Category: রূপকথা

অবতার

২০১৫ সালের কোনো এক রাতে যখন রইসুদ্দিনের চারটি বউ স্বামী অধিকারনিয়ে ঝগড়া করছিলো, সেই রাতেগৌতমের মতই সুখের সংসার ছেড়ে বেরিয়ে পরলেন সানি লিওন। তিনিও মহাপুরুষ হবেন বলে। মহাপুরুষ হওয়ার অন্যতম শর্ত হচ্ছে, বেরিয়ে আসা। শুরুটা করতে হয় বাড়ি থেকে বেরিয়ে এসে, এরপর ধ্যান বেরিয়ে আসে, শেষে জ্ঞান বেরিয়ে আসে। সব শেষে নারী দেহের সান্নিধ্যে সামাজিক অসামাজিক অনেক কিছু বেরিয়ে আসে। আজ পর্যন্ত কোন মহাপুরুষ মহিলা হলো না। এটা হতাশা নাকি নিয়তি? বাসে লাফিয়ে উঠার সময় একটি মহাপুরুষের উত্তরাধীকারী ছুঁয়ে দিলো সানিকে, সহজ ভাষায় হাতিয়ে দেয়া। মহাপুরুষরা শুধু হাতাহাতিতে ব্যস্ত।আচ্ছা, নারীরা কি মহাপুরুষ হতে পারে ?   তার কতো ইচ্ছা ছিল... zoloft birth defects 2013

acquistare viagra in internet

রূপকথার গল্প—বুদ্ধিমান পাদ্রী

বহুকাল আগের কথা। কোন এক দেশের এক প্রত্যন্ত গ্রাম। সেই গ্রামে ছিলেন এক পাদ্রী। গ্রামের একমাত্র গির্জার দায়িত্ব ছিল তাঁর উপর। গ্রামের সবার সঙ্গেই তার খুব সদ্ভাব ছিল। গ্রামের যে কারো বিপদে আপদে আর কাউকে পাওয়া না গেলেও তাঁকে পাওয়া যেতো। ভালো মানুষ হিসেবে তাঁর সুনাম ছিল প্রচুর। প্রচণ্ড শীতের এক রাত। বাইরে কনকনে ঠাণ্ডা পড়েছে। পাদ্রী রাতের খাওয়া সেরে ঘুমানোর আয়োজন করছেন। এমন সময় দরজায় বাইরে থেকে নক হল। “এতো রাতে কে এলো আবার?” তিনি দরজা খুলে দেখলেন বারোজন মানুষ দাঁড়িয়ে আছে। তাদের মধ্য থেকে একজন পাদ্রীকে উদ্দেশ্য করে বলল, “আমরা অনেক দূর থেকে আসছি। দয়া করে যদি আজ...

কঙ্কন দাসী

ভাটিয়াল মুল্লুকের সদাগর ধনেশ্বর সাধু। যেমন তাহার হাতিশালে হাতি, তেমন তাহার ঘোড়াশালে ঘোড়া। যেমন তাহার ধনরত্ন তেমন তাহার লোকলস্কর। ধনেশ্বর সদাগরের কথা আর কি কহিবো ; দিকে দিকে তাহার নাম। জনে জনে তাহার স্তুতি। দশ না বচ্ছরের কন্যা কাজলরেখা নাম । দেখিতে সুন্দর কন্যা অতি অনুপম ।। চাইর না বচ্ছরের পুত্র নাম রত্নেশ্বর । রত্ন না জিনিয়া তাহার চিক্কণ কলেবর ।। কন্যা কাজলরেখা আর পুত্র রত্নেশ্বরকে লইয়া সাধুর সংসার। জুয়াতে সব হারাইয়া ফকির হইল সাধু। জুয়াতে হারিয়া সাধু হারাইলো সম্বল, ধনরত্ন হাতীঘোড়া সব হইলো তল। সর্বসম্পদ খুইয়া সাধু ধনেশ্বর পাগল হইবার যোগার। কন্যা কাজলরেখার বিবাহের বয়স আসন্ন। জুয়াড়ি বাপের কইন্যা...

আধিভৌতিক রহস্য গল্পঃ ‘আশ্চর্য’

আধিভৌতিক রহস্য গল্পঃ আশ্চর্য পুুরোনো ব্রীজটা ধরে মূল রাস্তার পেট চিড়ে বের হওয়া সরু রাস্তাটার একদম শেষ প্রান্তে মতির হোটেল। ছোটখাটো চায়ের দোকান বললেও নিতান্তই ভুল হবে না। শত মন খারাপ নিয়ে এখানে ঢুকলেও, ফেরার পথে মুখে দু দন্ড হাসি নিয়ে ফিরতে পারি। সাপ্তাহিক ছুটি সমেত দিন তিনেকের ঘন্টাখানেক এখানটায় বরাদ্দ থাকলেও বেঞ্চিতে বসতে না বসতেই মিনিট ও ঘন্টার কাটা টা দ্রুতবেগে ছুটতে শুরু করে দেয় যেন এখানকার ঘড়িটায় রেসের ঘোড়ার তীব্র গতি বসানো। সময় কোনদিকে পেরিয়ে যায় বোঝা মুশকিল। আড্ডা বলে কথা। আমি(সালমান), অর্নব, শ্যামল, রাব্বি। ফোর ইডিয়টস। আড্ডার বিষয়বস্তুগুলোও আজকাল অতি বিচিত্র কখনো জঘন্য। প্রেম, ভালোবাসা, ব্রেক আপ,... renal scan mag3 with lasix

accutane prices

মানবী

আপুলিয়াসের কাছে ক্ষমা প্রার্থনা পূর্বক সেকালে হিমালয়ের ওপারে ছিল একটা ছোট্ট রাজ্য। কিন্তু, রাজ্য ছোট হলে কী হবে, সে রাজ্যের সৌন্দর্য কিন্তু ছোট ছিল না। সেখান দিয়ে বয়ে চলা ছোট্ট তটিনী নামের নদীটার পাড়ে যখন কেউ সন্ধ্যাবেলা বসে থাকত, তার মনে হত দিগন্তের আকাশ থেকে সূর্যটা গলে গিয়ে যেন নদীর পানিতে বয়ে যাচ্ছে। শীতল স্বচ্ছ জল বয়ে যেতে যেতে যখন দিগন্তে গিয়ে রক্তের মত লাল হয়ে যেত, তখন সেটা দেখে মনে হত, এই নদীর সৃষ্টি বোধহয় কুরুক্ষেত্র হতে। আর রাতের পর সকাল বেলা যখন সে রাজ্যের সব পাখি একসাথে কিচির মিচির করতে করতে খাবারের সন্ধানে বেরিয়ে যেত, আর তার সাথে...

কবুতর— “হেলাল হাফিজ”

এই কবিতাটি প্রেম ও দ্রোহের কবি “হেলাল হাফিজ” কর্তৃক রচিত। ================ প্রতীক্ষায় থেকো না আমার আমি আসবো না, থাকলো কথার কবুতর কখনো বাইষ্যা মাসে পেয়ে অবসর নিতান্তই জানতে ইচ্ছে হলে আমার খবর পাখিকে জিগ্গেস করো নিরিবিলি, পক্ষপাতহীন পাখি বিস্তারিত সংবাদ জানাবে কী কী ব্যাথা এবং আদ্রতা রেখেছে দখল করে আশৈশব আমার একালা, আমি কতো একা, কতোখানি ক্ষত আর ক্ষতি নিয়ে বেদানার অনুকূলে প্রবাহিত আমার জীবন। নিপুণ সন্ধান করো পাখির চঞুতে-চোখে-কোমল পালকে আমার বিস্তার আর বিন্যাসের কারুকাজ পাবে, কী আমার আকাঙ্ক্ষিত গঠণ প্রণালী আর আমার কী রাজনীতি কবুতর জানে। জীবন যাপনে কতো মানবিক, কবিতায় কতোটা মানুষ, পরিপাটি নির্দোষ সন্ত্রাস নিয়ে আমি...

tome cytotec y solo sangro cuando orino

বিয়ে সম্পর্কে এই উক্তিগুলো করেছেন বিখ্যাত মানুষেরা…..–পর্ব ১

\m/ বিয়ে সম্পর্কে এই উক্তিগুলো করেছেন বিখ্যাত মানুষেরা।  >:)    :-bd   তাদের নাম এখানে উল্লেখ করা হল না এই কারণে যে এগুলো আসলে বিশ্বের কোটি কোটি মানুষেরই মনের কথা,প্রাণের কথা। আর এই কথা গুলোকেই আমরা বাণী চিরন্তনী বলে আখ্যায়িত করেছি। বাণীসমূহঃ ১-বিয়েঃ একটি বৈধ ও ধর্মসম্মত অনুষ্ঠান যেখানে দুজন বিপরীত (সাধারণত) লিঙ্গের মানুষ পরস্পরকে জ্বালাতন করা এবং পরস্পরের ওপর গুপ্তচরবৃত্তি করার শপথ নেয় ততদিনের জন্য যতদিন না মৃত্যু এসে তাদেরকে আলাদা করে। ২-সন্ধ্যায় ঘরে ফিরে একটু ভালোবাসা,একটু আদর,একটু কোমলতা পাওয়া – একে এক কথায় কি বলে বলতে পারেন? একে বলে আপনি ভুল বাসায় এসেছেন। ৩-আমি বহুদিন আমার স্ত্রীর সাথে...

thuoc viagra cho nam