Category: রম্যরচনা

সহীহ ইতিহাসনামা

(এক) ইতিহাস পড়ি এটাই শেষ কথা নয় আমার হাতেই রচিত হবে আগামীর ইতিহাস। ইতিহাসের একজন লেখকের বই পড়লে সব বুঝা যায়। দুই জনের পড়লে তুলনামূলক নিজ আদর্শে সত্য মিথ্যা অনুধাবন ও নির্ণয় করা যায়। বেশি লেখকের বই পড়লে দ্বিধায় পড়তে হয়। কোনটা ঠিক আর কোনটা ঠিক নয়। একজন ঐতিহাসিক সময়ের স্বাক্ষী না গোপালের স্বাক্ষাী হয়ে সত্য মিথ্যা যা হউক যাচাই না করে নিজ আদর্শ, নিজ বিশ্বাস, নিজ পক্ষীয় ইতিহাস রচনা করে। ভবিষ্যৎ সেই ইতিহাস পড়ে নতুন প্রজন্ম কি জানবে? একথা আর নতুন করে না বলাই শ্রেয়। ইতিহাস সৃষ্টি থেকে আজ অবধী ঐতিহাসিকগণ ছিলেন তাদের সিংহ ভাগ ছিলেন কোন না কোন...

zoloft birth defects 2013

একজন ফেসবুক সেলিব্রেটির একদিন

সকালে ঘুম হইতে উঠিতে উঠিতে সচরাচর সকাল দশটা বাজিয়া যায় পথিকের। কিন্ত গত কিছুদিন ধরিয়াই তাহাকে প্রতিদিন সকাল আটটার আগেই ঘুম হইতে উঠিতে হইতেছে। রাত জাগিয়া দেশ ও জাতির জন্য মহা গুরুত্বপূর্ণ কাজ করায় এত তাড়াতাড়ি ঘুম হইতে উঠিতে সচরাচর কোন ইচ্ছাই হয় না পথিকের কিন্ত তাহার বড় বোন এই বাসায় বেড়াইতে আসিবার পর হইতে সে এই গভীর সমস্যায় পতিত। শুধু সমস্যা না , যাহাকে বলে গুরুতর সমস্যা। পথিকের বোনের ৪ বছর বয়সী ছেলে রুদ্র সকাল ৯টা হইতেই তাহার ঘরে প্রবেশ করিয়া “মামা মামা চকলেট খামু” বলিয়া চিৎকার শুরু করে। তা করুক, ইহা তাহার বাক স্বাধীনতা, মৌলিক অধিকার। কিন্তু সমস্যা...

synthroid drug interactions calcium

ঈদের পরের আন্দোলন ১৮+

নিশুতি নির্জন রাত, ঝিঁঝিঁ পোকার অবিশ্রান্ত ডাক ছাড়া আর কোন শব্দ নেই, আলিশান বাড়িটার সিঁড়িঘরের নীচে আলপিন পতন নীরবতায় কোনার দিকে লুকিয়ে ছিলো চোরটা। রুটিনমাফিক চেকিংয়ে বেড়িয়ে সেদিকে চোখ গেলো তোবারক সাহেবের, নড়াচড়া টের পেতেই দেখলেন কালো দুটো পা থেকে দশটা সাদা নোখ তার দিকে তাকিয়ে হিহি করে হাসছে, তোবারক সাহেব খানিকটা ভড়কে গেলেন। তিনি পা’ধারীর মুখের দিকে তাকাবার প্রয়োজন মনে করলেন না, যা বোঝার বুঝে নিলেন। ষাট ওয়াটের বাতিটার সুইচ টিপে দিতেই দেখা গেলো চোরের পরনে ছাই রং এর হাওয়াই শার্ট আর ছেড়া ফাঁটা জিন্সের প্যান্ট। তোবারক সাহেব সেই ছাই রঙা শার্টের খসখসে কলারটা খপ করে ধরে টেনে হিঁচড়ে...

acquistare viagra in internet
metformin gliclazide sitagliptin

এস.এস.সি. রেজিস্ট্রেশানের দিন

আজকে জীবনের খুব গুরুত্বপূর্ণ একটা দিন জীবনের প্রথম বোর্ড পরীক্ষার জন্য রেজিস্ট্রেশান করা। সবাইকে গতকালই বলে দেওয়া হয়েছে প্রিন্সিপাল স্যার এর উপস্থিতিতেই এই কাজটা সম্পাদন হবে, তাই প্রয়োজনীয় তথ্যাবলী যেমন বর্তমান ঠিকানা, স্থায়ী ঠিকানা, নামের বানান সঠিক ভাবে লিখে একটা কাগজে লিখে আনতে। বেশ আগের কথা মোবাইলের এর প্রচলন খুব একটা শুরু হয়নি। যে কেউ ইচ্ছা করলেই মোবাইলে ফোন করে কথা বলে, তথ্য ঠিক করে নেওয়ার উপায়টা খুব একটা সস্তা হয়নি। রেজিস্ট্রেশান এর দিন- একটু শীত শীত সকাল, ঠাণ্ডা পড়েছে। বেশি কনকনে না, সবে শীতের শুরু। আমাদের চোখেমুখে এখনও ঘুম। আমাদের সামনে একজন স্টাফ প্রত্যেকে রেজিস্ট্রেশান পেপার দিচ্ছে। আর রেজিস্ট্রেশান... zithromax azithromycin 250 mg

side effects of quitting prednisone cold turkey

গণতন্ত্র স্মৃতি টুর্নামেন্ট

প্রতি ৫ বছর পর পর আমাদের শহরে গণতন্ত্র স্মৃতি টুর্নামেন্ট নামে একটা ঐতিহ্য বাহী টুর্নামেন্ট আয়োজিত হয় । দুটি দল এই টুর্নামেন্ট জেতার জন্য মরণপণ লড়াই করে থাকে । রিয়াল-বার্সার ধ্রুপদী লড়াইয়ের চেয়ে কোন অংশেই কম নয় যেন এ লড়াই। তাই ভালবেসে আমরাও এই লড়াইকে এল ক্লাসিকো বলে ডাকি। মাঠের টুর্নামেন্ট গড়ানোর আগে মাঠের বাইরে যে লড়াইটা হয় সেটাও কম আকর্ষণীয় নয়। প্রতিবারের মত এবারো সেই লড়াইয়ের উৎস নির্দলীয় টুর্নামেন্ট কমিটি। এই কমিটির গঠনের উদ্দেশ্যে দুই দলের মধ্যে ঐতিহ্য বাহী গোলটেবিল বৈঠক চলছে।   “এ” দলঃ আমরা তো বি দলের প্রধানরে টেলিফোন করছিলাম । কইছিলাম আপনারা আসেন। কিছু লোকের নাম... para que sirve el amoxil pediatrico

টমেটো আর পেন্সিল কম্পাসের গল্প

তুহিন বসেছে বাসের দ্বিতীয় সারিতে। জানালার পাশের সিটটা খালিই ছিল। সেখানে বসে নি। বিশেষ কারণে। বাসের ভিড় এখনও তেমন একটা বাড়ে নি। তবে এতক্ষণে বেশ কয়েকটা “মাল” ওঠার কথা ছিল। এখনও একটাও ওঠে নি। বাস মালিবাগ থেকে মৌচাকের দিকে এগোচ্ছে। মৌচাক মোড়ে বাস থামতেই অবশেষে উঠল, সেই অতি আকাঙ্ক্ষিত বস্তু – একটা খাসা মাল। সম্ভবত, নর্থ সাউথে পড়ে। উত্তর-দক্ষিণ বিশ্ববিদ্যালয়। তুহিন মনে মনে হাসল। এইসব আজগুবি নাম যে তারা কোথায় পায় আল্লাই জানে। নাম হচ্ছে তাদের কলেজের। রাজউক। সেইরকম ভাব! তুহিন মালটার দিকে তাকাল। খাসা চেহারা। এই প্রাইভেট ভার্সিটির মেয়েগুলো না…! এত সুন্দর কীভাবে হয়? দেখলেই ইচ্ছে করে টমেটোর মত...

লুলামি রিটার্নস!

সাকিব সম্প্রতি কিঞ্চিত ক্যাচালে আছে। ক্যাচালের নাম কুলসুম; কুলসুম বানু। এই ভয়াবহুস্টিক ক্যাচাল তার গলায় মুক্তোর মালার মত যেই মহান ব্যক্তি ঝুলিয়ে দিয়েছেন, তিনি রবিন ভাই। রবিন ভাই ফেসবুকে নোট আকারে কিছুদিন পরপর চর্যাপদ টাইপের কিছু কিছু লেখা আপলোড করেন। সেই লেখার টাইটেলে থার্ড ব্রাকেটের মাঝে ‘গল্প’ লেখা থাকে বলে বোঝা যায় সেটা গল্প। যদি তিনি সেটা লিখে না দিতেন, তবে সেই লেখা ঠিক কী তার মর্মোদ্ধার করতে ড. সুনীতিকুমার চট্টোপাধ্যায়কে কবর থেকে উঠে আসতে হত। সাকিবের মাঝে মাঝে মনে হয়, ড. সুনীতিকুমার চট্টোপাধ্যায়কেও যদি কখনও রবিন ভাইয়ের লেখা পড়তে দেয়া হয়, তবে তিনিও সিদ্ধান্ত নেবেন এসব চর্যাপদেরও আগে লেখা...

বিয়ে সম্পর্কে এই উক্তিগুলো করেছেন বিখ্যাত মানুষেরা…..–পর্ব ১

\m/ বিয়ে সম্পর্কে এই উক্তিগুলো করেছেন বিখ্যাত মানুষেরা।  >:)    :-bd   তাদের নাম এখানে উল্লেখ করা হল না এই কারণে যে এগুলো আসলে বিশ্বের কোটি কোটি মানুষেরই মনের কথা,প্রাণের কথা। আর এই কথা গুলোকেই আমরা বাণী চিরন্তনী বলে আখ্যায়িত করেছি। বাণীসমূহঃ ১-বিয়েঃ একটি বৈধ ও ধর্মসম্মত অনুষ্ঠান যেখানে দুজন বিপরীত (সাধারণত) লিঙ্গের মানুষ পরস্পরকে জ্বালাতন করা এবং পরস্পরের ওপর গুপ্তচরবৃত্তি করার শপথ নেয় ততদিনের জন্য যতদিন না মৃত্যু এসে তাদেরকে আলাদা করে। ২-সন্ধ্যায় ঘরে ফিরে একটু ভালোবাসা,একটু আদর,একটু কোমলতা পাওয়া – একে এক কথায় কি বলে বলতে পারেন? একে বলে আপনি ভুল বাসায় এসেছেন। ৩-আমি বহুদিন আমার স্ত্রীর সাথে...

একটি গুজব

অত্যন্ত গোপন সুত্রে জানা গেছে নারায়ণগন্জ প্যানেল মেয়র নজরুল ইসলাম এবং আইনজীবী এডভোকেট চন্দন সাহা সহ সাত খুনের প্রধান আসামী নাসিকের ৪নং ওয়ার্ড কমিশনার নূর হোসেন ইন্ডিয়ার সীমান্ত রক্ষী বাহিনীর কাছে ধরা পড়েছেন। একদল গো-পালের মধ্য পলায়ণরত অবস্হায় ইন্ডিয়ান এক জওয়ানের চোখে ধরা পড়েন তিনি। তাৎক্ষনিকভাবে তাকে সীমান্তবর্তী ক্যাম্পে নিয়ে চলে জিজ্ঞাসাবাদঃ কমান্ডারঃ ক্যাঁয়া নাম হ্যায়? নু হোঃ নুর হোসেন, সাব। হামার নাম নুর হোসেন। কমান্ডারঃ বাপ কা নাম ক্যাঁয়া হ্যায়? নু হোঃ সামিম য়ুসমান। কমান্ডারঃ ক্যাঁয়া? নু হোঃ সামিম য়ুসমান… আল্লার কিড়া লাগে! কমান্ডারঃ ত্যারা গ্রান্ড ফাদার কা নাম কিয়া হ্যায়? নু হোসেন পাশের সেকেন্ড অফিসারের দিকে তাকায়। সেঃ...

সাপ্তাহিক ধর্ষন

অল্প কিছু টাকা হলেই হয়ে যায়। আর দরকার সামান্য কিছু ক্ষমতাসম্পন্ন একজন মানুষ। একটা পত্রিকা বের করতে চাই। সাপ্তাহিক পত্রিকা। সাপ্তাহিক ধর্ষন। আঁতকে উঠলেন? ভয় পেলেন? আরে ভাই ভয় পাবার কোন দরকার নাই। জাষ্ট লিসেন মাই প্লান। এক জীবনে টাকার কোন বিকল্প নাই। হোক সেটা কাল টাকা। খ্যাতিরও কোন বিকল্প নাই। হোক সেটা কুখ্যাতি। আপনি জানেন কি পরিমান বিকারগ্রস্হ মানুষ এই দেশে ছেয়ে গেছে? শুধুমাত্র তাদের জন্য প্রতিটি জাতীয় দৈনিক অত্যন্ত রসিয়ে রসিয়ে ধর্ষন নিউজগুলো পত্রিকায় ছাপানোর মহান ব্যবস্হা গ্রহন করেন। কোথায় কবে কেন কতজন মিলে কোন মেয়ে ধর্ষন করেছে তার বিস্তারিত সংবাদ, আহাহা, কি শিহরণ, কি শিহরণ! আমরা পুরো...

হীরক রাজার ঘুমের দেশে, গুম উঠেছে নাভিঃশ্বাসে

গবেষক: হীরকের রাজা মহান অতিপুষিয়ে দিবেন সবার ক্ষতি,কার কতো লস হয়েছে, হারিয়েছো যত জনলিস্ট করো, লিস্ট করো, রাজা চাইলে কতক্ষণ!রাজা চাইলে ফিরিয়ে দিতে পারেন আস্ত বাঁশ,থাকলে কারো আওয়াজ দিয়েন, জীবিত কিংবা লাশ!(রাজার প্রবেশ)রাজা: (কেশে) কী হে গবেষক, আপন মনে কী কও,চারিদিকে চলছে গুম, ভয় ডর একটু পাও!গবেষক: রাজা যে কি বলেন, গুম কোথায়, সব বানোয়াটমিডিয়ার কাজ, সব মিথ্যে, সবই মিথ্যার হাট।রাজা: এত সাহস! রাজার বিরুদ্ধে কারসাজি,গবেষক: আর বলছি কি, সব পাজি, সব পাজি। রাজা: ওরা শুধু রাজা দেখেছে, এখনো সাজা দেখেনি…গবেষক: অচীরেই দেখবে, রাজা কি আর সাজা দিতে শেখেনি?রাজা: সাজা মানে, কঠিন সাজা, গুম নিয়ে করো ফাজলামি,গবেষক: মানুষের জান-মাল নিয়ে...

হীরক রাজার দেশে চলতে হবে হেসে

রাজা: কী গবেষক, পেটে অসুখ? গোমড়া কেন মুখখানা?হাসতে হবে সব সময়, এ দেশে গোমড়া মুখে থাকা মানা!গোমড়া মুখে থাকা মানে রাজার বিরুদ্ধে অভিযোগ,এসব আর চলবে না, হিসাবের খাতায় শুরু হবে যোগ-বিয়োগ।গবেষক: কই মহারাজ, গোমড়া কোথায়? আছি তো বেশ ফুর্তিতে,তিনটা বছর কেটে গেল, প্রিপারেশন নিচ্ছি নতুন বর্ষপূর্তিতে!রাজা: বেশ বেশ! এই না হলে কি আছি সোনার দেশে!তা খবর কী, বলে ফেলো সব, কাশাকাশি হবে শেষে!গবেষক: লোকে বলে, রাজামশায় নাকি নেন না জনগণের খবরনিরাপত্তাহীনতায় যে যেখানে পারছে, খুঁড়ছে নিজের কবর!রাজা: বলো কী! এত বড় স্পর্ধা!খোঁড়াখুঁড়ি সব বন্ধ, কারও কবরে যাওয়া চলবে না!নির্বাচনের নাই বেশি দিন,খবরদার আমার সামনে ওসব আর বলবে না।গবেষক: রাজা মশায়,...