Category: ব্যক্তিত্ব

অ্যাডভেঞ্চার অথবা হারিয়ে যাওয়ার গল্প বলে যাওয়া…

শী এর অপরুপা রহস্যময়ী নারী আয়েশা অথবা অ্যালান কোয়াটারমেইনের সাথে ওয়াইল্ড আফ্রিকায় চষে বেড়ানো… সাদামাটা জীবনের মারপ্যাঁচে পড়ে যারা একটু হাঁফ ছেড়ে বাঁচতে চান, দুর্গম শহর, রাজপথ বা মিসরের পিরামিডের ভেতরের অপার রহস্যে সামিল হতে চান, তাদের জন্য হেনরি রাইডার হ্যাগার্ড হচ্ছেন আশ্চর্য এক জাদুকাঠির নাম। শৈশব কৈশোরে অ্যাডভেঞ্চারের নেশায় বুঁদ করে রাখা এই কালজয়ী লেখকের আজ মৃত্যুদিবস। হেনরী রাইডার হ্যাগার্ড জন্মগ্রহণ করেন ১৮৫৬ সালের বাইশে জুন, ইংল্যান্ডের নরফোকের ব্রেডেনহামে। দশ ভাই বোনের সংসারে তিনি ছিলেন অষ্টম। বাবার সামর্থ ছিলো না, তাই পড়তে পারেননি ভালো কোন স্কুল কলেজে। আর্মিতে চাকরির জন্য পরীক্ষা দিয়েছিলেন, কিন্তু তাতে পাশ করতে পারেননি। এরপর ব্রিটিশ...

বিদগ্ধ, সাম্যবাদী এবং প্রথাবিরোধী চিরনবীন এক কবির উপাখ্যান

দেয়ালে দেয়ালে মনের খেয়ালে লিখি কথা। আমি যে বেকার, পেয়েছি লেখার স্বাধীনতা। লেখালেখির স্বাধীনতা পাওয়া এমন এক কবির কথা বলবো আজ; যার নাম রাখা হয়েছিল ‘রমলা’ খ্যাত সাহিত্যিক মনীন্দ্রলাল বসুর গল্প এক গল্পের নামানুসারে। ‘আমি এক দুর্ভিক্ষের কবি’- বলে নিজেকে প্রকাশ করে গিয়েছিলেন তিনি। এই সেই কবি যিনি পূর্ণিমা চাঁদকে যিনি ঝলসানো রুটির মত অশ্রুতপূর্ব উপমায় ভূষিত করেছিলেন। কবিতা তোমায় দিলাম আজকে ছুটি’ বলে যে কবি তাঁর সংগ্রামী চিন্তাধারার প্রতিফলন ঘটিয়েছিলেন তাঁর অবিস্মরণীয় সাহিত্য-সৃষ্টির মাধ্যমে। প্রচন্ড আত্মবিশ্বাসী কণ্ঠে বলেছেন- আদিম হিংস্র মানবিকতার যদি আমি কেউ হই স্বজনহারানো শ্মশানে তোদের চিতা আমি তুলবোই। আজ ১৩ মে বাংলা সাহিত্যের মার্কসবাদী ভাব ধারায়... wirkung viagra oder cialis

দ্য লেডি উইথ দ্য ল্যাম্প!

১৮৫৪! ক্রিমিয়ার যুদ্ধের দাবানল ছড়িয়ে পড়েছে হুতাশনের মত। যত্রতত্র আহত সৈনিকেরা ছড়িয়ে আছে। দেখার মত নেই কেউ। ইউরোপে প্রভুত্ব কায়েমের নিমিত্তে রাশিয়ার সাথে ইংল্যান্ড, ফ্রান্স আর ইতালির এই যুদ্ধে যতটা না বিভীষিকা ছড়াচ্ছে যুদ্ধক্ষেত্রে, তার চেয়ে কিছু কম আসছে না হাসপাতালে। আহত সৈনিকদের আহাজারিতে তার বাতাস ভারী হয়ে উঠছে। হাসপাতালের ধারণ ক্ষমতা পার হয়ে গেছে বহু আগেই। তবু, নতুন আহত সৈনিক আশা বন্ধ হচ্ছে না। স্ক্যাটারি (বর্তমান ইস্তানবুলের অন্তর্গত) এর হাসপাতালের অবস্থা তখন এক শব্দে — বিভীষিকাময়! ব্রিটেনের যুদ্ধ বিষয়ক উপদেষ্টা সিডনি হারবার্ট এর কাছে তখন মনে হল, পুরো ইংল্যান্ডে কেবল এক জনই এই সময়ে সব কিছুর হাল ধরার সক্ষমতা রাখেন — ফ্লোরেন্স নাইটিংগেল...

acquistare viagra in internet

‘রবার্ট নেস্তা বব মার্লে’ মেহনতি ও প্রথাবিরোধী মানুষের কণ্ঠস্বর

বব মার্লে (জন্ম: ৬ ফেব্রুয়ারি, ১৯৪৫ - মৃত্যু: ১১ মে, ১৯৮১)  যার জীবন বৈশ্বিক সংস্কৃতির ওপর তার শিল্পকর্মের অনুপম প্রভাব রাখে তিনি রবার্ট নেস্তা বব  মার্লে। ১১ মে ১৯৮১ সালের তাঁর চিরপ্রস্থান গোটা দুনিয়ার মেহনতি মানুষ এবং তাঁর শ্রোতাদের মনে যে তীব্র বেদনা ও যন্ত্রণার শীতল স্রোত বয়ে দেয় তা তাঁর কিংবদন্তীকে আরও কিংবদন্তী করে তোলে। বিংশ শতাব্দীর সবচেয়ে সহজাত এবং সংগ্রামী শিল্পী, বব মার্লের খ্যাতি “reggae” সঙ্গীতে জ্যোতিষ্কের মত চিরভাস্বর এবং তিনিই অগ্রপথিক। র‍্যাগে সঙ্গীতের এই আইকনিক শিল্পী  কেবল মেহনতি মানুষের কথা বলেননি বলেছেন সমাজের প্রায় সকল ধরণের অসঙ্গতির বিপরীতে।  মা-বাবার কোলে বব মার্লে   জ্যামাইকার নাইন মাইলে ৬ ফেব্রুয়ারি, ১৯৪৫ সালে জন্ম নেয়া বব মার্লে  একই সাথে রেগে শিল্পী, গীটার বাদক, গীতিকার। জ্যামাইকার কুখ্যাত এক শহরতলির বস্তিতে...

দৃষ্টিসীমার শৃঙ্খল ভঙ্গকারী দার্শনিক ও চিত্রকর ‘সালভাদর ডালি’

সালভাদর দালি (মে ১১, ১৯০৪ – জানুয়ারি ২৩, ১৯৮৯) কিছু মানুষের সৃষ্টিকর্ম তাদেরকে ঈশ্বরের কাছাকাছি একটি অবস্থান দিয়ে দেয়। অধিবাস্তববাদী শিল্পকর্ম দিয়ে সেরকমই একটি স্থানে পৌঁছানো চিত্রশিল্পী সালভাদর ডালি। তাঁর একক অধিবাস্তব শিল্পকৌশল এবং অনবদ্য কল্পনাশক্তি দিয়ে প্রকৃতির সবকিছুর মাঝে মানবসত্ত্বাকে ফুটিয়ে তোলার জন্য তাঁর শিল্পকর্মগুলো অন্য সবার থেকে ভিন্ন। অদ্ভুত ঢঙ্গের এই কাজগুলোই তাঁকে খ্যাতির শীর্ষে নিয়ে গেছে। সালভাদর দালির পুরো নাম ‘Salvador Felipe Jacinto Dalí Domènech’।  জন্ম স্পেনের কাতালান শহরের ফিকুইরেসে ১১ই মে, ১৯০৪ সালে। নোটারী বাবার পরিবারের তিন সন্তানের মধ্যে দালি ছিলেন দ্বিতীয়। বাবার পৃষ্ঠপোষকতায় তাঁর শিল্পচর্চা শুরু।  বড় ভাইয়ের মৃত্যুর পর দালির জন্ম হয় এবং বড়... achat viagra cialis france

মা দিবসে আমার মা ভার্সাস ম্যাক্সিম গোর্কির মা

ম্যাক্সিম গোর্কির মা ভার্সাস বাংলার গ্রামীণ এক সংগ্রামী মা [a true story] মা! হৃদতন্ত্রী নেচে ওঠা একটি শব্দ, যেন বুকের মাঝে বয়ে চলা কোন শান্ত জলাধার। মানুষ ছাড়াও অন্যান্য হিংস্র প্রাণিদের মধ্যেও ‘মায়ের’ স্বভাব অনেকটাই ‘মাতৃসুলভ’। যে হিংস্র বাঘটি এই মাত্র একটি হরিণকে অত্যন্ত নিষ্ঠুরভাবে হত্যা করে খেয়ে আসলো, তাকেও তার ছোট্ট শাবক কিভাবে কান-লেজ কামড়াচ্ছে ও তার ‘হিংস্র মা’ ছোট্ট শাবককে নানাবিধ অনুসঙ্গে বা শব্দ করে তার প্রতি-উত্তর দিচ্ছে, তা এখন স্যাটেলাইট টিভির কল্যাণে প্রত্যহ আমরা প্রত্যক্ষ করছি। ‘মা’দের নিয়ে এ অঞ্চলে কম গল্প-উপন্যাস-সিনেমা তৈরী হয়নি। এমনকি বিশ্বসাহিত্যে ম্যাক্সিম গোর্রির ‘মা’ উপন্যাস অন্যতম পাঠকপ্রিয় ও পঠিত উপন্যাস হিসেবেও খ্যাত।...

রায় পরিবারের শত বর্ষের ইতিহাস – [ আমার মা চিত্রা রায়ের জবানীতে)

আমাদের এই রায় পরিবারের ইতিহাস লিখতে গেলে হয়তো কয়েক শত বছর পিছনে চলে যেতে হবে । এর উৎস কোথায় , কবে কিভাবে এখানে এই রায় পরিবার জন্মগ্রহন করেছিলো তার ইতিহাস হয়তো বা কয়েক শতকের । কিন্তু শত বর্ষের ইতিহাস মাত্র দুটো পুরুষেই সীমাবদ্ধ থাকছে। আমার পিতামহ স্বর্গীয় শ্রী বিপীন চন্দ্র রায় ১৮৭২ সালে ময়মনসিংহ জেলার লামকাইনে জন্ম গ্রহন করেন । তাঁর পিতার নাম ছিলো শ্রী মুক্তারাম রায় । মুক্তারাম রায় তার পিতা মাতার এক মাত্র সন্তান হলেও তাঁর ঘরে ছিলো পাঁচ সন্তান । দুই পুত্র গিরীশ চন্দ্র রায় ও বিপীন চন্দ্র রায় এবং তিন কন্যা । গিরীশ চন্দ্র রায় তার...

glyburide metformin 2.5 500mg tabs
half a viagra didnt work

আরেক পাগলাবাবার সাথে আমার পরিচয় হয় যেভাবে

কলেজ জীবনে চট্টগ্রাম কলেজে পড়তাম, প্রায়ই যেতাম পতেঙ্গা সমুদ্র সৈকতে। দাপ্তরিক সেমিনারে গতমাসে চট্টগ্রাম গিয়ে বিকেলে প্লান করি পতেঙ্গা সৈকতে যাবো অনেকদিন পর। নদী আর সমুদ্রের প্রতি প্রচণ্ড টান আমার, মনে হয় তীরে দাঁড়ালেই বুড়ো সেন্টিয়াগোকে দেখতে পাবো হারপুন হাতে কিংবা নৌকোয় বাঁধা তিমিসহ। অনেক বছর যাবত আমার মননে সমুদ্র আর সেন্টিয়াগো গাঁথা কেন যেন ! সেন্টিয়াগো পুরুষ এবং আমি সমকামি না হয়েও, তার সাথে অনেক দিনের প্রেম আমার। ইহকাল ত্যাগ না করলে হয়তো দেখা করতাম এ পুরুষ প্রেমিকের সাথে তার বরফ ঢাকা ওক গাছের ভেঙে পড়া বাড়িতে গিয়ে! পড়ন্ত বিকেলে একাই প্রস্তুতি নিয়ে কাঠগড়ের পথে হাঁটছি পতেঙ্গার দিকে। একা... all possible side effects of prednisone

ভারতের স্বাধীনতা – প্রীতিলতা ওয়াদ্দেদার

রাণী নামের ছোট্ট মেয়েটি । আজ তার জন্মদিন । ১৯১১ সালের ৫ মে ঠিক এই দিনে মিউনিসিপ্যাল অফিসের হেড কেরানী জগদ্বন্ধু ওয়াদ্দেদার এর ঘর আলোকিত করে আসেন আমাদের সবার পরিচিত প্রীতিলতা ওয়াদ্দেদার । আদর করে মা প্রতিভাদেবী তাঁকে “রাণী” ডাকতেন । । তাঁদের পরিবারের আদি পদবী ছিল দাশগুপ্ত। পরিবারের কোন এক পূর্বপুরুষ নবাবী আমলে “ওয়াহেদেদার” উপাধি পেয়েছিলেন, এই ওয়াহেদেদার থেকে ওয়াদ্দেদার বা ওয়াদ্দার । চট্টগ্রামের ধলঘাট গ্রাম । পড়ালেখার সুযোগসুবিধা তেমনটি নেই । তারপরও জগবন্ধু প্রতিভাদেবী তাদের আদরের মেয়েটিকে পড়ানোর জন্য সেসময়ে তাদের পক্ষে যতটা সম্ভব তা দিয়েছিলেন । শুরুতেই তৃতীয় শ্রেণী , ডাঃ খাস্তগীর উচ্চ বালিকা বিদ্যালয , ১৯১৮... viagra in india medical stores

venta de cialis en lima peru

যে প্রেমটি হল না

এটা বড় আক্ষেপের কথা গেল প্রেমগুলোর দোষে তোমাকে যে ভাল লেগেছে তা হয়তো বলাই হবে না আবার প্রেমে পড়লে লোকে মন্দ বলবে চরিত্র নিয়ে টানাটানি শুরু হবে তাই প্রচন্ড ভাল লাগা স্বত্তেও তোমাকে আর সেটা বলছি না যেদিন প্রথম দেখেছিলাম তোমাকে ঠিক সেদিন থেকেই ঘটনা বুঝতে সময় লাগেনি আমার এক মূহুর্ত এরকম মূহুর্ত যে আরও এসেছে বার কয়েক জীবনে প্রতিটি প্রেমই বুঝি প্রথম প্রেমের মত প্রতিবারই মনে হয় এই বুঝি আজন্ম আকাঙ্ক্ষিত প্রেম এই বুঝি শেষ প্রেম, আর জীবনেও না… গেল প্রেম গুলোর মত তুমিও কি সেই গৎবাঁধা হবে নাকি আমাকে অবাক বিষ্ময়ে বিস্মিত করবে এই ভেবেই যে দিন রাত...

metformin synthesis wikipedia

অপারেশন ঈগল (পর্ব-১)

                                                       গোলাম রব্বান, একজন মুক্তিযোদ্ধা(ডেপুটি কলাম কমান্ডার, অপারেশন ঈগল,রাঙ্গামাটি,।গেরিলা যুদ্ধ সমন্বয়কারী ১নং সেক্টর ও অপারেশন কমান্ডার বি.এল.এফ, চট্টগ্রাম অঞ্চল।) তাঁর মুক্তিযুদ্ধ স্মৃতি নিয়ে লিখা এই অমর ইতিহাস একটি জার্নাল থেকে সংগৃহীত। লেখাটি হুবুহু তুলে ধরা হল। ৭১”এ বাংলাদেশের দক্ষিণ পূর্ব রণাঙ্গনের একটি গৌরোজ্জ্ব্ল অভিযানঃ ১৯৭১” এর ন”মাসের মরণজয়ী মুক্তিযুদ্ধে বাংলাদেশের বিভিন্ন অঞ্চলে মুক্তিযোদ্ধাদের সাথে হানাদার পাকিস্তানি বাহিনী ও তাদের সহযোগী রাজাকার, আলবদর, আল শামসসহ বিভিন্ন ঘাতক গোষ্ঠীদের মরণপণ যুদ্ধ সংঘটিত হয়। মুক্তিযুদ্ধ পরিচালনার সুবিধার্থে স্থল, বিমান ও নৌ-বাহিনীর সমন্বয়ে ১১টি সেক্টরের মাধ্যমে মুক্তিযুদ্ধ পরিচালিত হয়। যা মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস ও বিভিন্ন লেখকের লেখনীতে উধৃত আছে। আজকের এই লেখায় এমন এক অঘোষিত... doctus viagra

রোমন্থনকাল- কলিমুদ্দির লজ্জা…

১৯৭১ সালে কলিমুদ্দির বয়স ছিলো তেরো বছর। হাতে অস্ত্র তুলে যুদ্ধ করার জন্য যথেষ্ট বয়স। তার সাথের সবাই তখন যুদ্ধে। মা ও মাটির টানে মাথায় কাফন বেঁধে বুকের রক্তে একটু একটু করে ছিনিয়ে আনছে কাঙ্ক্ষিত স্বাধীনতা সবুজের বুকে পবিত্র লাল। কিন্ত কলিমুদ্দি যুদ্ধে যান না ভয়ে, তিনি মরতে চাননা, তার বাবা বড়রূপনগর গ্রামে শান্তি কমিটির চেয়ারম্যান। গ্রামে তাদের অঢেল সম্পত্তি, ঘরে তিন তিনটা সোমত্ত সুন্দরী মেয়ে, অসুস্থ স্ত্রী আর একমাত্র সন্তানকে নিরাপদ রাখতেই সম্ভবত তিনি হায়েনাদের সাথে হাত মেলান। একাত্তর অনেক রহস্যের সময়!দুর্বোধ্য একাত্তরের রহস্যের কীনারা করা কঠিন। পরিস্থিতি মানুষকে অমানুষে রূপান্তরিত করেছিলো সে সময়। ★ তিনদিন ধরে কৃষ্ণটিলা ইউনিয়নের...

acne doxycycline dosage puedo quedar embarazada despues de un aborto con cytotec