেকদিন ছিল আমাদের কাছে। এরপর এমন এক সময় আসল যখন মুক্তিযোদ্ধা বলে পরিচয় দেয়াটাই বিপদ হয়ে দাঁড়াল। সমস্যাগুলো পঁচাত্তরের আগেও ছিল, পরেও। পঁচাত্তরের আগে সমস্যাটা ছিল জাসদ। ওরা যা যা করত,  দায়ভার পরত সরকারের ওপর। নয় মাস ধরে অবরুদ্ধ বাংলাদেশের মানুষের আকাঙ্ক্ষা ছিল অনেক বেশি। তবে অবরুদ্ধ বাংলাদেশের শুরু একাত্তরে নয়, বরং অনেক আগে…। যুদ্ধ যখন শুরু হয়, তখন আমরা থাকি খুলনায়। বাবা ছিলেন প্রকৌশলী। সরকারী চাকরীর সুবাদে কোথাওই স্থায়ী হওয়া যেত না। বাবার সাথে সাথে আমরাও ছিলাম ভবঘুরে।...

doctorate of pharmacy online
thuoc viagra cho nam

“সভ্যতার বিনির্মাণে একাত্তরের দলিল হোক আগামীদিনের প্রেরণা”

‘সভ্যতা ব্লগ’ আস্থা রাখে, “বিনির্মাণে আগামীর পথে”  স্লোগানে। আস্থা রাখে, মানব সভ্যতার সকল সফল অর্জনে। আগামীর পথ বিনির্মাণে পূর্বসূরিদের অর্জন আর সাফল্যগাঁথা সেখানে কেবলই প্রেরণা নয় অনেক সময় দিক নির্দেশনা। যেমনটা আমাদের মুক্তিযুদ্ধ। ১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধ কেবলই একটি বীরোচিত সফলতার এবং সংগ্রামের অগ্রযাত্রার ইতিহাস নয়, বরং বাঙালী জাতির এগিয়ে চলার দিকনির্দেশনাও বটে। এই বাঙালী সভ্যতা যতদিন থাকবে অথবা মানব সভ্যতায় বাঙালী জাতি যতদিন টিকে থাকবে, ততদিন ১৯৫২ এর ভাষা আন্দোলন এবং ১৯৭১ এর মুক্তিযুদ্ধের সংগ্রাম কেউ মুছে ফেলতে পারবে না। এরপরও বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের পরাজিত শক্তি নবোদ্যমে তাদের কূটকৌশল এবং ১৯৭৫ সালের কতিপয় বিপথগামী সেনা কর্মকর্তাদের নির্বুদ্ধিতায় আমাদের অগ্রযাত্রাকে থমকে দিতে...

cialis new c 100

মিডিয়া…! কী শেখাচ্ছে আমাদের?

CN (কার্টুন নেটওয়ার্ক) চ্যানেলে একটা প্রোগ্রাম হয় “জাস্ট ফান” টাইপের… সেখানে কিছু মানুষ বিভিন্ন করম আজগুবি কাজ কারবার করে জন সাধারণকে ভড়কে দেয়। দূর থেকে গোপন ক্যামেরায় সেগুলো ধারন করা হয় এবং সেটা দেখিয়ে মজা করা করা হয়। এই ধরনের প্রোগ্রাম যে আমি বিদেশী চ্যানেলেই প্রথম দেখি তা নয়। বাংলা চ্যানেলেই বোধহয় প্রথম আমি এগুলো দেখেছিলাম… অনেক আগে “একুশে টিভি” (তখন সরকারী ছিল)-তে দেবাশীষ রায়ের উপস্থাপনায় “পথের প্যাঁচালী” নামের একটা ম্যাগাজিন অনুষ্ঠান হতো। সেই প্রোগ্রামের একটা অংশ ছিল “প্যাঁচালী মদন”! জনসাধারনকে নিয়ে পাবলিক প্লেসে একটা ইভেন্ট হতো। সেখানে একজন মানুষকে বোকা বানানো হতো… চূড়ান্ত বোকা বানানো লোকটিকে বিভিন্ন গিফটের সাথে “প্যাঁচালী...

para que sirve el amoxil pediatrico

২০১৫ সাল হতে প্রাথমিক ও মাধ্যমিক পাঠ্যসূচীতে আমাদের মুক্তিযুদ্ধ নামে সম্পূর্ণ নতুন একটি বিষয় অন্তর্ভূক্ত করা হোক

১. দ্বিতীয় থেকে দশম শ্রেণি পর্যন্ত (প্রয়োজনে দ্বাদশ) “আমাদের মুক্তিযুদ্ধ” নামে একটি নতুন বিষয় অন্তর্ভূক্ত করতে হবে।  ২. মুক্তিযুদ্ধে শিশু কিশোরদের ভূমিকা নিয়ে মাধ্যমিক স্তরে আলাদা অধ্যায় থাকবে। ৩. শ্রেণিভেদে মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস, মুক্তিযোদ্ধাদের বীরত্ব এবং বেঁচে থাকা মুক্তিযোদ্ধাদের পরিচয়, বেঁচে না থাকলে তাঁদের জীবিত বংশধরদের পরিচয় (যারা স্বাধীনতাবিরোধীদের সাথে পরে যোগ দিয়েছে, তারা ছাড়া) উল্লেখ করে রচনা থাকতে পারে। এতে করে চেনা জানা লোকদের মুক্তিযুদ্ধের সাথে জড়িত জেনে একে দূরের কোনো অলৌকিক কাহিনী বলে মনে হবে না এখনকার বাচ্চাদের।  ৪. রাজাকার, আল বদর, আল শামস ইত্যাদি বাহিনীর স্বরূপ, তাদের উৎপত্তি ও বর্তমান অবস্থান নিয়ে মাধ্যমিক লেভেলে আলাদা অধ্যায় থাকবে।  ৫....

মুক্তিযুদ্ধের দলিল-দস্তাবেজ সংরক্ষনের দাবী…

ক্ষমতার পালাবদল ঘটে, ঘটবেই। গনতান্ত্রিক রাজনীতিতে যে কোন দলই ক্ষমতায় আসতে পারে এবং সেটা স্বাভাবিক ও অবশ্যই সমর্থনযোগ্য। ভয়টা হল অন্য জায়গায়! যদি স্বাধীনতা বিরুধীরা আরেকবার জয়ী হতে পারে তবে এই ইতিহাস বিকৃতিকারীরা মুক্তিযুদ্ধের কোন ডকুমেন্টই তারা আর অবশিষ্ট রাখবে না। কেননা অতীতেও তারা এরকম করেছে। মুক্তিযুদ্ধের অনেক মুল্যবান আলামত ও দলিল-দস্তাবেজ তারা নষ্ট করেছে। মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘর, বাংলা একাডেমি ও আদালতে বর্তমানে যে সব ডকুমেন্ট বা দলিল-দস্তাবেজ রয়েছে তাও পুরোপুরি সংরক্ষিত অবস্থায় নেই।যে কোন দুর্ঘটনা বা অগ্নি সংযোগে হারিয়ে যেতে পারে মুল্যবান দলিল সমুহ। সরকার ও এসব দলিল পত্র সংরক্ষনে এখন পর্যন্ত কার্যকরি কোন পদক্ষেপ গ্রহন করেনি। কালের কন্ঠ পত্রিকার...

zoloft birth defects 2013

চট্টগ্রাম আর্টস্ কমপ্লেক্স: একটি স্বপ্নের সূচনা

চট্টগ্রাম শহরের সংস্কৃতিচর্চার ঐতিহ্য খুব প্রাচীন ও সমৃদ্ধ। তবে একটা কথা স্বীকার করতেই হবে যে এর মধ্যে যথাযথ পরিকল্পনা, পেশাদারিত্ব, ধারাবাহিকতা, সর্বোপরি মান-নিয়ন্ত্রণের বিষয়টি তেমন গুরুত্ব পায়নি কখনো। পাশাপাশি এটাও প্রবলভাবে সত্য যে শিল্প, সাহিত্য, সংস্কৃতি ও সৃজনশীলতার চর্চার সঙ্গে যুক্ত মানুষদের একত্রে মিলবার, ভাব বিনিময় করবার, সাদা বাংলায় স্রেফ ‌‘আড্ডা’ দেবার অনুকূল কোনো স্বাস্থ্যকর, রুচিশীল পরিসরও এই শহরে গড়ে ওঠেনি তেমন। বিচ্ছিন্নভাবে কেউ শিল্পকলা একাডেমির মাঠে, কেউ চেরাগির মোড়ে ফুটপাথে দাঁড়িয়ে, কেউ বিশদ বাঙলা-য় কেউ-বাবাতিঘরে  যার যার মত গল্পগাছা করে দুধের স্বাদ ঘোলে মেটান। কিন্তু এভাবে তো আর সৃজনশীল মানুষদের পরস্পরের কাছাকাছি আসা, চেনা-জানা, অভিজ্ঞতা বিনিময় ও গঠনমূলক আলাপ-সংলাপের খুব দরকারি...