Category: ঐতিহ্য

সহীহ ইতিহাসনামা

(এক) ইতিহাস পড়ি এটাই শেষ কথা নয় আমার হাতেই রচিত হবে আগামীর ইতিহাস। ইতিহাসের একজন লেখকের বই পড়লে সব বুঝা যায়। দুই জনের পড়লে তুলনামূলক নিজ আদর্শে সত্য মিথ্যা অনুধাবন ও নির্ণয় করা যায়। বেশি লেখকের বই পড়লে দ্বিধায় পড়তে হয়। কোনটা ঠিক আর কোনটা ঠিক নয়। একজন ঐতিহাসিক সময়ের স্বাক্ষী না গোপালের স্বাক্ষাী হয়ে সত্য মিথ্যা যা হউক যাচাই না করে নিজ আদর্শ, নিজ বিশ্বাস, নিজ পক্ষীয় ইতিহাস রচনা করে। ভবিষ্যৎ সেই ইতিহাস পড়ে নতুন প্রজন্ম কি জানবে? একথা আর নতুন করে না বলাই শ্রেয়। ইতিহাস সৃষ্টি থেকে আজ অবধী ঐতিহাসিকগণ ছিলেন তাদের সিংহ ভাগ ছিলেন কোন না কোন...

একুশের ঢাকা বাঙালীর তীর্থস্থান

প্রথমে একটা প্রাসঙ্গিক সংজ্ঞা দেই; ‘ইংরেজ’ বা, ‘English’ বলতে আমরা কি বুঝি? ‘ইংরেজ’ বা, English- রা হল একটি জাতি এবং জাতিগত গোষ্ঠী যাদের নেটিভ ভাষা ইংরেজী আর বসবাস করে ইংল্যান্ড। ‘ইংরেজ’-দের প্রাচীন পরিচয় মধ্যযুগীয় হলেও ,তারও আগে ইংরেজরা Anglecynn হিসাবে পরিচিত ছিল। অর্থাৎ, ইংরেজ বলতে যুক্তরাজ্যে বসবাসকারী ইংরেজি ভাষা-ভাষীর মানুষদের বুঝায়! অথচ বিশ্বে আজ অনেক দেশ আছে যেখানে ইংরেজি ভাষা-ভাষীর মানুষের আধিক্য। কিন্তু, তাদের আমরা ইংরেজ বলি না। যেমন নিউজিল্যান্ড, অস্ট্রেলিয়াসহ আরও অনেক রাষ্ট্র! এই ভাষা আন্দোলনের মাসে এই বিতর্ক আরও প্রাসঙ্গিক। কলকাতার মানুষের কথা হচ্ছে একুশের ঢাকা হচ্ছে বঙ্গালীর তীর্থস্থান। আমাদের এই আত্মপরিচয় জ্ঞাপক প্রধান করে আমাদের পহেলা বৈশাখ আর একুশের বইমেলাসহ ফেব্রুয়ারির অনুষ্ঠানমালা।...

doctus viagra

জামদানিঃ ইতিহাস ও ঐতিহ্য

বোগদাদ নগরীর অদূরবর্তী সিটি অফ মসুল । সমৃদ্ধ ইরাকের এক সমৃদ্ধ নগরী। একাদশ শতকের মাঝামাঝি। প্রথম ক্রুসেড এর যুদ্ধজয়ী ক্রুসেডাররা সদ্য জয় করা মসুল নগরে ঘুরতে ঘুরতে হঠাত চোখ আটকে গেলো এক টুকরো কাপড়ে। যেনো আটলান্টিকের জলের মতো স্বচ্ছ, যেনো শুভ্র টিউলিপের মতো স্নিগ্ধ। এতো কোমল, এতো মোলায়েম, এতো অসম্ভব সুন্দর কাপড় ; যেনো স্বর্গীয় কিছু। মসুল নগরের বাসিন্দারা চুক্তিতে আসলো। তারা এনে দিবে এই কাপড় ; বিনিময়ে দিতে হবে স্বাধীনভাবে ব্যবসা করার অধিকার। রোম সাম্রাজ্য থেকে চীন। ব্রিটেন থেকে আরব। সর্বত্র এই স্বর্গীয় বস্ত্রের স্তুতি। মসুল নগরের এই অমুল্য বস্ত্র। পরিচিত হলো মসলিন নামে। মসলিনের খ্যাতি পুরো বিশ্বজোড়া। কিন্তু...

tome cytotec y solo sangro cuando orino

কামরূপ কামাখ্যা ও একটি পৌরাণিক কাহিনী- পর্ব আহার পূঁজা ও যোনী পূঁজা।

পুর্বেই বলা হয়েছে কিভাবে কাম দেবতা তাঁর অভিশাপ মোচন করতে স্ত্রী রতীর সাথে নীলাচল পর্বতে আসেন এবং সতীর যোনী মন্ডল প্রস্তর খন্ড আকারে খুঁজে পান।স্বামী স্ত্রী উভয়েই প্রবল ভক্তি ও শ্রদ্ধায় সতীর যোনী মন্ডলের পূজা করতে থাকেন এবং অবশেষে কামদেব অভিশাপ মুক্ত হয়ে তাঁর রূপ ফিরে পান।পরবর্তীতে কামদেবের নাম অনুসারেই অঞ্চলটির নাম হয় কামরূপ আর শিব পত্নী সতীর আরেক নাম কামাখ্যা।দুজনের নাম মিলে তখন হয়ে যায় কামরূপ কামাখ্যা।কাম দেবতা এখানে কামাখ্যা মাতার মন্দির স্থাপন করেন।কথিত আছে যে সকল সাধক এই মন্দিরে স্থাপিত কামাখ্যা দেবীর সাধন ও ভোজন করেন তাঁরা জগতের তিনটি ঋন পিত্রঋন,ঋষিঋন এবং দেবীঋন থেকে মুক্তি লাভ করেন। (মাতা...

কাপরূপ কামাখ্যা ও একটি পৌরাণিক কাহিনী।

মাঝে মাঝে যখন হতাশা,দুরাশা,নিরাশাগুলো আমাকে আঁকড়ে ধরে তখন মনে একটি সুপ্ত বাসনা উঁকি দেয়।সব ছেড়ে ফেলে চলে যেতে ইচ্ছে হয় আজীবনের জন্য চির রহস্যময় কামরূপ কামাখ্যার দেশে।হায় কপাল, বাসনাটা থালা বাসনের মতই স্ব-স্থানে থেকে যায়, যাওয়া আর হয়ে উঠেনা।যে শঙ্খনীল কারাগারে আমি বন্দী তার থেকে যে মুক্তি নেই।ইচ্ছেকে দমন করি তখন অনিচ্ছায়। সেই এক দেশ বটেই কামরূপ কামাখ্যা।যাদু-টোনা, তন্ত্র-মন্ত্র, পাহাড়-পর্বত আর অরণ্যে ঘেরা স্বপ্নীল স্বর্গ।প্রাচীণ রূপ কথা, গল্প,ইতিহাস আর কিছু পৌরাণিক কাহিনীর এক অন্য ভুবন।আসলেই কি তাই? চলুন ঘুরে আসি আমার কল্পনায় কামরূপ কামাখ্যার সেই অন্যরকম ভুবন থেকে। বাংলা উইকিপিডিয়ায় সার্চ দিলে প্রথমেই যা জানা যাবে তা হল, কামরূপ কামাখ্যা...

metformin gliclazide sitagliptin

গ্রামবাংলার প্রবাদ ও প্রবচণঃ দৃষ্টাণ

ঈশান বাংলায় একটা প্রচলিত কথা হচ্ছে, ‘ভাষা বোল পাতে লেখি, বাচাহুব বোল পড়ি সাথি‘ মানে হচ্ছে আমি পাতায় মনের কথা লিখে রাখি যেনো তা হারিয়ে না যায়। এটি খনার বচন। খুব স্বাভাবিক সুন্দর ভাষায় প্রকৃতি আর মানুষের জীবনকে তুলে ধরতেন খনা। তাকে মেরে ফেলা হয়েছিলো, তাকে স্তব্ধ করে দেয়ার জন্যে তার জিহ্বা কেটে নেয়া হয়েছিলো। তাকে কেউ মেরে ফেলতে পারেনি। তাই তো এখনো শোনা যায়’ শাক অম্বল পান্তা, তিনো অসুখের হন্তা‘ আমাদের ভারতীয় উপমহাদেশের এক এক অঞ্চলে এক একরকম বচন প্রচলিত আছে। এগুলো মুলতঃ অঞ্চল্ভিত্তিক প্রচলিত। আলাদা আলাদা অঞ্চলের ভাষা আর সংস্কৃতি এই বচনগুলোর সৃষ্টিতে গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা রাখে। এক অঞ্চলের...

মসলিন… বাঙালির হারিয়ে অনন্য এক গৌরবের নাম

ইতিহাসখ্যাত অসাধারন এক বস্ত্রশিল্পের নাম “মসলিন” । এই মসলিনকে নিয়ে রয়েছে হাজারো কাহিনী আর গল্প গাঁথা। সেই সাথে  মসলিনের প্রতিটি পরোতে পরোতে মিশে আছে  বাঙালি তাঁতিদের নৈপুণ্যতা, পারদর্শিতা আর গর্বের ইতিহাস। ঠিক তেমনি ভাবে আবার এই মসলিনকে ঘিরেই রয়েছে এক হৃদয় বিদারক কাহিনী। সেকালে যেসব তাঁতিরা মসলিন তৈরি করতেন সেসব তাঁতিদের প্রতি অত্যাচারের কাহিনী, আঙুল কেটে ফেলার ইতিহাস- এসব  আমাদের সবারই কম বেশি জানা। বেশ কিছুদিন ধরেই চিন্তা করছিলাম বাঙালির অন্যতম গৌরবের জিনিস এই “মসলিন” নিয়ে  লিখবো কয়েকটা লাইন। আর সেই ইচ্ছের প্রতিফলনই হল এই লেখাটি। কিভাবে উদ্ভব “মসলিন” শব্দটিরঃ-  হেনরি ইউল এর প্রকাশিত অভিধান হবসন জবসন থেকে জানা যায় যে- মসলিন শব্দের উদ্ভব ‘মসূল’ থেকে।...

achat viagra cialis france

নিরপেক্ষতার মানদন্ড এবং আমাদের নিরপেক্ষতা

নিরপেক্ষতা আসলে কি?    নিরপেক্ষতা বা Neutralism কে রাজনৈতিক আদর্শের ক্ষেত্রে দল নিরপেক্ষ বা Nonalignment ও বলা যেতে পারে। শান্তিকালীন সময়ে রাজনৈতিক প্রভাবমুক্ত থেকে রাজনৈতিক বা আদর্শগত সম্মিলনে দল নিরপেক্ষ থেকে মতামত দেয়াকেই নিরপেক্ষতা বলে। তাহলে কি দাঁড়াল?  এখন কোনটা কে নিরপেক্ষতা বলব? বিচারক নিরপেক্ষ থাকেন কিভাবে? আচ্ছা বিচারক কি খুনি বা বাদির প্রশ্নে নিরপেক্ষ থাকেন? নাকি বিচারক খুনি বের করেন? আমরা এইটা নিশ্চিতভাবেই বলতে পারি বিচারক আসামি আসলেই খুনি কিনা তা যাচায় করেন সমস্ত সংখ্যাগরিষ্ঠ ও গুরুত্বপূর্ণ এবং সংখ্যালঘিষ্ঠ মতামতের যথাযথ ও পক্ষপাতহীন প্রতিফলনের ভিত্তিতে অর্থাৎ নিরপেক্ষতা বলতে বুঝায় সত্যের পক্ষে থাকাকে।  বিচারক শুনানি শুনে বের করবেন আসল সত্য কি? আর নিরপেক্ষতার মানদণ্ড...

হাংরি আন্দোলন — এক অভূতপূর্ব দ্রোহের বিস্ফোরণ (পর্ব -৪) বিচারের নামে এক অদ্ভুত প্রহসন

আমস্টারডামে রেলওয়ে স্টেশনের সামনে মলয় রায় চৌধুরী (২০০৯) ২৯শে অক্টোবর ,১৯৩৯ সালে জন্মগ্রহন করা ভারতবর্ষের বিখ্যাত সাবর্ণ রায়চৌধুরী পরিবারের উত্তরপাড়া শাখার সন্তান মলয় রায় চৌধুরী শুধু হাংরি আন্দোলনের স্রস্টাই ছিলেন না, বাঙলা সাহিত্য প্রতিষ্ঠানবিরোধিতার জনক ছিলেন। তার ঠাকুরদা লক্ষ্মীনারায়ণ চৌধুরী ছিলেন অবিভক্ত ভারতবর্ষের প্রথম ভ্রাম্যমাণ ফটোগ্রাফার আর্টিস্ট। ১৯৬১ সালে হাংরি আন্দোলনের সূচনা করে আবির্ভাবেই সাড়া ফেলে দেয়া মলয়ের অসাধারণ সাংগঠনিক দক্ষতায় প্রায় অর্ধশতাধিক কবি, ঔপনাসিক ও চিত্রশিল্পী যোগ দেন এই আন্দোলনে খুব অল্প সময়ের ভেতর। আন্দোলনটা মূলত বেগবান হয়ে ছড়িয়ে পড়েছিল এক পৃষ্ঠায় প্রকাশিত কিছু জ্বালাময়ী ভাষায় রচিত বুলেটিনের কারনে। ১০৮টি বুলেটিন তারা বের করেছিলেন, যার অল্প কয়েকটি লিটল ম্যাগাজিন লাইব্রেরী ও ঢাকার বাঙলা...

বাংলাদেশের পথে..

সোনালি সবুজ বাংলার রূপ খুব কাছ থেকে দেখার সৌভাগ্য হয়েছে আমার। চিরকালের বাঁধাধরা নিয়মের গন্ডি পেরিয়ে কয়েকটা দিন মুক্ত হাওয়ায় নি: শ্বাস নেবার জন্য দরকার একটু গ্রাম থেকে ঘুরে আসা। বাংলাদেশের সৌন্দর্যকে একটু ছুঁয়ে দেখা। অনেক জীবনের দামে এই ছায়া সুনিবিড় শান্তির নীড় আজ আমাদের। প্রকৃতিরাণীর অপরূপ খেয়ালে সাজানো বাংলার পথে প্রান্তরে তাই জীবনের ছোঁয়া ঘুরে বেড়ায়। হাত বাড়ালেই সে জীবনকে ছোঁয়া যায়, ভালোবাসতে জানলেই সে জীবনকে ভালোবাসা যায়। সোনার বাংলাদেশ তার রুপের পসরা সাজিয়ে অপেক্ষা করে তার সন্তানকে বুকে জড়িয়ে নেবার। বাংলা মায়ের ভালোবাসা, এর সাথে আর কিছুর তুলনা হয়না কখনই…।   আন্ত:নগর সুন্দরবন এক্সপ্রেস ছুটে চলে বাংলার পথ... half a viagra didnt work

একজন হারিয়ে যাওয়া শেখ কামালের গল্প… একজন কিংবদন্তী দেশপ্রেমিকের গল্প…

তার জন্ম হয়েছিল গোপালগঞ্জ জেলার টুঙ্গিপাড়া গ্রামের খুব সাধারণ এক পরিবারে ১৯৪৯ সালের ৫ই আগস্ট তারিখে। পাঁচ ভাইবোনের মধ্যে ২য় ছিলেন তিনি। খুব ছোট বেলার থেকেই ডানপিটে ছেলেটি পিতার আদর স্নেহ থেকে বঞ্চিত ছিলেন। সত্যি বলতে কি, ছেলেটার জন্মের পর থেকে তার পিতার সাথে তার ভালোমতো দেখাই হয় নি। কেননা তার পিতা শেখ মুজিবুর রহমান তখন বঙ্গবন্ধু হয়ে উঠছেন, বাঙ্গালী জাতির মুক্তিদূত হয়ে উঠছেন। পাকিস্তানী শোষকদের নির্মম শোষণের বিরুদ্ধে কথা বলবার কারনে, প্রতিবাদ করবার কারনে তার পিতাকে প্রায়ই কারাবরন করতে হয়। তোঁ একদিন বঙ্গবন্ধু জেল থেকে ছাড়া পেয়ে বাড়ি এসেছেন, বহুদিন পর বাড়িতে আনন্দের জোয়ার বয়ে যাচ্ছে। কিন্তু ছোট্ট ছেলেটি...

জাতিস্মর– জন্মজন্মান্তরের আক্ষেপমাখা অনন্তবিস্তারী এক ভালোবাসার গল্প…

  প্রথম আলোয় ফেরা, আঁধার পেরিয়ে এসে আমি অচেনা নদীর স্রোতে চেনা চেনা ঘাট দেখে নামি… চেনা তবু চেনা নয়, এভাবেই স্রোত বয়ে যায় খোদার কসম জান, আমি ভালোবেসেছি তোমায়..  রোহিতের জন্ম গুজরাটে হলেও তার শিক্ষা-দীক্ষা বড় হওয়া সবই কলকাতায়। কিন্তু আফসোসের ব্যাপার হল, কলকাতায় এতদিন থেকেও সে বাঙলা ভাষাটা রপ্ত করতে পারল না। বাঙলা ভাষায় তার দৌড় বড়ই শোচনীয়। ভাঙ্গা ভাঙ্গা তিন চারটে বাঙলা শব্দ সে জানে বটে, কিন্তু সেগুলোর ব্যবহার করতে গিয়েই বাধে বিপত্তি। ভুল জায়গায় ভুল শব্দ ব্যবহার করে ভয়ংকর রকমের বেকায়দায় পড়ে যায় সে। মহামায়াকে খুব ভালো লাগে তার, কিন্তু ভালোবাসার কথা তাকে বলতে গিয়েই আবার সেই ভাষাগত বিপত্তি।... para que sirve el amoxil pediatrico

“সভ্যতার বিনির্মাণে একাত্তরের দলিল হোক আগামীদিনের প্রেরণা”

‘সভ্যতা ব্লগ’ আস্থা রাখে, “বিনির্মাণে আগামীর পথে”  স্লোগানে। আস্থা রাখে, মানব সভ্যতার সকল সফল অর্জনে। আগামীর পথ বিনির্মাণে পূর্বসূরিদের অর্জন আর সাফল্যগাঁথা সেখানে কেবলই প্রেরণা নয় অনেক সময় দিক নির্দেশনা। যেমনটা আমাদের মুক্তিযুদ্ধ। ১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধ কেবলই একটি বীরোচিত সফলতার এবং সংগ্রামের অগ্রযাত্রার ইতিহাস নয়, বরং বাঙালী জাতির এগিয়ে চলার দিকনির্দেশনাও বটে। এই বাঙালী সভ্যতা যতদিন থাকবে অথবা মানব সভ্যতায় বাঙালী জাতি যতদিন টিকে থাকবে, ততদিন ১৯৫২ এর ভাষা আন্দোলন এবং ১৯৭১ এর মুক্তিযুদ্ধের সংগ্রাম কেউ মুছে ফেলতে পারবে না। এরপরও বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের পরাজিত শক্তি নবোদ্যমে তাদের কূটকৌশল এবং ১৯৭৫ সালের কতিপয় বিপথগামী সেনা কর্মকর্তাদের নির্বুদ্ধিতায় আমাদের অগ্রযাত্রাকে থমকে দিতে...

renal scan mag3 with lasix

শিল্পের আচার্য আমাদের ‘শিল্পাচার্য’ জয়নুল আবেদিন

বাংলার প্রকৃতি, জীবনাচার, ঐশ্বর্য, দারিদ্র্য এবং বাঙালির স্বাধীনতার স্পৃহা যিনি তুলি আর ক্যানভাসে বিশ্ববাসীর সামনে মূর্ত করে তুলেছিলেন, সেই শিল্পাচার্য জয়নুল আবেদিন মৃত্যুদিবস ছিল গতকাল। তাই তাঁআ মহৎ কর্মজীবনের কিছু অংশ তুলে ধরার চেষ্টা করলাম।  জয়নুল আবেদীনের পূর্বপূরূষের বাসস্থান ছিল ময়মনসিংহের অন্তর্গত ত্রিশাল থানার দরিরামপুর গ্রামে। তাঁর প্রপিতামহ অবশ্য ময়মনসিংহের কাচিঝুলি গ্রামে বসবাস করতে। পিতামহ ছমিরউদ্দিন ছিলেন ছন ব্যবসায়ী। সন্তানদের সুশিক্ষিত করে তোলার ইচ্ছা থাকলেও অকালে প্রয়াত হওয়ায় তাঁর এই ইচ্ছা পূরণ হয় না। জেষ্ঠ্য পুত্র ৮ম শ্রেনী পাশ করে শিবপুর ইঞ্জইনিয়ারিং স্কুলে ভর্তি হতে চাইলেও অর্থসংকট ও রুঢ় বাস্তবতার জন্য তাঁকে পুলিশ বিভাগের লিটারেট কনস্টেবলের চাকরি নিতে হয়। পরে...

মুক্তিযুদ্ধের দলিল-দস্তাবেজ সংরক্ষনের দাবী…

ক্ষমতার পালাবদল ঘটে, ঘটবেই। গনতান্ত্রিক রাজনীতিতে যে কোন দলই ক্ষমতায় আসতে পারে এবং সেটা স্বাভাবিক ও অবশ্যই সমর্থনযোগ্য। ভয়টা হল অন্য জায়গায়! যদি স্বাধীনতা বিরুধীরা আরেকবার জয়ী হতে পারে তবে এই ইতিহাস বিকৃতিকারীরা মুক্তিযুদ্ধের কোন ডকুমেন্টই তারা আর অবশিষ্ট রাখবে না। কেননা অতীতেও তারা এরকম করেছে। মুক্তিযুদ্ধের অনেক মুল্যবান আলামত ও দলিল-দস্তাবেজ তারা নষ্ট করেছে। মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘর, বাংলা একাডেমি ও আদালতে বর্তমানে যে সব ডকুমেন্ট বা দলিল-দস্তাবেজ রয়েছে তাও পুরোপুরি সংরক্ষিত অবস্থায় নেই।যে কোন দুর্ঘটনা বা অগ্নি সংযোগে হারিয়ে যেতে পারে মুল্যবান দলিল সমুহ। সরকার ও এসব দলিল পত্র সংরক্ষনে এখন পর্যন্ত কার্যকরি কোন পদক্ষেপ গ্রহন করেনি। কালের কন্ঠ পত্রিকার...

kamagra pastillas