Category: শিল্পকলা

metformin synthesis wikipedia

কাপরূপ কামাখ্যা ও একটি পৌরাণিক কাহিনী।

মাঝে মাঝে যখন হতাশা,দুরাশা,নিরাশাগুলো আমাকে আঁকড়ে ধরে তখন মনে একটি সুপ্ত বাসনা উঁকি দেয়।সব ছেড়ে ফেলে চলে যেতে ইচ্ছে হয় আজীবনের জন্য চির রহস্যময় কামরূপ কামাখ্যার দেশে।হায় কপাল, বাসনাটা থালা বাসনের মতই স্ব-স্থানে থেকে যায়, যাওয়া আর হয়ে উঠেনা।যে শঙ্খনীল কারাগারে আমি বন্দী তার থেকে যে মুক্তি নেই।ইচ্ছেকে দমন করি তখন অনিচ্ছায়। সেই এক দেশ বটেই কামরূপ কামাখ্যা।যাদু-টোনা, তন্ত্র-মন্ত্র, পাহাড়-পর্বত আর অরণ্যে ঘেরা স্বপ্নীল স্বর্গ।প্রাচীণ রূপ কথা, গল্প,ইতিহাস আর কিছু পৌরাণিক কাহিনীর এক অন্য ভুবন।আসলেই কি তাই? চলুন ঘুরে আসি আমার কল্পনায় কামরূপ কামাখ্যার সেই অন্যরকম ভুবন থেকে। বাংলা উইকিপিডিয়ায় সার্চ দিলে প্রথমেই যা জানা যাবে তা হল, কামরূপ কামাখ্যা... can your doctor prescribe accutane

venta de cialis en lima peru
irbesartan hydrochlorothiazide 150 mg

বরেণ্য চিত্রশিল্পীর প্রতি শ্রদ্ধাঞ্জলি কাইয়ুম চৌধুরীর জীবন এবং কর্ম

‘বরেণ্য চিত্রশিল্পীর প্রতি শ্রদ্ধাঞ্জলি কাইয়ুম চৌধুরীর জীবন এবং কর্ম’ কাইয়ুম চৌধুরী (জন্ম: মার্চ ৯, ১৯৩৪ - মৃত্যু: নভেম্বর ৩০, ২০১৪) মূল লেখকঃ “আবুল কালাম আজাদ”; সাংবাদিক, শিল্পসমালোচক এবং সাবেক সাধারণ সম্পাদক, ঢাকা সাব-এডিটরস কাউন্সিল। বাংলাদেশের শিল্পকলার ইতিহাসে জয়নুল আবেদিন, কামরুল হাসান, এস এম সুলতানের পরে যে ব্যক্তিটির নাম আসে তিনি হলেন শিল্পী কাইয়ুম চৌধুরী। “রূপ, রস, গন্ধ, স্পর্শ, শব্দ-এই ইন্দ্রিয়জাত উদ্দীপনা শিল্পীর পথ আলোকিত করে থাকে। যেখানে এই সব ইন্দ্রিয়জাত উদ্দীপনা নেই সেখানে শিল্পের অস্তিত্ব নেই।” শিল্পী ও তাত্ত্বিক বিনোদ বিহারী মুখোপাধ্যায়ের বক্তব্যের সঙ্গে শিল্পী কাইয়ুম চৌধুরীর শিল্পী মনও শিল্পকর্মের শতভাগ সাজুয্য রয়েছে। তার চিত্রকর্ম বাংলার মানচিত্রের একটি খন্ডিত অংশ। বাংলাদেশ কৃষি প্রধান দেশ, কৃষিই এদেশের মানুষের...

পিঁপড়াবিদ্যা- পিপীলিকার পাখা গজায় মরিবার তরে…

গল্পের শুরুটা খুব সাদামাটা। একটা মধ্যবিত্ত পরিবার। কর্মজীবন শেষে বাবা অবসরে চলে যাওয়া বাবার স্থলাভিষিক্ত হবার জন্য, সংসারের হাল ধরবার জন্য পুত্রের একের পর এক জুতোক্ষয়, কিন্তু চাকরি নামের সোনার হরিন রয়ে যায় অধরাই। নাহ, একটু ভুল বলা হল। যে চাকরির সুযোগ সে পাচ্ছে, তার শিক্ষাগত যোগ্যতা তাকে সে চাকরি করতে দিচ্ছে না। এদিকে বোনের পড়ালেখা বন্ধ হবার উপক্রম প্রায়। এরইমাঝে সুখকল্পনা গুলো খুব বেরসিকের মত হানা দেয় বারবার। একটা ভালো চাকরি, শহুরে স্মার্ট একটা মেয়ের সঙ্গ, দামী একটা গাড়িতে চড়ে লং ড্রাইভ- মিঠুর নিজেকে বড়ই স্বার্থপর মনে হয়। কল্পনার নাগাল সে পায় না, কল্পনাগুলো যেন এক একটা রসগোল্লা, আর...

চিরকুট- অনলাইন ম্যাগাজিন জগতে নতুন দিনের বার্তা…

অতি সাম্প্রতিক সময়ে সাহিত্যচর্চার একটি বড় মাধ্যম হয়ে উঠেছে অনলাইন। সোশ্যাল মিডিয়া কিংবা ব্লগস্ফিয়ার, সে যাই হোক না, বাঙালি তাকে সাজিয়ে নিয়েছে নতুন আঙ্গিকে, নিজের মত করে। বয়সের বিচারে বাংলা অনলাইন জগতকে শিশুই বলা চলে। কিন্তু এরই মাঝে এতে ছড়িয়ে পড়া সাহিত্যের পরিমাণ এত বিশাল ও ব্যপকতর যে, তা বাঙালির চিরায়ত সাহিত্যমনা মননের বিজ্ঞাপন হিসেবে কাজ করতে পারে। কিন্তু, গোলটা বাঁধে এখানেই। এই বিশাল ও ব্যপকতর সাহিত্য ভাণ্ডারটা অনলাইনের বিশালতর গণ্ডিতে ছড়িয়ে আছে। হয়তো প্রায়শই বিভিন্ন সংকলন কিংবা একক বই আসছে। কিন্তু, তা নিতান্তই ব্যক্তিকেন্দ্রিক। কিংবা বড়জোর গোষ্ঠিকেন্দ্রিক। সামগ্রিক স্বাদের এবং সকল মননের উপযোগী লেখার সংকলন বা সংরক্ষণ হয়েছে খুব...

zovirax vs. valtrex vs. famvir

স্বাধীনতা-উত্তর ভাষ্কর্য (পর্ব-৩)

শুরু করছি সৈয়দ মঞ্জুরুল ইসলামের ভাষ্য দিয়ে। ‘এখানে শিল্পচর্চা এগিয়ে নেওয়ার ক্ষেত্রে সমমনা শিল্পীরা গোষ্ঠীবদ্ধ হয়ে কাজ করছেন। শিল্পচর্চা আন্দোলন ছাড়াও জাতীয় আন্দোলন বা বিভিন্ন সময়ে জাতির সংকটকালে সাধারণের পাশে এসে দাঁড়িয়েছেন। বায়ান্নর ভাষা আন্দোলন, উনসত্তরের গণ-আন্দোলন, একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধ এসবে শিল্পী সমাজের অংশগ্রহণ স্বতঃস্ফূর্ত ছিল। তাই স্বাধীনতা-উত্তর বাংলাদেশে শিল্পীদের কাজে মুক্তিযুদ্ধের প্রবল উপস্থিতি ছিল অনিবার্য। শিল্পী জয়নুল আবেদিন থেকে তরুণ শিল্পীরা যাঁদের অনেকের জন্ম হয়তো একাত্তরের পর— তারাও  অন্তর দিয়ে অনুভব করেছেন মুক্তিযুদ্ধকে, এর অভিঘাত পড়েছে তাদের সৃষ্টিশীল চেতনায়।’ ( সৈয়দ মনজুরুল ইসলাম) বাংলাদেশে অনেক শিল্পী স্বাধিকার সংগ্রামকে উপজীব্য করে শিল্প রচনা করেছেন, করছেন আশা করি ভবিষ্যতেও করবেন। মুক্তিযুদ্ধকে উপজীব্য...

“Led Zeppelin” – স্বর্গের সিঁড়ি নির্মাণ করেছে যে গানের দল

লেড জেপিলিন (Led Zeppelin) ১৯৬৮ সালে লন্ডনে যাত্রা শুরু করা একটি রক ব্যান্ড।  গিটারিস্ট জিমি পেইজ, গায়ক বা ভোকাল  রবার্ট প্ল্যান্ট,  বেইজিস্ট এবং কি-বোর্ডিস্ট জন পল জোন্স এবং  ড্রামার জন বনহ্যাম  এর হাত ধরেই এই ব্যন্ডের জন্ম। ব্লুজ ওরিজিন এবং ফোক ধাঁচের গানের সাথে তাদের ব্যতিক্রমী হেভি মেটাল ধারার ইউনিক সঙ্গিত মূর্ছনা শুরুতেই বিশ্ব সঙ্গীত বোদ্ধাদের নজর কাড়ে। ‘ইয়ার্ড বার্ড’ দল গঠন করলেও তারা প্রথম সাইন করে অ্যাটল্যান্টিক রেকর্ডের সাথে ‘লেড জেপিলিন’ (Led Zeppelin) নামে।   ১৯৬৯ সালেই তাদের নাম শিরোনামের দুতি এ্যালবাম প্রকাশিত হয়; লেড জেপিলিন এক এবং লেড জেপিলিন দুই অর্থাৎ  Led Zeppelin (1969) ও Led Zeppelin II (1969)। এরপর ১৩ বছরের ব্যান্ড কেরিয়ারে তাঁরা...

অন্তিম যাত্রা…

 নাইটউইশ (Nighwish): Nightwish হচ্ছে ফিনল্যান্ডের একটি সিম্ফোনিক পাওয়ার মেটাল ব্যান্ড। ১৯৯৬ সালে গীতিকার এবং কি-বোর্ডিস্ট টমাস হলোপাইনেনের হাত ধরে ফিনল্যান্ডে গড়ে উঠে এই ব্যান্ডটি সাথে ছিলেন গীটারিস্ট ইম্পো ভুরিনিন এবং মুল গায়ক টারযা তুরেনিন। তারপর যোগ দেন বেইজিস্ট সামি ভান্সকা। Angels Fall First (1997) তাদের প্রথম এ্যালবাম। এরপর নাইটউইশ কেবলই এগুতে হয়েছে। তাদের টাইপে তাঁরাই অন্যতম সেরা। সিম্পোনিক পাওয়ার মেটাল ধাঁচের গান করে যে কয়টা ব্যান্ড দুনিয়াজুড়ে খ্যাতি কামিয়েছে তার মাঝে অপর সেরা হচ্ছে ফিনল্যান্ডেরই এপোক্যালেপ্টিকা।   ব্যান্ড লাইন আপের টাইমলাইন দেখুনঃ  Nightwish ব্যান্ডের discography নিম্নে দেয়া হল। Angels Fall First (1997) Oceanborn (1998) Wishmaster (2000) Century Child (2002) Once (2004) Dark Passion Play (2007) Imaginaerum (2011) সর্বশেষ এ্যালবাম ইমাজেনিরিয়াম এ তারা তাঁদের প্রিয় কবি  Walt Whitman থেকে  Song... achat viagra cialis france

metformin tablet

বিয়ে সম্পর্কে এই উক্তিগুলো করেছেন বিখ্যাত মানুষেরা…..–পর্ব ১

\m/ বিয়ে সম্পর্কে এই উক্তিগুলো করেছেন বিখ্যাত মানুষেরা।  >:)    :-bd   তাদের নাম এখানে উল্লেখ করা হল না এই কারণে যে এগুলো আসলে বিশ্বের কোটি কোটি মানুষেরই মনের কথা,প্রাণের কথা। আর এই কথা গুলোকেই আমরা বাণী চিরন্তনী বলে আখ্যায়িত করেছি। বাণীসমূহঃ ১-বিয়েঃ একটি বৈধ ও ধর্মসম্মত অনুষ্ঠান যেখানে দুজন বিপরীত (সাধারণত) লিঙ্গের মানুষ পরস্পরকে জ্বালাতন করা এবং পরস্পরের ওপর গুপ্তচরবৃত্তি করার শপথ নেয় ততদিনের জন্য যতদিন না মৃত্যু এসে তাদেরকে আলাদা করে। ২-সন্ধ্যায় ঘরে ফিরে একটু ভালোবাসা,একটু আদর,একটু কোমলতা পাওয়া – একে এক কথায় কি বলে বলতে পারেন? একে বলে আপনি ভুল বাসায় এসেছেন। ৩-আমি বহুদিন আমার স্ত্রীর সাথে...

শিল্পের আচার্য আমাদের ‘শিল্পাচার্য’ জয়নুল আবেদিন

বাংলার প্রকৃতি, জীবনাচার, ঐশ্বর্য, দারিদ্র্য এবং বাঙালির স্বাধীনতার স্পৃহা যিনি তুলি আর ক্যানভাসে বিশ্ববাসীর সামনে মূর্ত করে তুলেছিলেন, সেই শিল্পাচার্য জয়নুল আবেদিন মৃত্যুদিবস ছিল গতকাল। তাই তাঁআ মহৎ কর্মজীবনের কিছু অংশ তুলে ধরার চেষ্টা করলাম।  জয়নুল আবেদীনের পূর্বপূরূষের বাসস্থান ছিল ময়মনসিংহের অন্তর্গত ত্রিশাল থানার দরিরামপুর গ্রামে। তাঁর প্রপিতামহ অবশ্য ময়মনসিংহের কাচিঝুলি গ্রামে বসবাস করতে। পিতামহ ছমিরউদ্দিন ছিলেন ছন ব্যবসায়ী। সন্তানদের সুশিক্ষিত করে তোলার ইচ্ছা থাকলেও অকালে প্রয়াত হওয়ায় তাঁর এই ইচ্ছা পূরণ হয় না। জেষ্ঠ্য পুত্র ৮ম শ্রেনী পাশ করে শিবপুর ইঞ্জইনিয়ারিং স্কুলে ভর্তি হতে চাইলেও অর্থসংকট ও রুঢ় বাস্তবতার জন্য তাঁকে পুলিশ বিভাগের লিটারেট কনস্টেবলের চাকরি নিতে হয়। পরে...

স্বাধীনতা-উত্তর ভাষ্কর্য (পর্ব-২)

১৯৭১ সালে পূর্ব পাকিস্তানে যে ভয়াবহ গণহত্যার সূচনা হয় তার বিপরীতে স্বাধিকারের জন্য আন্দোলনরত সাধারণ মানুষের রক্তক্ষয়ী নয় মাসের যুদ্ধের মাধ্যমে স্বাধীন রাস্ট্র হিসেবে বাংলাদেশের জন্ম হয়। মুক্তিযুদ্ধ পরবর্তী সময়ে যুদ্ধের রূপক সাক্ষ্য হিসেবে তৈরি হয়েছে বিভিন্ন ভাষ্কর্য। প্রথম পর্বেই বলা হয়েছিল এসব ভাষ্কর্যের আবির্ভাব সম্পর্কে। এই পর্বে আরো খানিকটা যুক্ত করা হল। স্বাধীনতা পরবর্তী সময়ে অন্যান্য বিভিন্ন ক্ষেত্রের মত শিল্পকলা ক্ষেত্রেও ব্যপক পরিবর্তন আসে। শিল্প সাহিত্যের অন্যতম প্রদিপাদ্য বিষয় হয়ে উঠে স্বাধীনতযুদ্ধ। এই বিষয়ে সংরক্ষিত একটী বক্তব্য তুলে ধরছি, ‘উনিশ শতক থেকেই সারা বিশ্বে প্রজাতান্ত্রিক কিংবা জাতীয় রাষ্ট্রের উত্থানের ফলস্বরূপ দেশে দেশে জাতীয় বীরত্ব ও বিজয়ের সৌধরূপে গণপ্রাঙ্গণ ভাস্কর্যের...

বাংলা সাহিত্য ভুবনের অন্যতম নক্ষত্র – দ্বিজেন্দ্রলাল রায়

ধন ধান্য পুস্প ভরা আমাদের এই বসুন্ধরা তাহার মাঝে আছে দেশ এক সকল দেশের সেরা ও সে স্বপ্ন দিয়ে তৈরি সে যে স্মৃতি দিয়ে ঘেরা এমন দেশটি কোথাও খুঁজে পাবে না ক তুমি সকল দেশের রানি সে যে আমার জন্মভূমি… গানটি শুনলেই ভেতরে এক অন্যরকম অনুভূতি জাগে এই জন্মভূমির প্রতি, এই দেশমাতার প্রতি নাড়ির টানটা তখন যেন খুব তীব্র ভাবে অনুভব হতে থাকে, এই জন্মভূমির প্রতি ভালোবাসাটা যেন তখন গভীর থেকে আরও গভীর হয়। ইচ্ছে হয় ভালোবাসায় মিশে যাই এই দেশের মাটির সঙ্গে… গানটি শুনলে গর্বে বুক ভরে না এমন বাঙালি খুঁজে পাওয়া দুস্কর। বঙ্গজননী সকল দেশের রানী এ অহঙ্কার... missed several doses of synthroid

1st oscar

আহ অস্কার! বাহ অস্কার! (৮৬ বছর পূর্তি উপলক্ষ্যে পোস্ট)

The Academy Awards নামক খটমটে অনুষ্ঠানটি হল একটি বার্ষিক পুরষ্কার বিতরণী অনুষ্ঠান, যাকে সাধারণভাবে আমরা অস্কার অনুষ্ঠান হিসেবে চিনি। এখানে এক ন্যাংটো ব্যাটার মূর্তি পুরষ্কার হিসেবে দেওয়া হয় (আস্তাগফিরুল্লাহ! তবে নগ্নতাই অশ্লীলতা নয়…) আর এই মূর্তি জেতার জন্য হাঁ করে বসে থাকেন দুনিয়ার তাবৎ চলচ্চিত্র সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিবর্গ। ২০১৪ সাল পর্যন্ত মোট ৮৬ বার অস্কার অনুষ্ঠান সম্পন্ন হয়েছে যার গোরাপত্তন ঘটেছিলো ১৯২৯ সালের ১৬ মে। আগামীকালও ১৬ মে। অর্থাৎ অস্কারের সূচনার ৮৬তম বার্ষিকী। রৌপ্য, স্বর্ণ, হীরক এবং প্ল্যাটিনাম জয়ন্তী শেষে এবার কোন জয়ন্তীতে পা দিলো এই মহোৎসব, বুঝতে পারছি না। তবে এটা যে বিনোদন জগতের সবচেয়ে পুরানা অ্যাওয়ার্ড অনুষ্ঠান তাতে কোন...

‘রবার্ট নেস্তা বব মার্লে’ মেহনতি ও প্রথাবিরোধী মানুষের কণ্ঠস্বর

বব মার্লে (জন্ম: ৬ ফেব্রুয়ারি, ১৯৪৫ - মৃত্যু: ১১ মে, ১৯৮১)  যার জীবন বৈশ্বিক সংস্কৃতির ওপর তার শিল্পকর্মের অনুপম প্রভাব রাখে তিনি রবার্ট নেস্তা বব  মার্লে। ১১ মে ১৯৮১ সালের তাঁর চিরপ্রস্থান গোটা দুনিয়ার মেহনতি মানুষ এবং তাঁর শ্রোতাদের মনে যে তীব্র বেদনা ও যন্ত্রণার শীতল স্রোত বয়ে দেয় তা তাঁর কিংবদন্তীকে আরও কিংবদন্তী করে তোলে। বিংশ শতাব্দীর সবচেয়ে সহজাত এবং সংগ্রামী শিল্পী, বব মার্লের খ্যাতি “reggae” সঙ্গীতে জ্যোতিষ্কের মত চিরভাস্বর এবং তিনিই অগ্রপথিক। র‍্যাগে সঙ্গীতের এই আইকনিক শিল্পী  কেবল মেহনতি মানুষের কথা বলেননি বলেছেন সমাজের প্রায় সকল ধরণের অসঙ্গতির বিপরীতে।  মা-বাবার কোলে বব মার্লে   জ্যামাইকার নাইন মাইলে ৬ ফেব্রুয়ারি, ১৯৪৫ সালে জন্ম নেয়া বব মার্লে  একই সাথে রেগে শিল্পী, গীটার বাদক, গীতিকার। জ্যামাইকার কুখ্যাত এক শহরতলির বস্তিতে...

দৃষ্টিসীমার শৃঙ্খল ভঙ্গকারী দার্শনিক ও চিত্রকর ‘সালভাদর ডালি’

সালভাদর দালি (মে ১১, ১৯০৪ – জানুয়ারি ২৩, ১৯৮৯) কিছু মানুষের সৃষ্টিকর্ম তাদেরকে ঈশ্বরের কাছাকাছি একটি অবস্থান দিয়ে দেয়। অধিবাস্তববাদী শিল্পকর্ম দিয়ে সেরকমই একটি স্থানে পৌঁছানো চিত্রশিল্পী সালভাদর ডালি। তাঁর একক অধিবাস্তব শিল্পকৌশল এবং অনবদ্য কল্পনাশক্তি দিয়ে প্রকৃতির সবকিছুর মাঝে মানবসত্ত্বাকে ফুটিয়ে তোলার জন্য তাঁর শিল্পকর্মগুলো অন্য সবার থেকে ভিন্ন। অদ্ভুত ঢঙ্গের এই কাজগুলোই তাঁকে খ্যাতির শীর্ষে নিয়ে গেছে। সালভাদর দালির পুরো নাম ‘Salvador Felipe Jacinto Dalí Domènech’।  জন্ম স্পেনের কাতালান শহরের ফিকুইরেসে ১১ই মে, ১৯০৪ সালে। নোটারী বাবার পরিবারের তিন সন্তানের মধ্যে দালি ছিলেন দ্বিতীয়। বাবার পৃষ্ঠপোষকতায় তাঁর শিল্পচর্চা শুরু।  বড় ভাইয়ের মৃত্যুর পর দালির জন্ম হয় এবং বড়... side effects of quitting prednisone cold turkey

চট্টগ্রাম আর্টস্ কমপ্লেক্স: একটি স্বপ্নের সূচনা

চট্টগ্রাম শহরের সংস্কৃতিচর্চার ঐতিহ্য খুব প্রাচীন ও সমৃদ্ধ। তবে একটা কথা স্বীকার করতেই হবে যে এর মধ্যে যথাযথ পরিকল্পনা, পেশাদারিত্ব, ধারাবাহিকতা, সর্বোপরি মান-নিয়ন্ত্রণের বিষয়টি তেমন গুরুত্ব পায়নি কখনো। পাশাপাশি এটাও প্রবলভাবে সত্য যে শিল্প, সাহিত্য, সংস্কৃতি ও সৃজনশীলতার চর্চার সঙ্গে যুক্ত মানুষদের একত্রে মিলবার, ভাব বিনিময় করবার, সাদা বাংলায় স্রেফ ‌‘আড্ডা’ দেবার অনুকূল কোনো স্বাস্থ্যকর, রুচিশীল পরিসরও এই শহরে গড়ে ওঠেনি তেমন। বিচ্ছিন্নভাবে কেউ শিল্পকলা একাডেমির মাঠে, কেউ চেরাগির মোড়ে ফুটপাথে দাঁড়িয়ে, কেউ বিশদ বাঙলা-য় কেউ-বাবাতিঘরে  যার যার মত গল্পগাছা করে দুধের স্বাদ ঘোলে মেটান। কিন্তু এভাবে তো আর সৃজনশীল মানুষদের পরস্পরের কাছাকাছি আসা, চেনা-জানা, অভিজ্ঞতা বিনিময় ও গঠনমূলক আলাপ-সংলাপের খুব দরকারি...

মৃত্যু কি অনিকেত প্রান্তর???

পোস্ট শিরোনামঃ মৃত্যু কি অনিকেত প্রান্তর? আসলেই কি মৃত্যুই আমাদের অনিকেত প্রান্তর? একটু আর্টসেলের অনিকেত প্রান্তরের গানের কথা তারপর আমার কিছু কথা বলব আপনাদের। অনিকেত প্রান্তর – আর্টসেল “তবুও এই দেয়ালের শরীরে- যত ছেঁড়া রঙ, ধুয়ে যাওয়া মানুষ, পেশাদার প্রতিহিংসা, তোমার চেতনার যত উদ্ভাসিত আলো- রঙ আকাশের মতন অকস্মাৎ নীল, নীলে ডুবে থাকা তোমার প্রিয় কোন মুখ, তার চোখের কাছাকাছি এসে কেন পথ ভেঙে… দুটো মানচিত্র এঁকে দুটো দেশের মাঝে, বিঁধে আছে অনুভূতিগুলোর ব্যবচ্ছেদ… তবুও এইখানে আছে অবলীল হাওয়া জানালা বদ্ধ ঘরে আসে যায়, দেয়াল ধরে বেড়ে ওঠে মধ্যরাত তোমার ছায়ায় জমে এসে ভয়। আলোকে চিনে নেয় আমার অবাধ্য সাহস,...

স্বাধীনতা-উত্তর ভাষ্কর্য (পর্ব-১ )

স্বাধীনতা পরবর্তীকালীন জীবনের সকল ক্ষেত্রে যেমন পরিবর্তন এসেছে, শিল্পকলার ক্ষেত্রেও এ পরিবর্তনের ছোঁয়া লেগেছে। স্বাধীনতোত্তরকালে কুসংস্কার, অশিক্ষা, ধর্মীয় গোঁড়ামি সত্ত্বেও এদেশে আধুনিক স্থাপত্য ও ভাস্কর্য চর্চায় এক নতুন উদ্দীপনায় অগ্রসর হয়েছে। মুক্তিযুদ্ধকে উপজীব্য করে বিশাল আকৃতির স্থাপত্য ও ভাস্কর্যের মাধ্যমে আমাদের শিল্পীরা সামাজিক নিয়ম-নীতির প্রচলিত গোড়ামির শিকল ভাঙ্গতে সক্ষম হয়েছেন। বিশ শতকে, বিশেষত দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পূর্বাপর সময়ে সমাজতান্ত্রিক মনোভাবাপন্ন রাষ্ট্রসমূহে গণবিপ্লব ও তার বিজয়ের গাথামূলক বৃহদায়তন বহিরাঙ্গন ভাস্কর্য নির্মাণের ব্যাপক প্রবণতা লক্ষ করা যায়। বিশ শতকের সত্তরের দশকে বাংলাদেশের রাষ্ট্র ও জনমনেও একইভাবে মুক্তিযুদ্ধ ও তার বিজয়কে স্মরণীয় করে রাখতে বহিরাঙ্গনে বৃহদায়তন সৌধ ভাস্কর্যের চাহিদা তৈরি হয়। বাংলাদেশের স্বাধীনতা সংগ্রামের...

viagra en uk
private dermatologist london accutane
wirkung viagra oder cialis