Author: তারিক লিংকন

wirkung viagra oder cialis

‘গণহত্যা অস্বীকার’ ও ‘নব্য-হানাদারি মানসিকতা’ রোধে আইন এবং এর তাৎপর্য

“Denial of the Holocaust is not an opinion, it is a political act which tries to bring Nazi thought into the mainstream.” -  Hans Rauscher, Columnist, Vienna Newspaper ‘Der Standard’ -দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ পরবর্তী সময়ে নাৎসি প্রোপ্যাগান্ডার বিপরীতে আইন প্রণয়ন প্রেক্ষাপটে ভিয়েনার জনৈক কলাম লেখক। ১) ভূমিকা দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ পরবর্তীকালেও নাৎসি’দের অমানবিক নির্যাতন আর গণহত্যাকে অস্বীকার করার মত গোষ্ঠীর অভাব ছিল না। একাত্তরের মহান স্বাধীনতা যুদ্ধের পর যখন দেশীয় বিপথগামী সেনা কর্মকর্তা আর বিদেশী চরদের সমন্বয়ে পঁচাত্তরের পটপরিবর্তন হল, সেই থেকে একই ঘটনার পুনরাবৃত্তি হচ্ছে আমাদের বাংলাদেশে। তাই অনেক কিছুই শিক্ষণীয় আছে পূর্ব ইউরোপের দেশগুলোর পদক্ষেপ থেকে। আমাদের আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালও সেই রুয়ান্ডা, নুরেমবার্গ...

will i gain or lose weight on zoloft
viagra in india medical stores

নৈতিকতার ইতিকথা

নৈতিকতা হচ্ছে মানব দর্শনের অন্যতম শক্তিশালী এবং অবিচ্ছেদ্য একটি অংশ। আর নৈতিকতা বা নীতিশাস্ত্র মানুষের দৈনন্দিন জীবনের ব্যবহারিক এবং প্রায়োগিক দিক থেকে ক্রম বিকাশমান। ভাল মন্দের মত নীতিশাস্ত্রও সময়, কাল এবং স্থানের সাথে আপেক্ষিক অর্থাৎ পরিবর্তনশীল। তারপরও কিছু মৌলিক নৈতিকতা মানব সভ্যতার ঊষালগ্ন থেকে অতি সবল এবং প্রবলভাবে বিকশিত হয়ে এসেছে। যেমন পোশাক,  খাদ্যাভ্যাস এবং শিল্পকলাসহ জীবনযাপনের মূল বিষয়গুলো। প্রায়োগিক এবং তাত্ত্বিক দিক বিবেচনায় নীতিশাস্ত্রকে দুইভাগে ভাগ করা যায় তা হল ‘ভাল’ এবং ‘মন্দ’। ক্রমাগত মানুষের ভাল-মন্দের ধারণা প্রস্ফুটিত হতে থাকলে তাত্ত্বিক নীতিশাস্ত্রও তার কাঠামোগত রূপ পেতে থাকে। মূলত সামাজিকভাবে দলবদ্ধ সমাজ গড়ে উঠা শুরু করলেই গোষ্ঠীবদ্ধ মানুষের সম্পর্ক অত্যাবশ্যক...

গ্লোবাল খেয়ে লোকাল ভাবনা, প্রসঙ্গঃ নারীর পর্দা প্রথা

চা, কফি সফট ড্রিংক্স, জুস, কিংবা এনার্জি ড্রিংক্স; এইসব কি বঙ্গীয় খাবার নাকি লাচ্ছি, মাঠা কিংবা লাবাং? পাশাপাশি সব কিছু খেতে কোন সমস্যা হচ্ছে আপনার? কিংবা আমার? আমাদের? হচ্ছে না একটুও খুব সহজেই আমরা সব মানায় নিয়েছি, গ্রহণ করেছি সত্যকে সহজে। আপেল, কমলা অথবা ব্ল্যাকবেরী কি আমাদের ফল কিংবা হালের স্ট্রবেরী? নাকি বরই, পেয়ারা, আতাফল আর ঢেউয়া -লটকন এইসব আমাদের ঐতিহ্যবাহী ফল? কই সবই তো নির্দ্বিধায় খাচ্ছি একসাথে! ভালকে সত্যকে গ্রহণ করতে কোন সমস্যা হয় নি বাঙালী নৃতাত্ত্বিক জনগোষ্ঠীর। ফ্রেন্স ফ্রাই আর ফ্রাইড চিকেন কিংবা চাইনিজ আর থাই ফুড এই তল্লাটের ভোজন রীতির অংশ? আমি জানতাম খিচুড়ি, তেহেরি কিংবা ভর্তা...

can your doctor prescribe accutane
missed several doses of synthroid
metformin tablet

আই এস,বাংলাদেশ এবং মাদ্রাসা শিক্ষা ব্যবস্থা

গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশের সংবিধান তৃতীয় ভাগ: মৌলিক অধিকার, ২৮ নং অনুচ্ছেদ: ধর্ম প্রভৃতি কারণে বৈষম্য এর উপ অনুচ্ছেদ-  (১) কেবল ধর্ম, গোষ্ঠী, বর্ণ, নারী-পুরুষভেদ বা জন্মস্থানের কারণে কোন নাগরিকের প্রতি রাষ্ট্র বৈষম্য প্রদর্শণ করিবেন না। (২) রাষ্ট্র ও গণজীবনের সর্বস্তরে নারী পুরুষের সমান অধিকার লাভ করিবেন। (৩) কেবল ধর্ম, গোষ্ঠী, বর্ণ, নারী-পুরুষভেদে বা জন্মস্থানের কারণে জনসাধারণের কোন বিনোদন বা বিশ্রামের স্থানে প্রবেশের কিংবা কোন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ভর্তির বিষয়ে কোন নাগরিককে কোনরূপ অক্ষমতা, বাধ্যবাধ্যকতা বা বাধা শর্তের অধীন করা যাইবে না। (৪) নারী বা শিশুদের অনুকূলে কিংবা নাগরিকদের যে কোন অনগ্রসর অংশের অগ্রগতির জন্য বিশেষ বিধান-প্রণয়ন হইতে এই অনুচ্ছেদের কোনকিছুই রাষ্ট্রকে নিবৃত্ত করিবে...

A Power Blanket Around Bangladesh

একসময় বলা হত যে দেশে সালফিউরিক এসিড উৎপাদন যত বেশী সে দেশের শিল্প তত অগ্রসরমান। এখন বোধহয় যে সব দেশের মাথা পিছু বিদ্যুতের  ব্যবহার যত বেশী সে দেশেই তত বেশী এগিয়ে। এখন ক্ষুদ্র থেকে মাঝারী কিংবা কুটির এমনকি বৃহৎ শিল্প অথবা আধুনিক তথ্যপ্রযুক্তিখাত সবই বিদ্যুতের ব্যবহারের সাথেই সম্পৃক্ত। আর তাই শক্তি কিংবা পাওয়ার কনজাম্পশনের মাথা পিছু হার দেখেই বুঝা সম্ভব কোন দেশ কতটা সম্বৃদ্ধ। সার্বিক বিদ্যুৎ শক্তি ব্যবহারের তুলনামূলক চার্ট [তথ্যসূত্রঃ উইকিপিডিয়া]  এই তালিকায় বাংলাদেশের অবস্থান কততম তা বের করা মুশকিল। তবে মাথা পিছু ২৮ ওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদিত হয় বাংলাদেশে ২০১২ সালের তথ্যানুযায়ী। এই তালিকায় শীর্ষে থাকা বেশীরভাগ রাষ্ট্র শীত প্রধান...

“ধর্মীয় মৌলবাদ একটি মানসিক ব্যাধি” এবং অভিজিৎ রায়ের “বিশ্বাসের ভাইরাস”

“বিশ্বাস নির্ভর সমাজে ধর্মের প্রভাব ব্যাপক। আমাদের পরিচিতি, রীতিনীতি, বিয়েসহ তাবৎ সামাজিক উৎসবে আমরা ধর্মের অস্তিত্ব খোঁজে পাই। কিন্তু আমরা ক’জনে জানি যে, ধর্মের বিস্তার আর টিকে থাকার ব্যাপারগুলো ভাইরাসের মত করে অনেকটা।” – অভিজিৎ রায় (বিশ্বাসের ভাইরাস) রাজীব হায়দার শোভন’কে উৎসর্গিত ২০১৪ সালে প্রকাশিত সদ্য প্রয়াত বিজ্ঞান লিখকও, গবেষক এবং প্রকৌশলী ডঃ অভিজিৎ রায়ের ‘বিশ্বাসের ভাইরাস’ বইয়ের কিছু অংশ এটি। এই বইয়ে আটটি অধ্যায় আছে। অধ্যায় গুলো নিম্নরূপঃ প্রথম অধ্যায়ঃ একজন নাফিস এবং বিশ্বাসের ভাইরাস দ্বিতীয় অধ্যায়ঃ বিশ্বাসের ভাইরাসঃ থাবা বাবার রক্তবীজ তৃতীয় অধ্যায়ঃ ব্লগার গ্রেফতারঃ ভাইরাসাক্রান্ত বাংলাদেশ চতুর্থ অধ্যায়ঃ ধর্ম কেন ভাইরাসের সমতুল্য পঞ্চম অধ্যায়ঃ ধর্ম কি সত্যিই...

zovirax vs. valtrex vs. famvir

একুশের ঢাকা বাঙালীর তীর্থস্থান

প্রথমে একটা প্রাসঙ্গিক সংজ্ঞা দেই; ‘ইংরেজ’ বা, ‘English’ বলতে আমরা কি বুঝি? ‘ইংরেজ’ বা, English- রা হল একটি জাতি এবং জাতিগত গোষ্ঠী যাদের নেটিভ ভাষা ইংরেজী আর বসবাস করে ইংল্যান্ড। ‘ইংরেজ’-দের প্রাচীন পরিচয় মধ্যযুগীয় হলেও ,তারও আগে ইংরেজরা Anglecynn হিসাবে পরিচিত ছিল। অর্থাৎ, ইংরেজ বলতে যুক্তরাজ্যে বসবাসকারী ইংরেজি ভাষা-ভাষীর মানুষদের বুঝায়! অথচ বিশ্বে আজ অনেক দেশ আছে যেখানে ইংরেজি ভাষা-ভাষীর মানুষের আধিক্য। কিন্তু, তাদের আমরা ইংরেজ বলি না। যেমন নিউজিল্যান্ড, অস্ট্রেলিয়াসহ আরও অনেক রাষ্ট্র! এই ভাষা আন্দোলনের মাসে এই বিতর্ক আরও প্রাসঙ্গিক। কলকাতার মানুষের কথা হচ্ছে একুশের ঢাকা হচ্ছে বঙ্গালীর তীর্থস্থান। আমাদের এই আত্মপরিচয় জ্ঞাপক প্রধান করে আমাদের পহেলা বৈশাখ আর একুশের বইমেলাসহ ফেব্রুয়ারির অনুষ্ঠানমালা।...

কিছু প্রগালাপ, প্রসঙ্গঃ সংলাপ

“Hope is a good breakfast, but it is a bad supper.” ― ফ্র্যান্সিস্‌ বেক‌ন (Francis Bacon) [২২শে জানুয়ারি, ১৫৬১ - ৯ই এপ্রিল, ১৬২৬] প্রতিদিন সকালেই মনে হয় আজ সব ঠান্ডা হয়ে যাবে। আজ বিকাল থেকে আর মানুষ পুড়ে মরবে না কিংবা বার্ন ইউনিটে কাতরাবে না। তাঁদের নিয়ে নোংরা রাজনীতি করবে না রাজনৈতিকেরা। একটা সময় ছিল যখন নেতারা আন্দোলন করে জনগণের জন্যে নিজের জীবন দিয়ে দিতেন। দিয়েছেন মহাত্মা গান্ধী থেকে বঙ্গবন্ধু কিংবা চে গুয়েভারা। আর আজ আমাদের রাজনৈতিকরা নিজেদের স্বার্থে পুড়ে মারছে নিরীহ জনগণকে। তাই ফ্র্যান্সিস্‌ বেক‌নের কথাটাই মনে হয়। সকালের আশাবাদ নিয়ে অফিসে যাওয়া হয় আর সন্ধ্যায় বাসায় ফিরে টিভি ছাড়লেই...

একদল মৃত্যুঞ্জয়ী মুক্তিযোদ্ধার ‘ক্র্যাক প্লাটুন’

মেজর খালেদ মোশাররফ এর অধীনে ও মেজর হায়দার এর প্রত্যক্ষ তত্বাবধানে গঠিত হয় ঢাকা শহরের একদল মুক্তিপাগল তরুণদের নিয়ে গঠিত এক বিশেষ গেরিলা প্লাটুন, যা পরে ক্র্যাক প্লাটুন নামে পরিচিত হয়। এই দুর্ধর্ষ এবং মুক্তিপাগল গেরিলা দলটি অত্যন্ত দক্ষতার সাথে “হিট এন্ড রান” অর্থাৎ ঝটিকা আক্রমণের পদ্ধতিতে ঢাকা শহরে মোট ৮২টির মত অপারেশন পরিচালনা করেন। যা পাকিস্তানী সেনাবাহিনীর মধ্যে ব্যাপক ত্রাসের সঞ্চার করে এবং জনমনে আগ্রহের সঞ্চার করে। ক্র্যাক প্লাটুনে মুক্তিযোদ্ধার সংখ্যা ঠিক কনভেনশনাল আর্মির প্ল্যাটুনের মত ছিল না। তারা এতটা ক্র্যাক কিংবা মুক্তির প্রশ্নে অবিচল এবং দৃঢ়চেতা ছিলেন যে ঢাকায় পাকিস্তানী আর্মিদের শক্ত ঘাটি থাকা সত্বেও, নাড়িয়ে দিয়েছিল তাদের আত্মবিশ্বাস।...

দাম দিয়ে কিনেছি বাংলা – ১

মনে আছে তারাকোভস্কির ১২ বছরের সেই ইভানকে? যাকে পূর্ব দিগন্তে গুপ্তচরবৃত্তি করতে দেয়া হয়েছিলো? খুব মনে পরছে সবার। কি মহাকাব্য তাই না? যুদ্ধের ইতিহাস বলতে গেলেই এমন আবেগস্পর্শী চূড়ান্ত দৃষ্টান্ত আমরা হাজির করি। তিন সোভিয়েত অফিসার তার দেখাশোনা করতো। ঠিক ধরেছেন তারাকোভস্কির বিখ্যাত চলচ্চিত্র ‘ইভানস চাইল্ডহুড’ (১৯৬২) এর কেন্দ্রীয় চরিত্রের ইভানের কথা বলছি। আবার এরিক মারিয়া রেমারক এর পশ্চিম দিগন্ত শান্ত কিংবা ‘ওল কোয়ায়েট অন দ্যা ওয়েস্টার্ন ফ্রন্ট’ এর একদল স্কুল ছাত্রের কথা। হুম মনে পরেছে তাই না? খুব প্রশংসার ফুলঝুরি ঝরবে এখন বোদ্ধা মহলে। এই লিখকের ‘যুদ্ধ শান্তি ভালোবাসা’ উপন্যাসটিও একই রকমও। যুদ্ধের শিশুদের বীরত্বগাঁথা কিংবা তাঁদের অমানবিক জীবনের গল্পে... tome cytotec y solo sangro cuando orino

clomid over the counter

“আমাদিগকে অন্ধকারে রাখবার জন্য পুরুষগণ ঐ ধর্মগ্রন্থগুলোকে ঈশ্বরের আদেশপত্র বলিয়া প্রকাশ করিয়াছেন…” —বেগম রোকেয়া সাখাওয়াত হোসেন (ডিসেম্বর ৯, ১৮৮০- ডিসেম্বর ৯, ১৯৩২) উনবিংশ শতাব্দীর একজন খ্যাতিমান বাঙালি সাহিত্যিক ও সমাজ সংস্কারক এবং বাঙ্গালী নারী জাগরণের অগ্রদূত

cialis new c 100

“জার্নি টু মার্স”: ওরিয়ন; অনাগত ভবিষ্যতের পথে প্রথম মানব মহাযাত্রা

অদূরভবিষ্যতে মহাকাশচারীরা ওরিয়ন মহাকাশযানে চেপেই আমাদের অতি পরিচিত লাল গ্রহ ‘মঙ্গল’-এ যাত্রা করবে। আর এই অনাগত ভবিষ্যতের পথে মানুষের প্রথম পদক্ষেপ হচ্ছে আজকের এই মহাযাত্রা। মহাযাত্রা না বলে বাঙলায় মঙ্গল যাত্রা বলাই শ্রেয়। ইংরেজিতে মঙ্গল অর্থাৎ মার্স শব্দটির এমন অর্থবোধক অর্থ নেই বোধহয়। এই পোস্টটি যখন প্রকাশিত হবে ঠিক তখনই অর্থাৎ বাংলাদেশ সময় সন্ধ্যা ৬:০৫ ঘটিকায় ‘ওরিয়ন’ মঙ্গলের উদ্দেশ্যে যাত্রা শুরু করবে। নাসা’র কেনেডি স্পেস সেন্টার, ফ্লোরিডা থেকে মানবতার এই মহান মঙ্গল যাত্রা শুরু করতে যাচ্ছে সময়ের সবচে শক্তিশালী এই মহাকাশ যানটি। হুম এতক্ষণে ধরে ফেলেছেন এই মাইলফলক সৃষ্টিকারী মহাকাশ যানটির নাম ‘ওরিয়ন’ বাঙলায় কালপুরুষ। যারা আকাশের দিকে তাকিয়ে তারকাপুঞ্জ...

can levitra and viagra be taken together

ঈশ্বরের অস্তিত্ব অস্বীকার করা এই দেশে অপরাধ দুর্নীতি কখনো নয়

ঘটনা সংক্ষেপঃ সাবেক মন্ত্রী আবদুল লতিফ সিদ্দিকী এমপির বিরুদ্ধে ওঠা সব অভিযোগ তদন্ত করে দেখা হবে বলছে সরকার। বিশেষ করে বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রীর দায়িত্বে থাকাবস্থায় সরকারের মূল্যবান সম্পত্তি বিনা টেন্ডারে বিক্রি, হস্তান্তর ও ইজারা দেওয়ার অভিযোগগুলো সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে তদন্ত করা হবে। ইতিমধ্যে বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয় থেকে লতিফ সিদ্দিকীর সব অনিয়ম-দুর্নীতির নানা তথ্য-উপাত্ত দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) কাছে পাঠানো হয়েছে বলে জানা গেছে। অথচ এই সেদিনও সরকারের পক্ষে টিভি টকশোগুলোর অন্যতম সরভ কণ্ঠস্বরের মধ্যে অন্যতম ছিলেন। তাহলে কেন আজ তিনি বিরাগভাজন? কারণ কারো অজানা নয় তাও তার সেই বিখ্যাত বক্তব্যটি একটু দেখি;  ‘আমি কিন্তু হজ আর তাবলিগ...

viagra vs viagra plus

জনসংখ্যা সমস্যা ও সরকারের করনীয়

কেইস স্টাডি-১ নাম: জসিম, বয়স : ২৮, (সাক্ষাৎকারের সময় ৪ অক্টোবর ২০১৪)। বিয়ে করছে ১১ বছর আগে, এক ছেলে এক মেয়ে! ছেলের বয়স ১০ মেয়ের ৫ বছর, দুই বাচ্চাকেই সে স্কুলে পড়ায়!  পেশায় রিকশা চালক, দৈনিক আয় ৩০০-৫০০ টাকা। স্বপ্ন দুবেলা দুমুঠো খেয়ে বেঁচে থাকা। পারলে সন্তান দুটাকে মানুষ করা না হয় বাকিটা আল্লাহর হাতে, কপালে যা লিখা আছে। অর্থাৎ তকদীরের উপর ছেড়ে দেয়া। পরিবার পরিকল্পনার কোন চিন্তা নেই আল্লাহ যে কয়টা দেয় সন্তান তাই হবে। কেইস স্টাডি-২ নাম: শফিক, বয়স; ১৭, (সাক্ষাৎকারের সময় ২০১৩ এর মাঝামাঝি), বিয়ে করেছে বছর খানেক আগে। এখনো সন্তান নেয় নি। পেশায় নির্মাণ শ্রমিক। গড় দৈনিক আয়...

নিরপেক্ষতার মানদন্ড এবং আমাদের নিরপেক্ষতা

নিরপেক্ষতা আসলে কি?    নিরপেক্ষতা বা Neutralism কে রাজনৈতিক আদর্শের ক্ষেত্রে দল নিরপেক্ষ বা Nonalignment ও বলা যেতে পারে। শান্তিকালীন সময়ে রাজনৈতিক প্রভাবমুক্ত থেকে রাজনৈতিক বা আদর্শগত সম্মিলনে দল নিরপেক্ষ থেকে মতামত দেয়াকেই নিরপেক্ষতা বলে। তাহলে কি দাঁড়াল?  এখন কোনটা কে নিরপেক্ষতা বলব? বিচারক নিরপেক্ষ থাকেন কিভাবে? আচ্ছা বিচারক কি খুনি বা বাদির প্রশ্নে নিরপেক্ষ থাকেন? নাকি বিচারক খুনি বের করেন? আমরা এইটা নিশ্চিতভাবেই বলতে পারি বিচারক আসামি আসলেই খুনি কিনা তা যাচায় করেন সমস্ত সংখ্যাগরিষ্ঠ ও গুরুত্বপূর্ণ এবং সংখ্যালঘিষ্ঠ মতামতের যথাযথ ও পক্ষপাতহীন প্রতিফলনের ভিত্তিতে অর্থাৎ নিরপেক্ষতা বলতে বুঝায় সত্যের পক্ষে থাকাকে।  বিচারক শুনানি শুনে বের করবেন আসল সত্য কি? আর নিরপেক্ষতার মানদণ্ড...

zithromax azithromycin 250 mg

৩০ লাখ বাঙালী হত্যার আইকনিক মিথ এবং বাস্তবতা

১৯৭১ সালের ২৫ মার্চ দিবাগত রাতে পাকিস্তানি হানাদার সামরিক জান্তা নিরস্ত্র বাঙালিদের উপর বর্বরোচিত হত্যাযজ্ঞ শুরু করে। ২৮ মার্চ ১৯৭১-এর নিউইয়র্ক টাইমস বলছে, অপারেশন সার্চলাইট-এর ঐ একরাতের হত্যাযজ্ঞে প্রাণ হারায় দশ হাজার নিরস্ত্র বাঙালী, যদিও ১ এপ্রিল নিউইয়র্ক টাইমস বলে ৩৫,০০০ হাজার বাঙালীর প্রাণহানি হয় অপারেশন সার্চলাইট’র একরাতে। সিডনির মর্নিং হেরাল্ড ২৯ মার্চ ১৯৭১-এ বলেছে অপারেশন সার্চলাইটে মোট নিহতের সংখ্যা ১০,০০০ থেকে ১,০০,০০০ জন হতে পারে। ২৬ মার্চের প্রথম প্রহরে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর হাতে গ্রেপ্তার হন বঙ্গবন্ধু। তিনি গ্রেফতারের পূর্বে পরাধীনতার শৃঙ্খল থেকে মুক্তির জন্য বাংলাদেশের স্বাধীনতা ঘোষণা করেন। এরপর থেকে তিনি পশ্চিম পাকিস্তানের কারাগারে আটক ছিলেন। গোটা বাঙলা যখন স্বাধীনতার জন্য...

viagra en uk

যন্ত্রের চোখে পড়ন্ত বিকেল থেকে সূর্যাস্ত

যন্ত্রের চোখে পড়ন্ত বিকেল থেকে সূর্যাস্ত    আলোকচিত্র- ০১   আলোকচিত্র- ০২    আলোকচিত্র- ০৩   আলোকচিত্র- ০৪   আলোকচিত্র- ০৫   আলোকচিত্র- ০৬   আলোকচিত্র- ০৭    আলোকচিত্র- ০৮    আলোকচিত্র- ১০    আলোকচিত্র- ১১    আলোকচিত্র- ১২

কামালপুরের যুদ্ধ — অজানায় থাকা এক বীরত্বগাঁথা (প্রথম পর্ব)

গত শতাব্দীকে বোধহয় আমরা সবচে নৃশংসতম শতাব্দীও বলতে পারি। সভ্য হওয়ার সবচে সাহসী দাবীদার এর আগে এতো রক্তপাত করেছিল কিনা আমার জানা নেই। যেমন ব্যাপক প্রাণঘাতী যুদ্ধের বেশ কয়েকটিই গত শতাব্দীর উদাহরণ দিয়ে শেষ হবার নয়। যেমন প্রথম বিশ্বযুদ্ধে নিহতের সংখ্যা প্রায় ১২ মিলিয়ন, দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে ৬০ মিলিয়ন, ভিয়েতনাম যুদ্ধে প্রায় ৫ মিলিয়ন এবং কঙ্গো যুদ্ধের প্রায় ৪ মিলিয়ন প্রাণহানি। আর আমাদের এই বঞ্চিত-লাঞ্ছিত বাংলায় একাত্তরে প্রাণ দিতে হয় প্রায় ৩ মিলিয়ন মাত্র ৮ মাস ২০ দিনে। মৃতের সংখ্যা কেবলই বর্বরতার ভয়ংকরতম চেহারা ফুটিয়ে তুলতে সক্ষম নয়। আমরা এইসবের কিছু ধারণা পায় বিশ্ব-চলচ্চিত্রের কিছু অসাধারণ কাজ থেকে তার থেকে বেশী...

‘The Sea Inside’ সমুদ্র প্রাণ এক মানুষের আত্মহত্যার অধিকার স্থাপনের গল্প…

চলচ্চিত্রঃ The Sea Inside পরিচালকঃ আলেজান্দ্রো আমেনাবার, কাহিনী ও চিত্রনাট্যঃ আলেজান্দ্রো আমেনাবার ও মাতিও জিল বছরঃ ২০০৪, দৈর্ঘ্যঃ ১২৫ মিনিট, ভাষাঃ স্প্যানিশ/ কাতালান, মূল/কেন্দ্রীয় চরিত্রেঃ হ্যাভিয়ের বারদেম, সময়ের অন্যতম শক্তিমান অভিনেতা। রিলিজ ডেটঃ ৩ সেপ্টেম্বর ২০০৪,  আইএমডিবি রেটিং- ৮.০,  রটেন টমেটোঃ ৮৪%, পুরস্কারঃ অস্কার, গোল্ডেন গ্লোব সহ সারাবিশ্বে ৬১ টি পুরষ্কার এবং আরও ৩০ টি মনোনয়ন। বাজেটঃ ১০ মিলিয়ন ইউরো, ওয়ার্ল্ড ওয়াইড বক্স অফিসঃ ৩৮.৫ মিলিয়ন ইউএস ডলার। কাহিনী সংক্ষেপঃ The Sea Inside এর কাহিনী একটি বাস্তব জীবনের গল্প। রামেন সাম্পেদ্রো কামেন একজন স্প্যানিশ মৎস্যশিকারি এবং লেখক। তাঁর জন্ম ৫ জানুয়ারি ১৯৪৩ সালে। মাত্র ২৫ বছর বয়সে ২৩ আগস্ট ১৯৬৮ সালে তিনি সমুদ্রে ডাইভিং করার সময় মর্মান্তিক একটি  দুর্ঘটনায় Quadriplegia-ই আক্রান্ত হয়ে পঙ্গু হন। ২৯ বছর তিনি আত্মহত্যার অধিকার নিয়ে সংগ্রাম...

ভেঙ্গে পড়ছে মেকী সকল মানবিক সংঘ-পরিষদ

ঘটনা-একঃ  (সমাজ) ঘটনার সূত্রপাত ৩০ মার্চ, ২০১৪। চট্টগ্রাম কলেজ থেকে উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষার প্রবেশপত্র সংগ্রহের জন্য রাহী ও উল্লাস কলেজে যাচ্ছিল বেলা এগারোটার দিকে, তখন স্বাধীনতাবিরোধী রাজনৈতিক দল ও যুদ্ধাপরাধের অভিযোগে অভিযুক্ত জামায়াতে ইসলামীর ছাত্রসংঘ ইসলামী ছাত্র শিবিরের পঞ্চাশ থেকে ষাটজন ক্যাডার তাদের উপর হামলা চালায়। অবশ্যই ধর্মানুভূতির জুজু পুঁজি করে। ঘটনা-দুইঃ  (শিক্ষা)   গত ৩ এপ্রিল থেকে শুরু হওয়া এইচএসসির  তত্ত্বীয় বিষয়ের পরীক্ষা শেষ হওয়ার কথা ছিল ৫ জুন। তবে স্থগিত ইংরেজি দ্বিতীয় পত্রের পরীক্ষা গত ৮ জুন নেয়া হয় । এখানের শেষ নয় শিক্ষার মূল উদ্দেশ্য যেখানে মূল্যবোধের সৃষ্টি এবং মানব সভ্যতার অগ্রযাত্রার ক্রমান্বয় ঠিক রাখা মাঝে মাঝে সেখানেও তীব্র...