Author: শঙ্কর দেবনাথ

মজার ছড়া

খোকন মাকে প্রশ্ন করে- বলতে পারো মাম্, তোমার কাছে আমার আছে কত্তো টাকা দাম!   হেসে কেঁদে বলেন মা তার- জানিস নে তা বোকা, তুই তো আমার গচ্ছিত ধন, সোনামাণিক খোকা।   খোকন বলে- যেইখানে সেই গচ্ছিত ধন রাখা- কুলপি খাবো, সেখান থেকেই দাও না দু’টো টাকা।

ভাষাদিবসের অণুভাষ্য

এক ——- ভালবাসা ভাসা ভাসা হলে ভিনদেশি শিকারী ঈগল দীঘল ডানায় ভাসে জাতিয় আকাশে আর ফ্যাকাশে ইঁদুরছানা মরে ভয়ে ভয়ে—   বর্ণমালার ঘরে- অজগর তেড়ে আসে অ-এ   দুই —– প্রেম আজ-   বন্দি ফ্রেমে নদীবুক-   ভর্তি পানায় মা তোমার-    অ আ ক খ-র ঘরে দেয়-    বর্গী হানা

discount viagra online australia

ছড়াঃ দাদু-দিদুন

টাক ডুমা ডুম - টাক দাদুর মাথায় - টাক, টাকের উপর চক দিয়ে রোজ- দিদুন কষেন - আঁক। টাক ডুমা ডুম - টাক।।   তাক ধিনা ধিন - তাক দিদুন ডাকেন - নাক নাকের উপর বাজান দাদু- তাক ধিনা ধিন – তাক। তাক ধিনা ধিন - তাক।।

অণুকবিতারা

এক/ প্রেমের ভেতরে কিছু সেঁকো বিষ থাকে- রাত্রি ঘুমিয়ে গেলে চুপি চুপিচুপি ডাকে। -_——   দুই/ পাখিটির বুকে আছে যতটুকু নীড় তারও চেয়ে বেশি নাচে পরিযায়ী ভীড়। ——– তিন/ নদী ছোটে যদি’ সুখে ফেলে রেখে চর ঘর থাকে একা ঘরে মন যাযাবর।

drug mart pharmacy canada

টাটকা ছড়া

ভীষণ রেগে বললে দাদা- আস্ত গাধা তুই, এক অংক এত করেও বুঝলি নে কিচ্ছুই।   ব্যাঁ ব্যাঁ করে  খানিক পরে বলল হেসে রাধা- গাধারা কি অংক বোঝে? আমার সোনা দাদা!           গাধা

furosemide prednisone drug interactions

মজার ছড়া

খোকন মাকে প্রশ্ন করে- বলতে পারো মাম্, তোমার কাছে আমার আছে কত্তো টাকা দাম?   হেসে কেঁদে বলেন মা তার- জানিস নে তা বোকা! তুই যে আমার গচ্ছিত ধন সোনামাণিক খোকা।   খোকন বলে- যেইখানে সেই গচ্ছিত ধন রাখা, কুলপি খাবো, সেখান থেকেই দাও না দু’টো টাকা!

চতুর -হাঁদা

সাপ দেখেছো হিস্  হিসানো, পা দেখেছো সাপের? ভূত দেখোনি, দেখতে পারো, শ্রাদ্ধ ভূতের বাপের!   দেখতে পেলেও ঘুঘু, বোধহয় ফাঁদ দেখোনি ঘুঘুর, ভয় পেয়ো না, যেমন কুকুর তেমনি আছে মুগুর।

cara menggugurkan kandungan 2 bulan dengan cytotec

অণুকবিতা

এক/ তোমার শিরায় হাঁটে নিকোটিন ধারা, কোথায় ঘুমোবো আমি? বিছানা সাহারা। ******** দুই/ মা’র শাড়ি পুড়ে পুড়ে হয়ে যায় ছাই, চারদিকে এতো দাদা-! কাকে ডাকি ভাই?

আগুন

জ্বলছে আগুন মনে বনে টলছে প্রাণীকুল, কীসের পাপে সৌরতাপে ফোটায় বিষের হুল।   ভোরেই জেগে গিন্নি রেগে আগুন হয়ে ওঠেন, সেই আগুনেই কিচেনরুমে চায়ের জলটা ফোটে।   হাট বাজারের সাথে সাথেই আগুন জ্বলে পেটে, নেতার কথায় আগুন জ্বলে মিছিল মিটিং গেটে।   তুষের আগুন বুকের মাঝে সুখের ঘরে খাঁ খাঁ, পোড়ার জন্যে পিপিলীকার গজায় তবু পাখা।  

dosage of zoloft for severe depression

জীবন বিষয়ক / শঙ্কর দেবনাথ

বলাই যায় না শুধু দলা দলা কষ্টরা দীর্ঘশ্বাস বেয়ে নেমে আসে ঘেমে যায় ঘর দোর মন   তবু চোর চোর খেলি রোজ খোঁজ করি একটা ভোরের   জীবনটা প্রেমের ঘোরের —-

metformin rash side effect

ছড়াঃ বাঘের ফোন

বাঘ মামাজি বললো ফোনে- ভাগনে হরিণ শোনো, তোমার সাথে এখন থেকে নেই কো বিবাদ কোনো।   এক ঘাটে জল খাবো এসো ভাগনে এবং মামায়, নদীর চরে ঘুরবো এসো ভয় পেয়ো না আমায়।   হরিণ বলে- মামা তোমার বুদ্ধিটা কী খাসা, সন্ধি করার ফন্দি এঁটেই চাও মিটাতে আশা?   কিন্তু আমি নেই তো বনে, সেই তো কবে থেকে নাচ করছি বলিউড়েই স্নো পাউডার মেখে।   এক ঘাটে জল খাই কেমনে যাই কেমনে চরে, রাগ করে বাঘ ফোনটা রাখে মনটা খারাপ করে।    

clean viagra jokes

নববর্ষের ছড়া / শঙ্কর দেবনাথ

সকল জীবন ধকলবিহীন নকলবিহীন সুখে, শান্তিতে থাক, ক্লান্তিবিহীন বুকে।   ফুল ফুটুক আর ডাকুক পাখি মাখুক আঁখি আলো, ঘৃণার ঘরে বীণার স্বরে মুছুক মনের কালো।   কেউ না যেন দুঃখে থাকে রুক্ষে থাকে একা, ইচ্ছে ছড়াই ছড়ায় ছড়ায়, গন্ধে জড়াই লেখা।

বাজিকথা/ শঙ্কর দেবনাথ

বোমাবাজি গোলাবাজি গলাবাজি তোলাবাজি বাজি আছে কত রে, চালবাজি চাঁদাবাজি ফাঁকিবাজি ধাঁধাবাজি বাজি নানা মত রে।   কাঠিবাজি ঠগবাজি ঢপবাজি রকবাজি আরও বাজি পটকা, রাজি হয়ে ডিগবাজি খাও যদি ধরে বাজি তাহলেই খটকা, তেতে যদি ওঠে তাতে কারো মাথা মটকা!

রুঢ়কথা

ব্যাঙ্গমা নেই ব্যাঙ্গমী নেই শুক- সারিরাও নেই, শুধুই আছে ব্যাঙ্গ মা গো অসুখ সারি এই। রূপকথা নেই রূপহারা সব রুঢ়কথায় ভরা, ফুলপরী নেই ফুল টাইমই পরীক্ষা আর পড়া। পক্ষ আছে লক্ষ্যে যাবার কোথায় পক্ষীরাজ! গান-এর ভয়ে গান হারিয়ে কাঁপছে পক্ষীরা আজ।

সম্পর্ক

তোমার চোখের মধ্যে অরূপলোকের জল টলমল করে আর গদ্যে পদ্যে খিচুড়ি পাকায় বুকের গভীর থেকে সাপ স্বপ্নের উত্তাপ মেখে কামনার ফণায় তাকায় মন আর দেহের মধ্যিখানে অলৌকিক যানে বসে প্রেম ওঠে হেসে সম্পর্ক সাজানো থাকে উজ্বল শো’কেসে—

viagra 7000mg

তোমার মৃতদেহ / শঙ্কর দেবনাথ

এক পশলা বৃষ্টি এবং একটুখানি হাওয়া, তার মধ্যেই হঠাৎ তোমার আসা এবং যাওয়া। আগুন জ্বলে গাঁয়ের গায়ে সবুজ পুড়ে খাঁ খাঁ, আচমকা জল ছলাৎ ছলাৎ দুইচোখে প্রেম মাখায়। তোমার আসা – তোমার যাওয়া মধ্যিখানে রাতের নগ্নদেহ- বিশাল খাটে শরীর খেলায় মাতে। মুক্ত ঘরে হঠাৎ এসে খিল এঁটে দেয় কে ও! ঝুলের মত ঝুলেই থাকে তোমার মৃতদেহ।

সেই গাছ এই আজ

প্রাণ দেয় ঘ্রাণ দেয় দেয় ছায়াবুক, জল দেয় বল দেয় দেয় মায়ামুখ। শিস দেয় বিষ নেয় বিষহরা হয়, জ্বরা নেয় খরা নেয় দেয় বরাভয়। ধরে রাখে ভরে রাখে মাটি আর মা-টি, বাসা দেয় আশা দেয় বন্ধু সে খাঁটি। সেই গাছ এই আজ মানুষেরা কাটে, মুখ বুজে সুখ খুঁজে মরুপথে হাঁটে।

un diabetico e hipertenso puede tomar viagra

দুরত্ব

ময়নাতদন্ত করে নেওয়া ভাল আত্মহননের আগে শিরার মধ্যে কতটুকু বিষ কতটুকু রক্ত – ঘাম আর কতটুকু নিকোটিন ফরেন্সিক পরীক্ষায় বুঝে নেওয়া ভালো অভিকর্ষ টান ত্বরণের আবেগ ও অভিমান কত প্রেম আর পালঙ্কের মাঝখানে কতটুকু জ্যামিতি জীবিত তোমার আমার মধ্যে যেটুকু দুরত্ব অনায়াসে হাত ধরা যায়— pharmacy technician flashcards online

ছড়াঃ দাদু-দিদুন

টাক ডুমা ডুম টাক দাদুর মাথায় টাক, টাকের উপর চক দিয়ে রোজ দিদুন কষেন আঁক। টাক ডুমা ডুম টাক।। টাক ডুমা ডুম টাক দিদুন ডাকেন নাক, নাকের উপর বাজান দাদু তাক ধিনা ধিন তাক। তাক ধিনা ধিন তাক।।

বলাই যায় নানা / শঙ্কর দেবনাথ

বলাই যায় না শুধু দলা দলা কষ্টরা দীর্ঘশ্বাস বেয়ে নেমে আসে ঘেমে যায় ঘর- দোর- মন তবু- চোর- চোর- খেলি রোজ খোঁজ করি একটা ভোরের— জীবনটা প্রেমের— ঘোরের —