Author: ইমতিয়াজ আজাদ

লিওনিদাস–দ্য ট্র্যাজিক হিরো

তাঁকে ডাকা হতো ‘ব্ল্যাক ডায়মন্ড’ নামে। তাঁর নাম লিওনিদাস। পুরো নাম লিওনিদাস ডা সিলভা। এ মানুষটিকে মনে করা হয় বাইসাইকেল কিকের জনক। তাঁকে আরও একটা নামে ডাকা হত। ‘দ্য রাবার ম্যান।’ বিশ্বকাপে তাঁর অভিষেক হয়েছিলো ১৯৩৪ সালে স্পেনের বিপক্ষে। ঐ ম্যাচে হেরে গেলেও ব্রাজিলের একমাত্র গোলটি আসে তাঁর পা থেকেই। সেই বিশ্বকাপ শুরু থেকেই ছিল নকআউট পর্বের। তাই স্পেনের কাছে হেরে যাওয়ায় সেবারে আর কিছু করে দেখানোর সুযোগ পাননি। তবে ১৯৩৮ সালের বিশ্বকাপ শুধুমাত্র এবং শুধুমাত্র লিওনিদাসময়। ১৯৩৮ সালে বিশ্বকাপ অনুষ্ঠিত হয় ফ্রান্সে। গোটা ইউরোপজুড়ে তখন দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের আগমনধ্বনি। সেই বিশ্বকাপও ছিল নকআউট পর্বের। অর্থাৎ হারলেই গুডবাই। প্রথম ম্যাচে ব্রাজিল...

ঘিঘিয়াকথন

তাঁর নাম ঘিঘিয়া। অ্যালসিডেস ঘিঘিয়া। বাস্কেটবল ছেড়ে যখন তিনি ফুটবলেই ক্যারিয়ার গড়ার সিদ্ধান্ত নিলেন তখন তিনি বড় সমস্যায় পড়ে গেলেন। উরুগুয়ের ন্যাশিওনাল এবং পেনারোল ক্লাবের মধ্যে বৈরীতা ‘উরুগুইয়ান ক্লাসিকো’ নামে পরিচিত। তাঁর পরিবার ছিল পেনারোল ফুটবল ক্লাবের ডাইহার্ড ফ্যানের চাইতেও বেশি কিছু। তাই তিনি যখন জানালেন তিনি ন্যাশিওনাল ফুটবল ক্লাবের হয়ে খেলবেন তাঁকে তাঁর মা জানিয়ে দিলেন, ন্যাশিওনালের হয়ে খেললে তিনি যেন আর বাসামুখো না হন। অগত্যা বাধ্য হয়ে পেনারোল ক্লাবের হয়ে ট্রায়াল দিলেন তিনি। টিকেও গেলেন। পেনারোলের হয়ে ১৯৪৯ আর ১৯৫১ সালে জিতলেন লিগ শিরোপা। খেলেছেন রোমা এবং এসি মিলানের মতো দলের হয়ে। ইউরোপে তিনি ছিলেন পাপারাজ্জিদের প্রিয় সাবজেক্ট।...

কুখ্যাত জালিয়ানওয়ালাবাগ হত্যাকাণ্ড নিয়ে দুছত্র

ব্রিগেডিয়ার রেজিনাল্ড ডায়ার নির্দেশ দিলেন, “ফায়ার।” রেজিনাল্ড ডায়ারের এক কথায় বদ্ধ উদ্যানটিতে নরক নেমে এলো। সেই নরকের স্থায়িত্ব ছিল মাত্র ১০ মিনিট। কিন্তু সেই ১০ মিনিটেই ১০০ গুর্খা সৈন্য  মেরে ফেললো প্রায় ২০০০ মানুষকে। ১৩ এপ্রিল, ১৯১৯। শিখদের নববর্ষ উৎসব উপলক্ষে স্বর্ণমন্দিরসংলগ্ন জালিয়ানওয়ালাবাগে বিশেষ প্রার্থনাসভায় উপস্থিত হয়েছিলেন অমৃতসরের নানা ধর্মের অন্তত ২০ হাজার মানুষ। শহরে তখন চলছে সামরিক আইন রাওলাট অ্যাক্টের বিরুদ্ধে আন্দোলন। আন্দোলন থামাতে ব্রিটিশ সরকার জারি করেছে ১৪৪ ধারা। সে ধারা ভঙ্গ করেই নববর্ষ উৎসব পালনের জন্য সবাই সমবেত হয়েছে জালিয়ানওয়ালাবাগের ঐতিহাসিক ময়দানে। ব্রিটিশ ব্রিগেডিয়ার জেনারেল ডায়ারের কানে পৌঁছে যায় এই জমায়েতের কথা। তৎক্ষণাৎ ডায়ার ১০০ জন রাইফেলধারী... doctus viagra

missed several doses of synthroid

অগ্নিপুরুষ

তাঁর সাথে কেটেছে আমার কৈশোর। গ্রীষ্মের তপ্ত দুপুরে, বৃষ্টিভেজা রাতে মোমবাতির আলোয়, কুয়াশাভরা শীতের রাতে লেপের নিচে আমি তাঁর সাথে হেঁটে বেড়িয়েছি কাশ্মীর, বার্লিন, মাদ্রিদ, নেপলস, প্যারিসের অলিগলি। মৃত্যুর মুখ থেকে ফিরে এসেছি বারবার। তবুও হাঁটা থামে নি আমার। কত বন্ধু পেলাম তাঁর কারণে। স্বর্ণহৃদয় রডরিক আর ল্যাম্পনি, ক্যান্সারাক্রান্ত মেজর ফজল মাহমুদ, অসহ্য মাইকেল সেভারস, মোচওয়ালা ক্যাপ্টেন মিশ্রী খান, লেফটেন্যান্ট আতাসী, ছোট বোনের মত লুবনা আভান্তি, হাতকাটা  সোহেল আহমেদ, ফ্রেঞ্চকাট দাঁড়ির ভিনসেন্ট গগল, ‘লড়েচ কি মরেচ’ গিলটি মিয়া এবং অতি অবশ্যই কাঁচাপাকা ভুরুর সেই বুড়ো যার নাম রাহাত খান। প্রেয়সীও কি কম জুটলো? প্রথম প্রেম রাফেলা বার্ড যার আসল নাম...

দ্য গ্যালোপিং মেজর

তাঁকে ডাকা হত “গ্যালোপিং মেজর” নামে। আর্মিতে থাকার সময় আর্মির ফুটবল দলে খেলতেন। গ্যালোপিং মেজর নাম পান সেখান থেকেই। ইংরেজিতে গ্যালোপ(gallop) শব্দের অর্থ দ্রত ছোটা। বল পায়ে খুব দ্রুত ছুটতে পারতেন তাঁর সতীর্থরা তাঁকে এই নাম দেন। ১৯৫৩ সালে হাঙ্গেরি জাতীয় দল ইংল্যান্ডে গেলো একটি প্রীতি ম্যাচ খেলতে। সেই ম্যাচ শুরুর আগে ইংল্যান্ড দলের একজন খেলোয়াড় হাঙ্গেরি জাতীয় দলের ক্যাপ্টেনকে দেখিয়ে মন্তব্য করলেনঃ “আমরা ওদেরকে খুন করবো। বুঝেছো? আমরা ওদেরকে খুন করে ফেলবো মাঠে।” ব্রিটিশদের দুর্ভাগ্য যে হাঙ্গেরির ক্যাপ্টেন ছিলেন গ্যালোপিং মেজর ওরফে ফেরেঙ্ক পুসকাস নিজেই। এর পরের ৯০ মিনিটে যা হল তার জন্য হয়তো সেই ইংলিশ খেলোয়াড় বহুবার আফসোস...

রূপকথার গল্প—বুদ্ধিমান পাদ্রী

বহুকাল আগের কথা। কোন এক দেশের এক প্রত্যন্ত গ্রাম। সেই গ্রামে ছিলেন এক পাদ্রী। গ্রামের একমাত্র গির্জার দায়িত্ব ছিল তাঁর উপর। গ্রামের সবার সঙ্গেই তার খুব সদ্ভাব ছিল। গ্রামের যে কারো বিপদে আপদে আর কাউকে পাওয়া না গেলেও তাঁকে পাওয়া যেতো। ভালো মানুষ হিসেবে তাঁর সুনাম ছিল প্রচুর। প্রচণ্ড শীতের এক রাত। বাইরে কনকনে ঠাণ্ডা পড়েছে। পাদ্রী রাতের খাওয়া সেরে ঘুমানোর আয়োজন করছেন। এমন সময় দরজায় বাইরে থেকে নক হল। “এতো রাতে কে এলো আবার?” তিনি দরজা খুলে দেখলেন বারোজন মানুষ দাঁড়িয়ে আছে। তাদের মধ্য থেকে একজন পাদ্রীকে উদ্দেশ্য করে বলল, “আমরা অনেক দূর থেকে আসছি। দয়া করে যদি আজ...

viagra vs viagra plus

আজ অর্চি’র বিয়ে

১. রাত ১০ টা বেজে ৫৯ মিনিটে রজতকে শপিং ব্যাগ হাতে বনশ্রী থেকে আফতাবনগরের দিকে যেতে দেখা গেলো। তার পরনে কালো জিন্স এবং নেভি ব্লু টি-শার্ট। পায়ে বাটার তৈরী কেডস সু। ঢাকা শহরে রাত ১১ টা এমন কিছু রাত নয়। এ সময়েও বিভিন্ন জায়গায় জ্যাম থাকে। কিন্তু এখন রামপুরা ব্রিজ প্রায় ফাঁকা। কয়েকটা রিকশা প্যাসেঞ্জার নিয়ে যাচ্ছে তাদের গন্তব্যে। প্রাইভেট কার প্রায় নেই বললেই চলে। তবে সারাদিন বন্ধ থাকা পণ্যবাহী ট্রাকগুলো রাস্তায় নেমেছে এখন। রজত ধীরেসুস্থে হাঁটছে। যেন কোন তাড়া নেই। হাঁটতে হাঁটতে আফতাবনগরের গেট পিছনে ফেলে আসলো ও। ওর গন্তব্য হল আফতাবনগরের শেষ মাথা। যে কাজে যাচ্ছে তার এখনও...

buy kamagra oral jelly paypal uk
will i gain or lose weight on zoloft

একজন হুমায়ূন ফরিদী

“চলচ্চিত্রে কিভাবে এলেন?” “পরিচালক খোকনের সাথে।” “না মানে এফডিসিতে কিভাবে?” “বেবীটেক্সিতে করে।” কার কথা হচ্ছে বুঝতে পারছেন তো? ওয়ান এন্ড অনলি হুমায়ূন ফরিদী। বাংলা চলচ্চিত্রে খলনায়ককে এমন এক লেভেলে নিয়ে গিয়েছিলেন তিনি যেখানে নায়ক/নায়িকাকে নয় মানুষ হলে যেতো হুমায়ূন ফরিদী’র অভিনয় দেখতে। হুমায়ূন ফরিদী’র অভিনয় জীবন শুরু হয়েছিলো মঞ্চ নাটকের মাধ্যমে। মঞ্চ নাটকের পর তিনি অভিনয় শুরু করেন টিভি নাটকেও। কান কাটা রমজান নামে এক ভিলেন পূর্ণতা পায় তার হাত ধরেই। যদিও মঞ্চ নাটক বা টিভি নাটক নয়, ফরিদীকে বর্ণনা করতে হলে চলচ্চিত্রের ভাষায় বলতে হয়, ফরিদী এবং চলচ্চিত্র ছিল দুজন দুজনার। তাঁর প্রথম ছবির নাম ছিল ‘সন্ত্রাস।’ চলচ্চিত্রে কেন...

walgreens pharmacy technician application online

গল্প—অপদেবতা

১. “স্যার, আমাকে বাঁচান।” সুলতান আজম  মুখ তুলে তাকালেন। তাঁর সামনের চেয়ারে এক যুবক বসে আছে। যুবকের বয়স ২২-২৩ বছর মত হবে। যুবকের চোখদুটো টকটকে লাল। পরনের জামাকাপড় অবিন্যস্ত। চুলগুলো উষ্কখুষ্ক। বোঝা যাচ্ছে সে খুব বড় বিপর্যয়ের মধ্য দিয়ে যাচ্ছে। “কি হয়েছে আপনার? কি সমস্যা?” “স্যার, আমাকে বাঁচান। ও আমাকে মেরে ফেলবে।” “কে আপনাকে মেরে ফেলবে?” “স্যার, ও। গুড্রবঙ্গা।” “গুড্রবঙ্গা। শব্দটা পরিচিত লাগছে। আগে কোথাও শুনেছেন তো অবশ্যই। কিন্তু কোথায় শুনেছেন এ মুহূর্তে মাথায় আসছে না।” সুলতান সাহেব ঘড়ি দেখলেন। ১:৫৭। লাঞ্চব্রেকের সময় হয়ে গেছে। তিনি সামনে বসা যুবকটিকে বললেন, “লাঞ্চটাইম হয়ে গেছে। চলুন, লাঞ্চ করবেন আমার সাথে। খেতে খেতে...

গল্প—গোল্ডফিশ

রাত ১.২০। সারাদিন জেগে থাকা ঢাকা শহরটাও এসময়ে ঘুমিয়ে পড়ে। সবাই নিজ নিজ ঘরে ফিরে শুরু করে নিদ্রাদেবীর আরাধনা। তবুও এ সময়ে জেগে থাকে কিছু মানুষ। এ গল্পের প্রধান চরিত্র রশিদ মিয়া সেরকম একজন। রশিদ মিয়া ঢাকার গুলশান এলাকার একটি এটিএম বুথের সিকিউরিটি গার্ড। তাঁর পাহারা দেওয়ার সময় রাত ৮টা থেকে সকাল ৮টা। গুলশানের মতো এলাকায় রাত ১২টা-১২.৩০টা পর্যন্ত কোন সমস্যা হয় না। কিন্তু এর পরে এই এলাকা একদম নিস্তব্ধ হয়ে যায়। এই সময়ে একা বসে বসে পাহারা দেওয়া বড় কঠিন কাজ। এই সময়ে একাকীত্ব ঘিরে ধরে। রশিদ মিয়ার অবশ্য সেরকম কোন সমস্যা নেই। একা থাকতেই তাঁর বরং ভালো লাগে।...

ওয়েস্টার্ন গল্প– “রক্ষক”

১. আমার নাম জিম মরিসন। এই মুহূর্তে আমি বসে আছি রকস্টোন ভ্যালির শেরিফের অফিসের আরাম কেদারাতে। সন্ধে হয়ে এসেছে। এখনি বেরোবো। কাজকাম নাই, বসে থেকে করবোটা কি? তবে বাড়িতে যাওয়ার আগে ফক্স’এর সেলুনে একবার উঁকি দিতে হবে। কিছুক্ষণ আগে এক আগন্তুক ঢুকেছে ওখানে। তার সাথে কথা বলা দরকার। এমনিতে কোন সমস্যা হওয়ার কথা না, রুটিন ওয়ার্ক আর কি। গানবেল্ট পরে দরজায় তালা লাগিয়ে বেরোলাম। গলাটা শুকিয়ে কাঠ হয়ে আছে। ফক্স’এর ওখানে গিয়ে ওর স্পেশাল হুইস্কি গলায় ঢালতে হবে। না হলে আর চলছে না। সেলুনে ঢুকে ১টা স্পেশাল হুইস্কির অর্ডার দিয়ে আগন্তুকের দিকে তাকালাম। বেঁটে-খাটো একজন মানুষ। টেনে-টুনে বড়োজোর আমার বুক...

renal scan mag3 with lasix

বাংলাদেশের ফুটবল, লটারি এবং অন্যান্য।

  মেসি-নেইমার-রোনালদো নিয়ে তর্ক তো অনেক হল। এবার একটু দেশের ফুটবলের দিকে তাকানো যাক।   এই মুহূর্তে বাংলাদেশ আছে ফিফা র‍্যাঙ্কিং এর ১৬৫ নম্বর স্থানে। যারা জানেন না তাদেরকে বলি ফিফা’র সদস্য সংখ্যা ২০৯।   একটা সময় বাংলাদেশের ফুটবলের রমরমা অবস্থা ছিল। এটা প্রায় ২০ বছর আগের কথা।  ঘরোয়া ফুটবলে আবাহনী-মোহামেডান ম্যাচ ছিল পুরা বারুদে ঠাসা। সাদা কালো আর আকাশী নীলের খেলাকে কেন্দ্র করে আয়োজনও কম হত না। আমি নিজে আবাহনী মোহামেডানের পতাকা উড়তে দেখেছি। তখন আবাহনী মোহামেডানের খেলা উপলক্ষে স্কুল তাড়াতাড়ি ছুটি হয়ে যেতো। এটাও আমার নিজের চোখে দেখা। কিন্তু আজ বাংলাদেশের ফুটবলের অবস্থা দেখেন। মাঠ নাই, মাঠ থাকলেও...

বিজয় দিবসের গল্প—”জয় বাংলা”

১.   ৭ জানুয়ারি, ২০১৫।   ২০১৫ সালের বিশ্বকাপের জন্য বাংলাদেশ দলের ১৫ সদস্যের দল ঘোষণা করা হল এইমাত্র। যাদের থাকার কথা ছিল তারা সবাই-ই আছে।   স্কোয়াডঃ মাশরাফি, সাকিব, তামিম, মুশফিক, মাহমুদউল্লাহ, বিজয়, মমিনুল, রুবেল, তাসকিন, শফিউল, অয়ন, তাইজুল, আল-আমিন, নাসির, সাব্বির।   ১৪ টা নাম নিয়ে কোন সংশয় নেই। কিন্তু অয়নটা কে?   ঘণ্টা দুয়েক আগের কথা।   প্রধান নির্বাচকের রুমে মিটিং চলছে স্কোয়াড ঘোষণার জন্য। ৩০ জন থেকে ১৫ জন বেছে নেয়া এমনিতেই অনেক কঠিন কাজ। সেই কাজ আরও কঠিন হয়েছে অস্ট্রেলিয়া- নিউজিল্যান্ডের কন্ডিশনের কথা মাথায় রেখে। সবকিছুর পরে যখন ১৫ জন ফাইনাল, তখন প্রধান নির্বাচক অয়নের...

all possible side effects of prednisone
irbesartan hydrochlorothiazide 150 mg