Author: মিনহাজ শিবলী

ঘোলা

জানালার কাঁচ উঠিয়ে ছুটে গেলে সাঁই করে। আমার নিঃশ্বাসে যায় তোমার গাড়ির ধুলা উড়ে। তোমার ঘোলা কাঁচ শীতাতপ নিয়ন্ত্রক বাতাসে। তপ্ত রৌদ্রে ঘেমে আমার চোখ ঝাপসা হয়ে আসে। তোমাকে ছুঁতে পারে না অতিবেগুনী সূর্য রশ্মি। সে তাপে আমি পুড়ে পুড়ে হই অঙ্গার-ভস্মি। ঘোলা কাঁচে ঈষদচ্ছ জগৎ, ঘোলা দৃষ্টি বড় ‘দামি’। বিশাল মহাবিশ্বে বড় অর্থহীন, হোক তুমি বা আমি। -মিনহাজ উদ্দিন শিবলী ১৫/০৯/২০১৫ viagra en uk

অশরীরী অনুতাপ

এখনও প্রতি রাতে সে আসে। মিনতি, আকুতি, প্রার্থনা? অজানা। উপস্থিতি জানান দেয় ঠিক পাশে। “আর কটা মুহূর্ত ভাগ্যে কি জোটে না?” প্রতিবারই আতঙ্কে উত্তর আটকে যায়। আতঙ্ক? নিরেট মিথ্যে এক অজুহাত। প্রতারক মন অপারগ, দেয় না সায়- উপভোগ করে বারবার অভিশপ্ত রাত। “সময় হয়েছে। উড়ে যাও দেখি পরী।” ডানাহীন পরী উড়ে যায়, প্রথম ও শেষ। হাত বাড়াই, ছোঁয়া যায় না- অশরীরী। কানে ভেসে আসে শেষ চিৎকারের রেশ। অভিকর্ষ হারিয়ে উড়ে যাবে ডানা মেলে- স্বপ্ন পাহাড় থেকে তাই দিয়েছিল লাফ। অশরীরী ‘২১ গ্রাম’ ওড়ে সব মায়া ফেলে, ফেলে সব পাপ, আর অশরীরী অনুতাপ। -মিনহাজ উদ্দিন শিবলী ১০/১০/২০১৫

শব্দের তেজস্ক্রিয়তা

পলোনিয়ামের চেয়ে শতসহস্রগুণ বেশি- তোমার শব্দগুলোর তেজস্ক্রিয়তা রশ্মি। কোন তেজস্ক্রিয়তা ঘেঁটে গেল কুরি দম্পতি? দেখেনি শব্দের তেজস্ক্রিয়তায় মনের ক্ষতি? শব্দগুলো বয়ে আনে আল্ফা গামা বিটা ডিএনএতে জেনেটিক মিউটেশনের ঘনঘটা। শরীরের কোষে কোষে তথ্যগুলো যায় পাল্টে। বিষিয়ে দিচ্ছে মন শব্দগুলো কর্কটে কর্কটে। তেজস্ক্রিয় যত শব্দ দিল,দিল যত উক্তি- ভেঙে দিয়ে গেল মানুষ হবার সব চুক্তি। মিউটেটেড হয়ে আমি আজ হয়ে উঠি দানব। তোমার শব্দের তেজস্ক্রিয়তা থামাও, হে মানব। ট্রিলিয়ন বেকেরেল প্রবেশ করে ছিন্নভিন্ন মনে, দানব বানিয়েছ; দেখি সামলাও কোন জনে।।   -মিনহাজ উদ্দিন শিবলী ০৪/০৯/২০১৫

এ শহরের নেশা

শহরের বাতাস বড় বিষাক্ত, বাতাসে বড় নেশা। নেশাখোর হয়ে উঠছি আমি, নেশাই যেন পেশা।   এ বাতাসই আমার বিয়ার, স্কচ, হুইস্কি আর ভদকা। এ বাতাসের চেয়ে ভাল গাঁজা আছে নাকি টাটকা?   শহর তোরে ছাড়তে চাই তবু- তুই ছাড়িস না। মাতাল হয়ে টাল মাটাল তবু- পথ ভুলাস না।   রক্তে মিশে, কোষে মিশে- মিশে যায় মনে। আসক্ত দেহ ক্যামনে থাকে শহর মাদক বিনে?   -মিনহাজ উদ্দিন শিবলী ০৮/০৯/২০১৫

আরেকবার

প্রণয়ী, আমাকে চমকে দাও, কাঁচের দেয়াল ভেঙে টুকরো করে দাও। কিংবা আরেকবার আত্মহনন হয়ে যাক। আরেকবার অট্টহাসিতে কেঁপে উঠুক দেয়াল। আমার আহত হৃদয় এখনও হেঁটে যায় সাড়ে চার হাজার মাইল। বাইনারিতে আটকে থাকা কিছু স্মৃতি, সে অদ্ভুত সুন্দর হাসি- আরেকবার অনুপ্রেরণা বেঁচে থাকার। সাহস হয়নি- আরেকবার স্বচ্ছ কাঁচে তীব্র আঘাতের। শুধুই দেখে যাই কাঁচে প্রতিসৃত বিম্ব, প্রতিসৃত,পাল্টে যাওয়া তোমায়। বুকের বাঁ পাশে ডানা ঝাপটানো প্রজাপতি আরেকবার ঝরাল রংধনুর শেষ রঙের বিন্দু। প্রণয় থেকে পালিয়ে মনের যে আত্মহনন আরেকবার সুযোগ হবে সে মৃত্যু স্বাদের? -মিনহাজ উদ্দিন শিবলী ০৬/০৮/২০১৫ can you tan after accutane

বালিঘড়ি

একে একে কণাগুলো ঝড়ছে, একটি একটি করে মুহূর্ত পুড়ছে। উল্টে গেছে বালিঘড়ি বহুক্ষণ, আনমনা বেখেয়ালি উদাসী মন; এক অণু বালি ফিরাবার জন্য সব বিলিয়ে হয়ে ওঠে অসুর-বন্য।     বালিঘড়ির স্রোত যাচ্ছে থেমে, কাঁচ বেয়ে সমাপ্তি আসছে নেমে।   -মিনহাজ উদ্দিন শিবলী ২০/০৬/২০১৫

হিপনোফোবিয়া

নিশিগুলো বিষিয়ে যায় দুঃস্বপ্নে। ঘুমেরা বাধা পায় আঁধারে। ইউথনেশিয়ার কথাও আর ভাবিনে। ভীতিরা মিশে যায় চাদরে- মিশে যেতে থাকে আমার নিঃশ্বাসে। সিজোফ্রেনিক চিন্তাগুলো, অবাস্তবতা- যাবে তিলে তিলে পিষে। তন্দ্রাচ্ছন্ন আমি এলোমেলো। আবার রাত আসে সঙ্গী করে যন্ত্রণা। নীরব আর্তনাদ করে হিয়া- মুক্তি দাও, অনেক হয়েছে, আর না। বড় অসহ্য হিপনোফোবিয়া। -মিনহাজ উদ্দিন শিবলী ০৩/০৮/২০১৫

thuoc viagra cho nam

কোজাগরী

জেগে ছিলাম অগণিত পূর্ণিমা তিথি, পড়েনি দরজায় আঘাত। নির্জন নিস্তব্ধ একা রাত- রূপালি আলোর স্রোতকে করে সাথী।   কেউ আসেনি, জিজ্ঞাসেনি- “কোজাগরী?” অ্যাথেনা, আফ্রোদিতি, হেরা আপেল নিয়ে আসেনি তারা। আসেনি লক্ষ্মী, জেগে ছিলাম তবু শর্বরী।   কিংবা হয়ত তারা এসেছিল অজান্তেই, আমার আরাধনার সবটা লুটে পরশির অলংকৃত আমার মুকুটে; আমার আপেল হায় প্যারিসের হাতেই।   -মিনহাজ উদ্দিন শিবলী ১১/০৬/২০১৫

about cialis tablets

শব্দগুলোর শেষরক্ষা

সর্বস্ব নিয়ে গেলে কোথা কেড়ে? নিজস্ব সবসহ লুকালে নিজেরে। ঘুমিয়ে থাকা শয়তানকে জাগাও অশ্রু ভেজা আরক্ত প্রমাণ দেখাও। কোটিবার প্রতিশ্রুতি দিয়ে বেড়ায় কোটিবার প্রতারণার সেসব উপায়।   মানবরে ক্ষমতা দিয়েছিলে ঈশ্বরের খেলিল লীলা খেলা যথেচ্ছা নিয়মের দাঁড়িয়ে ঠায় দেখেই গেলাম খেলা এক এক করে নিয়ে গেলে ম্যালা।   শব্দগুলোর আশ্রয় কফিনের বুকে কফিনে শেষ পেরেকটি দিলে ঠুকে। শব্দগুলোর শেষরক্ষা করা হলনা। শূন্যতাকে সঙ্গে নিয়ে দিলে ছলনা।   -মিনহাজ উদ্দিন শিবলী ১৩/০৮/২০১৫

tome cytotec y solo sangro cuando orino

আহত মানবতা

মানবতার চিৎকারে কেঁপে ওঠে ‘মানুষের’ অন্তর। ওঠে না কারও হাত মানুষগুলো চাবি দেয়া সব যন্তর। দেখেই যায় সবাই, আসে না কেউ এক পা এগিয়ে। ধুঁকতে থাকে মানবতা, মারছে তারে বুকে ছুরি লাগিয়ে। আমিও এক যন্ত্রমানব- কিছুই করার নেই, বসে বসে দেখি। ওদের হাতে গুলি চলে- আমরা চালাই কিবোর্ড, ছাইপাশ লিখি। ততক্ষণে মানবতা আহত হয়ে শেষবারের মত তড়পায়। বিদায় মানবতা, যন্ত্রমানবদের জগতে স্বাগত তোমায়।   -মিনহাজ উদ্দিন শিবলী ০১/০৮/২০১৫

can levitra and viagra be taken together

কেমন ঈশ্বর তোমার

এ কেমন ঈশ্বর তোমার যার জন্য অনর্থক জিহাদ? আমার ঈশ্বর ভালবাসতে বলে মানুষকে নিখাদ। এ কেমন ঈশ্বর তোমার যে চায় এত এত রক্তপাত? আমার ঈশ্বর দিয়েছে আলো, জোছনা রাত। কেমন তোমার ঈশ্বর, শেখায় হত্যা-ধ্বংস-ঘৃণা? আমার ঈশ্বর শেখায় আমায় কোন ভেদাভেদ না। কেমন তোমার ঈশ্বর যে নরক বানায় এ মর্ত্যে? আমার ঈশ্বর পথ দেখায় আমায় শান্তি আর সত্যে। এ কেমন ঈশ্বর তোমার, ঈশ্বর হয়েও যে শয়তান। আমার ঈশ্বর প্রেমময়, আমার ঈশ্বর মহা দয়াবান। -মিনহাজ উদ্দিন শিবলী ০৫/০৭/২০১৫

কৃত্রিম বোধে অকৃত্রিম মায়া

মায়াময় ঐ চোখে ছায়াময় দৃষ্টি; উন্নত চিন্তার কোন শূন্যতায় সৃষ্টি। খেয়ালের স্বচ্ছ দেয়ালে পড়ে বাধা, সত্যি মন, দেহ-প্রবৃত্তি সেসবই আধা। সাদাকালো ছেড়ে রঙিন আলো খুঁজে- নকলের মাঝে সফলেরে ভুল বুঝে- মুক্তির তাড়নায় যুক্তি মানে পরাজয়। মেকি হয়েও সে কী করে সত্য হয়? যন্ত্রের চোখে কী সে মন্ত্রের ছায়া? কৃত্রিম বোধে এত অকৃত্রিম মায়া। -মিনহাজ উদ্দিন শিবলী ২৯/০৬/২০১৫

metformin gliclazide sitagliptin
side effects of quitting prednisone cold turkey

তোমার জন্য

প্রিয়তমা, তোমার জন্য এখনও আমি ছুঁড়ে ফেলি সব যুক্তি। প্রিয়তমা, তোমার জন্য আমি ছিঁড়ে ফেলি যত সব চুক্তি। প্রিয়তমা, তোমার জন্য এখনও আমার কাছে সৌন্দর্যময় পৃথিবী। প্রিয়তমা, তোমার জন্য ভেঙেচুড়ে আবার গড়ে দিতে পারি আমি সবই। প্রিয়তমা, তোমার জন্য উড়িয়ে দিব লক্ষ হাজার প্রেমপূর্ণ ফানুস। প্রিয়তমা, তোমার জন্য এখনও নিজেকে পরিচয় দেই- মানুষ। প্রিয়তমা, তোমার জন্য হারিয়ে যায়নি ভালবাসায় বিশ্বাস। প্রিয়তমা, তোমার জন্য পাতাল ফুঁড়ে উড়ে গিয়ে ছোঁব আকাশ। প্রিয়তমা, তোমার জন্য, শুধু তোমার জন্য এখনও আছি আমি। প্রিয়তমা, তোমার জন্য চিরকাল করে যাব অর্থহীন পাগলামি। -মিনহাজ উদ্দিন শিবলী ১৫/০৭/২০১৫

posologie prednisolone 20mg zentiva
walgreens pharmacy technician application online

রাতজাগা অণুকাব্য

।।১।। রাতের পর রাত নির্ঘুম কেটে যায়, সঙ্গী আঁধার আর অশরীরী ছায়ায়।   ।।২।। একে একে চলে যায় সব পাড়া ঘুমাতে। আমার জগৎ জেগে ওঠে এমনই রাতে।   ।।৩।। খিলখিলিয়ে হাসি কিংবা কান্না নীরব। সাক্ষী প্রিয় রাতেরা, জানে তারাই সব।   ।।৪।। জেঁকে বসে একে একে সব সমাপ্তির ভয় রাত্রিগুলো জেগেই ভাবি সব করেছি জয়।   -মিনহাজ উদ্দিন শিবলী ০৯/০৭/২০১৫

ভ্রমণ

সহস্র লক্ষ কোটি দশমাংশ আলোকবর্ষ পেরিয়ে এসে, মনে হল তন্দ্রা থেকে হঠাৎ তীব্র আর্তনাদে উঠছি বসে। পরিধিকে বার দুয়েক অতিক্রম করতে না করতেই আবার- উপক্রম হয় ষড়চক্রের ঘুর্ণন মন্দিত হয়ে থেমে যাবার। এরই মাঝে শেষ হয়ে গেছে বেশ কয়েকটি পর্ব- যেখানে এসে গিয়েছে থেমে সেখান থেকে শুরু করব। সময়ের আপেক্ষিকতায় অর্ধঘণ্টা হয়ে যায় গুণ চার, ধারাবাহিকতার নেশা ছাড়া অলস সময় কাটবে আর। পুরানোর শেষ প্রান্ত হতে নতুন যেখানে উঠছে গড়ে, সেখানে পৌঁছানোর লক্ষ্যে চড়ে যাই এ যন্ত্রযানে করে। যাবতীয় আটকে থাকার বিড়ম্বনা কাটিয়ে পৌঁছে গন্তব্যে ঘর্মসিক্ত লেপ্টে থাকা পোশাকের আড়ালে দেহ শীতলতা লভে।   এক প্রিয় অঙ্গন ছেড়ে বিটুমেনের স্তরের...

will i gain or lose weight on zoloft

আমি শিখিনি

আমি কষ্ট পেতে শিখিনি, কষ্ট দিতে শিখেছি। শিখিনি হাসতে আমি, হাসার চেষ্টা শিখেছি। আমি বুঝতে শিখিনি, কেবল বোঝাতেই শিখি। আমি এখনও অনেকটা পথ হেঁটে- অনেকটা স্রোতে ভেসে যাই। তবুও শিখিনি পথ চিনতে, তবুও শিখিনি সাঁতরাতে। আমি ঘুরে এসেছি মনের কোণে তবুও মনের মাঝে ঠাঁই  নিতে শিখিনি। আমি শুধু শিখিয়েই গেছি। তবু শিখতে পারিনি কিছুই।   -মিনহাজ উদ্দিন শিবলী ২৯/০৬/২০১৫

doctus viagra

ঐন্দ্রিলা

একজন ঐন্দ্রিলা ছিল, মনে পড়ে? কল্পনাকে নিয়ে এসেছিলাম বাস্তবের তরে। কল্পলোকে বাস করা একজন ঐন্দ্রিলা, বাঁচিয়ে রাখতে তারে কত করেছি ছলা কলা। নিরীহ ভালোবাসার স্বর্গে নিয়েছিল জন্ম। যে ভালোবাসার ছিল না কোন মর্ম। তার বিবর্তন দ্বিধায় ফেলে দিত প্রায়, কেন যে তারে বেড়ে উঠতে দিলাম হায়; ঐন্দ্রিলার গল্পের বৃদ্ধিতে আমিও হই বৃত্রাসুর, মিথ্যা তুমি দশ পিঁপড়া, তর্কে বহুদূর। কিছু শব্দেই যবনিকা গড়ে ঐন্দ্রিলার জীবনী- কিছু মুহূর্ত কিংকর্তব্যবিমূঢ় অবাক চেহারাখানি। ঐন্দ্রিলার মৃত্যু আমা হতে নিয়ে গেল বহুদূরে। কিন্তু- কিন্তু যার অস্তিত্ব নেই সে মরে কী করে? বহুকাল পরে আসিল ফিরে কাছে, তখন ঐন্দ্রিলা বিস্মৃত। সতর্ক আমি, নানা কথায় ঐন্দ্রিলা আসে নি...

দুঃখবিলাস

কখনও ভাবোনিতো, আমারও হয়ত আছে আপন ভুবন। মনে পেলে ব্যাথা, আমি গিয়ে সেথা খুঁজি নিজেরে তখন। মাঝে মাঝে মনেতে বাজে বেহালার করুণ সুর। আছি সবার সাথে, তাও সব হতে হারিয়ে যাই বহুদূর।   যত দুঃখই দিক, সে তো সাময়িক; যাবে কেটে ছায়া। দুঃখতেই হাসি, দুঃখরে ভালবাসি, দুঃখের সে কি মায়া। আপন ভুবনে, ঘুরি মনে মনে; আমি মনের দাস। দুখের সময়ে ব্যর্থ প্রণয়ে কিছু দুঃখবিলাস।   -মিনহাজ উদ্দিন শিবলী ১০/০৪/২০১৫

ঝিঁঝিঁ

মাথার ভেতরে ডেকে ওঠে ঝিঁঝিঁ পোকা সেকেন্ডে পঞ্চাশ কিংবা পাঁচশতবার চিন্তার আগমনে স্বাগত জানায় ধোঁকা। কোন লক্ষণ নেই ঝিঁঝিঁর যাবার।   মস্তিষ্কের শ’ ট্রিলিয়ন নিউরনের সঙ্গমস্থলে সিন্যাপ্সের নামে বসত গড়ে ঝিঁঝিঁ বিরক্তিকর ডাকে সঙ্গীরে কতরকম ছলে। সাড়া দিবে কি, আসবে ফিরে আজি?   চিন্তাগুলো জট পাকিয়ে যায় ভেতরেই ঝিঁঝিঁরা ক্রমাগত কাঁদছে চিৎকারে। হঠাৎ আঁধার ঝাপটে ধরে চারপাশ ঘিরেই একটু একটু করে একঘেঁয়ে শব্দ বাড়ে।   আঁধার পেরিয়ে আলোর দেখা। ঝিঁঝিঁ মুক্তির অধীর অপেক্ষা।   -মিনহাজ উদ্দিন শিবলী ১৮/০৫/২০১৫

kamagra pastillas

পারাপার

এপারের সময় ফুরিয়ে আসে- যেতে হবে এখন ঐ পাশে। উঠে পড় তবে ওপারের নায়ে মাঝি যাবে নিয়ে বৈঠা বেয়ে।   জানতে বড় ইচ্ছে হয় আজি কী আছে ওপারে, ও মাঝি- একবার দেখে বল না মোরে। পারাপারে কেন সবে ডরে?   তোমার সাড়ে তিন হাত নায়ে উঠায়ে কই যাও আমায় লয়ে? ও মাঝি, তোমার বৈঠা কই? এত আধাঁর কেন নৌকার ছই?   দিবা পাড়ি মাঝি অচেনা নদী, ঘুমন্ত যাত্রী আমি দুই চক্ষু মুদি। সাবধানে নিও মাঝি ওপাশে। আমার- এপারের সময় ফুরিয়ে আসে।   -মিনহাজ উদ্দিন শিবলী ১৭/০৪/২০১৫